বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বড় ছেলের মৃত্যু শোক সামলাতে পারেননি, ৫ ঘণ্টা পর মৃত্যু হল বৃদ্ধা মায়ের

বড় ছেলের মৃত্যু শোক সামলাতে পারেননি, ৫ ঘণ্টা পর মৃত্যু হল বৃদ্ধা মায়ের

মা ও ছেলের মৃত্যু। প্রতীকী ছবি।

তারা পূর্বস্থলী ১ নম্বর ব্লকের জাহান্নগর পঞ্চায়েতের গোলারহাটের বাসিন্দা। বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি যক্ষ্মা রোগে ভুগছিলেন। এর জন্য তিনি চিকিৎসাও করছিলেন। দীর্ঘ চিকিৎসায় তিনি সেরে উঠেছিলেন। কিন্তু যক্ষ্মা রোগ সেরে গেলেও তিনি অ্যাজমা রোগে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর জন্য তার চিকিৎসা চলছিল।

শারীরিক অসুস্থতার জেরে মৃত্যু হয়েছিল ছেলের। তারপরেই ছেলের মৃত্যুতে শোকে পাথর হয়ে গিয়েছিলেন মা। সেই ধাক্কা সামলাতে না পেরে ছেলের মৃত্যুর ৫ ঘণ্টা পর মৃত্যু হল মায়ের। এমন ঘটনা ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলীর ১ নম্বর ব্লকের গোলারহাট এলাকায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শোকের ছায়া নেমেছে এলাকায়। এরকম যে হবে তা কল্পনাও করতে পারেননি পরিবারের সদস্যরা। মৃত ছেলের নাম হল তাপস দত্ত (৫৫) এবং মায়ের নাম সন্ধ্যারানী দত্ত (৭৩)।

আরও পড়ুন: রবিবার থেকে নিখোঁজ, সোম সকালে ইডেন থেকে উদ্ধার CAB কর্মীর ছেলের দেহ, আত্মহত্যা?

স্থানীয় এবং পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তারা পূর্বস্থলী ১ নম্বর ব্লকের জাহান্নগর পঞ্চায়েতের গোলারহাটের বাসিন্দা। বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি যক্ষ্মা রোগে ভুগছিলেন। এর জন্য তিনি চিকিৎসাও করছিলেন। দীর্ঘ চিকিৎসায় তিনি সেরে উঠেছিলেন। কিন্তু যক্ষ্মা রোগ সেরে গেলেও তিনি অ্যাজমা রোগে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর জন্য তার চিকিৎসা চলছিল। প্রায়ই শ্বাসকষ্টের সমস্যা হচ্ছিল তাপস বাবুর। কিন্তু শীত বেড়ে যাওয়ায় তার শ্বাসকষ্টের সমস্যা আরও বেড়ে যায়। এরপর তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেই অবস্থাতেই শনিবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। জানা গিয়েছে, তাপসবাবু ছিলেন মায়ের বড় ছেলে। এদিকে তাপস বাবুর মা সন্ধ্যারানীও বয়স্ক জনিত কারণে অসুস্থ ছিলেন। প্রথমে তাকে বড় ছেলের মৃত্যুর খবর পরিবারের কোনই সদস্য জানাননি। তবে কোনওভাবে তিনি জানতে পারেন বড় ছেলে মারা গিয়েছেন। এরপরে তিনি শোকে কাতর হয়ে পড়েন। পরে শনিবার বিকেলেই তার মৃত্যু হয়। একই পরিবারে একই দিনে দুজনের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নামে এলাকায়। 

মৃতদের পরিবারের এক সদস্য জানান, তাপস বাবু গত ২ বছর ধরে যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত ছিলেন। নিয়মিত চিকিৎসার পর তিনি সেরে উঠেছিলেন। কিন্তু, অ্যাজমা রোগ থাকার কারণে তিনি শ্বাসকষ্টের সমস্যায় ভুগতেন। শীতকালে ঠান্ডা বেশি হওয়ায় শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। তা থেকে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয় তাপস বাবুর। পরে বৃদ্ধা মা সন্ধ্যারানী দত্ত ছেলের মৃত্যুর খবর জানার পর নিজেকে সামলাতে পারেননি। তিনিও অসুস্থ ছিলেন। তাপস বাবুর ভাই সঞ্জীব দত্ত জানান, তার মা তার দাদাকে খুবই ভালোবাসতেন। ফলে বড় ছেলের মৃত্যুর শোক সামলাতে না পারার কারণে মায়েরও মৃত্যু হয়েছে।

বাংলার মুখ খবর

Latest News

মেয়ে রিয়া ও তাঁর শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে ছবি দিলেন পল্লবী, চিনুন প্রসেনজিতের ভাগ্নীকে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে নতুন ভূমিকায় প্রসেনজিৎ, রাজের ফেলে যাওয়া আসনে কে? জিতু তো অতীত, কার মঙ্গলকামনায় শ্রাবণ মাসে দার্জিলিঙের মহাকাল মন্দিরে নবনীতা? চার তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদের ঝাঁঝালো বক্তব্যে সরগরম সংসদ, কী দাবি তুললেন তাঁরা?‌ আসবে টাকা, বাড়বে সঞ্চয়, হবে দেশ-বিদেশে ভ্রমণ! চতুর্গ্রহী যোগে লাভবান কারা? 2030 Women’s T20 World Cup-এ এক লাফে দল সংখ্যা বেড়ে হচ্ছে ১৬টি ডিভোর্সের আগেই দেবলীনা ‘এক্স’, তথাগতর 'আধপোড়া কৃমি’ বিবৃতি নিয়ে জবাব স্ত্রীর ‘আমি একা, কারোর সঙ্গে প্রেম করছি না’, সুস্মিতার এমন দাবির পরই মুখ খুললেন রোমান আরবের মাটিতে কোটা বিরোধী প্রতিবাদ, বেশ কয়েকজন বাংলাদেশের নাগরিকের জেল আইএনএস ব্রহ্মপুত্রে অগ্নিকাণ্ড! ভয়াবহ ক্ষতিগ্রস্ত একাংশ, নিখোঁজ নাবিক

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.