বাড়ি > ময়দান > ১৯৮৩-র বিশ্বকাপ জয়ের কিছু উল্লেখযোগ্য তথ্য ও পরিসংখ্যান
বিশ্বকাপ জয়ের পর স্মারক হিসেবে স্টাম্প সংগ্রহ করছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। ছবি- গেটি ইমেজেস।
বিশ্বকাপ জয়ের পর স্মারক হিসেবে স্টাম্প সংগ্রহ করছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। ছবি- গেটি ইমেজেস।

১৯৮৩-র বিশ্বকাপ জয়ের কিছু উল্লেখযোগ্য তথ্য ও পরিসংখ্যান

  • ভারতীয় ক্রিকেটের গতিমুখ বদলে দেয় ১৯৮৩-র বিশ্বকাপে কপিলদের এমন অবিস্মরণীয় সাফল্য।

আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতীয় ক্রিকেটের প্রথম বলিষ্ঠ পদক্ষেপ ১৯৮৩-র বিশ্বকাপ জয়। ভারতীয় ক্রিকেটের গতিমুখ বদলে দেয় কপিলদের এমন অবিস্মরণীয় সাফল্য। আন্ডারডগ হিসেবে লড়াই শুরু করে ফাইনালে তারকা সমৃদ্ধ ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে হারানো পর্যন্ত যাত্রাপথে কার্যত অসাধ্য সাধন করে ভারতীয় দল। 

ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

# বিশ্বকাপের আগে ৪টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে ভারত। নিউজিল্যান্ড, মাইনর কাউন্টিজ ও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ৩টি ম্যাচ হারেন কপিলরা। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধেই একটি ম্যাচ জেতে ভারত।

# ভারত বিশ্বকাপের প্রথম দু'টি ম্যাচ জেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে। পরের দু'টি ম্যাচ হারে অস্ট্রেলিয়া ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে। শেষ চারটি ম্যাচে ভারত পরাজিত করে যথাক্রমে জিম্বাবোয়ে, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে।

# রজার বিনি ১৮টি উইকেট নিয়ে বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হন। পরবর্তী সময়ে অনিল কুম্বলে (১৯৯৬) ও জাহির খান (২০১১) ছাড়া বিশ্বকাপে সবথেকে বেশি উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব আর কোনও ভারতীয়র নেই।

# কপিল দেব ৮ ম্যাচে ৬০ গড়ে ৩০৩ রান করেন। তিনি ছিলেন বিশ্বকাপের পঞ্চম সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী।

# মহিন্দর অমরনাথ সেমিফাইনাল ও ফাইনালের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন।

# ফাইনালে দু'দল মিলিয়ে সবথেকে বেশি ৩৮ রানের ব্যক্তিগত ইনিংস খেলেন কৃষ্ণমাচারি শ্রীকান্ত।

# বিশ্বকাপ ফাইনালের ইতিহাসে প্রথমে ব্যাট করে সবথেকে কম ১৮৩ রান তুলে জেতার নজির এখনও কপিলদের দখলেই রয়েছে।

বন্ধ করুন