বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Murder: অন্ত্বঃসত্ত্বা স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন! স্বামীকে ধরে পেটালেন গ্রামবাসীরা
অভিযুক্ত স্বামী মোতালেবকে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। নিজস্ব ছবি

Murder: অন্ত্বঃসত্ত্বা স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন! স্বামীকে ধরে পেটালেন গ্রামবাসীরা

  • পুলিশ এবং পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, বাংরুয়া গ্রামের বাসিন্দা সুখী বিবির সঙ্গে মাস ছয়েক আগে সিমলার বাসিন্দা মোতালেবের বিয়ে হয়েছিল। তবে বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবন মোটেও সুখের হয়নি। প্রতিদিনই তাদের মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত।

অন্ত্বঃসত্ত্বা গৃহবধূকে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামীকে ধরে বেধড়ক মারধর করলেন গ্রামবাসীরা। ঘটনাটি মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকার সিমলা গ্রামের। মৃত গৃহবধুর নাম সুখী বিবি (১৯)। অভিযুক্ত স্বামীর নাম মোতালেব আলি । গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ালে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ এবং পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, বাংরুয়া গ্রামের বাসিন্দা সুখী বিবির সঙ্গে মাস ছয়েক আগে সিমলার বাসিন্দা মোতালেবের বিয়ে হয়েছিল। তবে বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবন মোটেও সুখের হয়নি। প্রতিদিনই তাদের মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত। সুখীর পরিবারের অভিযোগ, মোতালেব প্রতিদিনই মদ্যপান করে বাড়িতে ঢুকতো। তাছাড়া অন্য নারীদের প্রতিও তার নেশা ছিল। এই নিয়ে স্বামী এবং স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝামেলা হতো। তিন মাসের অন্ত্বঃসত্ত্বা ছিলেন সুখী বিবি।

তার পরিবারের অভিযোগ, সুখীকে প্রায়ই মারধর করত মোতালেব। গতকাল রাতেও মোতালেব তাকে মারধর করেছিল। এরপর সকালে মৃত অবস্থায় তার সুখীর দেহ উদ্ধার হয়। গৃহবধূর পরিবারের অভিযোগ, তাকে মারধর করার পর খুন করা হয়েছে। তার শরীরে এবং গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এদিকে, ঘটনায় খবর প্রকাশ্যে আসতেই গ্রামবাসীরা মোতালেবের বাড়ি গিয়ে তাকে ধরে মারধর করে।

খবর পেয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে মালদা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। ইতিমধ্যেই, অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় সুখীর শ্বশুর-শাশুড়ির বিরুদ্ধেও মারধরের অভিযোগ উঠেছে। তবে তারা ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাদের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছেন সুখীর পরিবারের সদস্যরা।

বন্ধ করুন