বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নিজেই জঙ্গলে ফিরল গোসাবার ত্রাস বাঘিনী, পায়ের ছাপ দেখে হাঁফ ছাড়ল বন বিভাগ
জঙ্গলে ফিরল বাঘিনী। প্রতীকী ছবি। (HT_PRINT)

নিজেই জঙ্গলে ফিরল গোসাবার ত্রাস বাঘিনী, পায়ের ছাপ দেখে হাঁফ ছাড়ল বন বিভাগ

গরাল নদী পেরিয়ে পঞ্চমুখানি হয়ে রয়াল বেঙ্গল গভীর জঙ্গলে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে বনদফতর।

গত কয়েকদিন ধরে গোসাবায় ত্রাস ছড়িয়ে বেরিয়েছিল বাঘিনী। অবশেষে নিজেই জঙ্গলে ফিরল ডোরাকাটা। তার জঙ্গলে ফেরার পায়ের ছাপ দেখতে পেয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন বিভাগের কর্মীরা। গরাল নদী পেরিয়ে পঞ্চমুখানি হয়ে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার গভীর জঙ্গলে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে বন বিভাগ। এই খবর পাওয়ার পরেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন গোসাবার বাসিন্দা থেকে শুরু করে বন বিভাগের কর্মীরা।

বাঘিনীকে ফাঁদে ফেলার জন্য একাধিকবার চেষ্টা চালানো হয়েছে। ছাগলের টোপও দেওয়া হয়েছিল। তাতে অবশ্য ফাঁদে পড়েনি বাঘিনী। ডোরা কাটা যাতে কোনওভাবেই লোকালয়ে ঢুকে না পড়ে, তার জন্য রবিবার রাতভর পাহারা দিয়েছেন বন বিভাগের কর্মীরা। সেইসঙ্গে, স্থানীয়দের নিরাপত্তার জন্য এলাকা জাল দিয়েও ঘিরে দেওয়া হয়। কিন্তু, সেসব কিছুই কাজে লাগেনি।

বাঘের আতঙ্কে বৃহস্পতিবার থেকে ঘুম উড়েছিল গোসাবার বাসিন্দাদের। ওইদিন সাতজেলিয়ার চরঘেরি এলাকায় একটি বাঘকে ঢুকে পড়তে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরা প্রথমে নিজেরা পটাকা ফাটিয়ে বাঘ তাড়ানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তারপরেও বাঘ তাড়াতে না পেরে বন বিভাগে খবর দেন।

অন্যদিকে, কুমিরমারিতেও চলে এসেছিল একটি বাঘ। অবশ্য কুমিরমারির বাঘকে ঘুমপাড়ানি গুলি ছুড়ে কাবু করা গেলেও গোসাবার বাঘিনীকে কিছুতেই বাগে আনা যায়নি। ফলে বাঘিনী ধরার জন্য রবিবার রাতভর ছাগলের টোপ দিয়ে অপেক্ষা করেন বনকর্মীরা। তবে সোমবার ভোরে বাঘিনীর পায়ের ছাপ জঙ্গলের দিকে যাওয়া দেখতে পেরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন বন বিভাগের কর্মী এবং স্থানীয় বাসিন্দারা।

বন্ধ করুন