বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > চলন্ত ট্রেনের ইঞ্জিনে ঢুকে গেল বাইক, এমার্জেন্সি ব্রেক কষলেন চালক, তারপর…
ট্রেনের ইঞ্জিনে ঢুকে গেল বাইক (প্রতীকী ছবি) (PTI Photo) (PTI)
ট্রেনের ইঞ্জিনে ঢুকে গেল বাইক (প্রতীকী ছবি) (PTI Photo) (PTI)

চলন্ত ট্রেনের ইঞ্জিনে ঢুকে গেল বাইক, এমার্জেন্সি ব্রেক কষলেন চালক, তারপর…

  • আলিপুরদুয়ারের  দলদলিয়া লেভেল ক্রসিংয়ের কাছে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে পড়ে।

আলিপুরদুয়ার থেকে শিলিগুড়ির দিকে আসছিল ০৫৪৬৮ ডাউন প্য়াসেঞ্জার ট্রেন। আচমকাই বিপত্তি। আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট থানার রাঙালিবাজনা এলাকায় হঠাৎ করেই ট্রেনের চাকার সঙ্গে একটি বাইক জড়িয়ে যায়। একেবারে ট্রেনের ইঞ্জিনের ভেতর ঢুকে যায় বাইকের একাংশ। বাইকটিকে নিয়ে বেশ কিছুটা এগিয়ে গিয়েছিল ট্রেনটি। এরপর দলদলিয়া লেভেল ক্রসিংয়ের কাছে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে পড়ে। প্রায় ঘণ্টাখানেক ট্রেনটি ওই জায়গায় দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু রেললাইনে বাইক এল কী করে?

আলিপুরদুয়ার থেকে শিলিগুড়ির দিকে আসছিল ০৫৪৬৮ ডাউন প্য়াসেঞ্জার ট্রেন। আচমকাই বিপত্তি। আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট থানার রাঙালিবাজনা এলাকায় হঠাৎ করেই ট্রেনের চাকার সঙ্গে একটি বাইক জড়িয়ে যায়। একেবারে ট্রেনের ইঞ্জিনের ভেতর ঢুকে যায় বাইকের একাংশ। বাইকটিকে নিয়ে বেশ কিছুটা এগিয়ে গিয়েছিল ট্রেনটি। এরপর দলদলিয়া লেভেল ক্রসিংয়ের কাছে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে পড়ে। প্রায় ঘণ্টাখানেক ট্রেনটি ওই জায়গায় দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু রেললাইনে বাইক এল কী করে?

|#+|

স্থানীয় সূত্রে খবর, রেললাইল সংলগ্ন এলাকায় একটি পায়ে চলা পথ রয়েছে। সেই রাস্তা দিয়েই একটি বাইক রেললাইনের উপর উঠে পড়ে। এদিকে ট্রেনটি কাছাকাছি চলে আসতেই  বাইকচালক বিষয়টি বুঝতে পারেন। এরপরই একেবারে শেষ মুহূর্তে তিনি বাইক ছেড়ে লাফ মারেন। এদিকে তখন একেবারে সামনে চলে এসেছে ট্রেনটি। বাইক চালক বিপদ বুঝে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান। এদিকে ততক্ষণে বাইকটিকে টেনে হিঁচড়ে এগোতে শুরু করেছে ট্রেনটি। পরে কিছুটা গিয়ে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে পড়ে। রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, এমার্জেন্সি ব্রেক কষে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে পড়েছিল।

এদিকে ঘটনার জেরে বাইকটি কয়েক টুকরো হয়ে গিয়েছে। তবে ওই যুবকের খোঁজ চালাচ্ছে রেল দফতর। বাইকের নম্বর দেখে তাকে সনাক্ত করার চেষ্টা করছে রেলদফতর। তবে বাইক চালক রক্ষা পাওয়ায় কিছুটা হলেও স্বস্তি পেয়েছেন বাসিন্দারা। কিন্তু এভাবে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে রেললাইন পারাপার একেবারেই উচিৎ হয়নি, বলছে রেল দফতর। 

 

বন্ধ করুন