বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > রাস্তায় বন্দুক ঠেকিয়ে ৬০ লক্ষ টাকা লুঠ, মুহূর্তের মধ্যে পুলিশের জালে দুষ্কৃতীরা
দুষ্কৃতী গ্রেফতার (HT_PRINT)
দুষ্কৃতী গ্রেফতার (HT_PRINT)

রাস্তায় বন্দুক ঠেকিয়ে ৬০ লক্ষ টাকা লুঠ, মুহূর্তের মধ্যে পুলিশের জালে দুষ্কৃতীরা

  • আমডাঙা থানার গাদামারা হাট এলাকায় পৌঁছতেই একদল দুস্কৃতী ট্রাকের পথ আটকে দেয়। তারপর আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে ৬০ লক্ষ টাকা লুঠ করে নেয় দুষ্কৃতীরা।

সামনে দুর্গাপুজো। দুষ্কৃতীদের হাতে টাকা নেই। তাই বন্দুক ঠেকিয়ে ট্রাক চালকের কাছ থেকে ৬০ লক্ষ টাকা লুঠ করল দুষ্কৃতীরা। এই ঘটনায় শোরগোল পড়ে যায়। মাছ বিক্রির টাকা নিয়ে ট্রাক চালক ফিরছিল। তখনই এই ঘটনা ঘটে আমডাঙায়। যদিও কয়েক ঘন্টার মধ্যেই পুলিশ দুষ্কৃতীদের এবং বেশিরভাগ টাকা উদ্ধার করে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।

পুলিশ সুত্রে খবর, গত ২৮ সেপ্টেম্বর মাছ বোঝাই ট্রাক অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে রওনা দেয় রানাঘাটের উদ্দেশ্যে। তারপর মাছ বিক্রির ৬০ লক্ষ টাকা নিয়ে ট্রাকটি বুধবার অন্ধ্রপ্রদেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। অভিযোগ, ট্রাকটি ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক দিয়ে যাচ্ছিল। আমডাঙা থানার গাদামারা হাট এলাকায় পৌঁছতেই একদল দুস্কৃতী ট্রাকের পথ আটকে দেয়। তারপর আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে ৬০ লক্ষ টাকা লুঠ করে নেয় দুষ্কৃতীরা। সেই টাকা দিয়ে দুর্গাপুজোয় ফুর্তি করার পরিকল্পনা ছিল।

কিন্তু চালকের অভিযোগ পেয়েই পুলিশ তদন্ত শুরু করে। তদন্তে উঠে আসে, রানাঘাটের বাসিন্দা সুনীতকুমার ভৌমিক এই দুষ্কৃতী দলকে নিয়োগ করেছিল। তখনই আমডাঙ্গা থানার আইসি পুলিশবাহিনী নিয়ে রানাঘাটে পৌঁছয়। আর এলাকায় চিরুনী তল্লাশি শুরু করে। সেখান থেকে পাঁচ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। এমনকী উদ্ধার করা হয় ৪০ লক্ষ টাকা, আগ্নেয়াস্ত্র।

এই দ্রুত গতিতে লুঠ হওয়া টাকা এবং দুষ্কৃতীদের বমাল ধরায় এদিন আমডাঙা থানার আইসি’‌র প্রশংসা করেছেন ট্রাক চালক। এটা আমডাঙা থানার পুলিশের বড় সাফল্য বলেই মনে করছে জেলা পুলিশের কর্তারা। এই বিষয়ে বারাসত জেলা পুলিশ সুপার রাজনারায়ণ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‌৪০ লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযুক্ত পাঁচ দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্যাংয়ের খোঁজে তল্লাশি চলছে।’‌

বন্ধ করুন