বাংলা নিউজ > দেখতেই হবে > ঘরে বাইরে > ইউনিয়ন ব্যাঙ্কে ১৩৪ কোটি টাকা 'জালিয়াতি' ‌গুজরাতি সংস্থার, অভিযান CBI‌-র
সিবিআই দফতর। ফাইল ছবি
সিবিআই দফতর। ফাইল ছবি

ইউনিয়ন ব্যাঙ্কে ১৩৪ কোটি টাকা 'জালিয়াতি' ‌গুজরাতি সংস্থার, অভিযান CBI‌-র

ব্যাঙ্কের অভিযোগ, ব্যাঙ্কের কাছ থেকে ১৩৪.৪৩ কোটি টাকা প্রতারণা করা হয়েছে।

আবারও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের কোটি কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগ উঠল বেসরকারি সংস্থার বিরুদ্ধে। জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে গুজরাতের কচ্ছ জেলার গান্ধীধামের একটি বেসরকারি সংস্থার বিরুদ্ধে। ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার বিপুল পরিমাণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তদন্ত শুরু করল সিবিআই। ইউবিআই ব্যাঙ্কের অভিযোগ, ব্যাঙ্কের কাছ থেকে ১৩৪.৪৩ কোটি টাকা প্রতারণা করা হয়েছে। সংস্থার মালিকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। শুক্রবার গুজরাতি ওই সংস্থার মুম্বইয়ের বেশ কয়েকটি দফতরে হানা দিয়েছেন সিবিআইয়ের আধিকারিকেরা।

সূত্রের খবর, গুজরাতের কচ্ছ জেলার গান্ধীধামে এই সংস্থার মূল দফতর। ‘‌হাই প্রেশার টেকনোলজিস প্রাইভেট লিমিটেড’‌ নামের এই সংস্থার মুম্বইয়েও অনেকগুলো শাখা রয়েছে। এই সংস্থার উচ্চপদস্থ আধিকারিক ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদের সকলের বিরুদ্ধে ইউনিয়ন ব্যাঙ্কের ১৩৪.৪৩ কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগ আনা হয়েছে। মুম্বইয়ে সংস্থার বেশ কয়েকটি দফতরে অভিযান চালায় সিবিআই।

সূত্রের খবর, ঘটনায় ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের তরফে দায়ের করা এফআইআরে উল্লেখ করা হয়েছে, সংস্থার মালিকরা কোটি কোটি টাকা ব্যাঙ্ক ঋণ নিয়ে তা অসৎ উপায় ব্যবহার করেছেন। সকালে এফআইআর দায়ের করার পরই সিবিআইয়ের একটি বিশেষ দল মুম্বইয়ের বিভিন্ন জায়গায় ওই সংস্থার মোট ৬টি দফতরে একযোগে অভিযান চালিয়েছে।

সূত্রের খবর, এই অভিযানে সিবিআই ওই দফতরগুলো থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্রও বাজেয়াপ্ত করেছে। তবে এই নথিগুলিতে ঠিক কী রয়েছে, সে বিষয়ে এখনও কোনও তথ্য প্রকাশ করেনি সিবিআই। তবে এই ঘটনায় আরও গভীরে গিয়ে তদন্ত করতে চাইছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের তরফে অভিযোগ পাওয়ার পরই এই পদক্ষেপ নিয়েছে সিবিআই।

ব্যাঙ্ক অভিযোগ করেছে যে ওই বেসরকারি সংস্থা নিজেদের পরিচালন কর্তৃপক্ষ ও গ্যারান্টারের মাধ্যমে ব্যাঙ্কের বিপুল পরিমাণের অর্থ আত্মসাৎ করেছে। তাছাড়া ব্যাঙ্কের কাছ থেকে এক কারণ দেখিয়ে ঋণ তুলে, অনৈতিকভাবে এমন খাতে সেই টাকা ব্যবহার করা হয়েছে, যার জন্য ঋণ নেওয়া হয়নি। আরও অভিযোগ উঠেছে, সংস্থার উদ্দেশে ছিল যে, ব্যাঙ্কের ঋণ মঞ্জুরের নির্দেশ ও নির্দিষ্ট শর্তগুলো উপেক্ষা করে এই ব্যাঙ্কেরই মাধ্যমে মোটা টাকা বিভিন্ন জায়গায় পাঠিয়ে ব্যাঙ্কের সঙ্গে প্রতারণা করা।সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, এই সংস্থার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের খুব শীঘ্রই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হতে পারে।

বন্ধ করুন