বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিলের ওপর অশোকস্তম্ভের সিল মেরে শিলিগুড়িতে তোলাবাজির অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে
অশোকস্তম্ভের সিলসহ তৃণমূলের বিল।

বিলের ওপর অশোকস্তম্ভের সিল মেরে শিলিগুড়িতে তোলাবাজির অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

  • বিলের ওপর অশোকস্তম্ভ দেখে সন্দেহ হয় ব্যবসায়ীদের। এর পর জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তাঁরা। তৃণমূল নেতাদের দাবি ওই বিল ভুয়ো। তৃণমূলের নাম করে টাকা তুলছেন কেউ বা কারা।

এ যেন চোরের ওপর বাটপারি। দলীয় প্রতীকের ওপর অশোকস্তম্ভসহ সিল ছেপে তৃণমূলের নামে টাকা তোলার অভিযোগ শিলিগুড়িতে। এই নিয়ে ব্যবসায়ীরা তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে অভিযোগ করলে দলের তরফে জানানো হয়, এই কাজ তাদের নয়। এর পরই থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে তৃণমূল। ওদিকে স্থানীয় বিধায়ক শংকর ঘোষের দাবি, টাকা তুলছিল তৃণমূলই। ব্যবসায়ীদের অসন্তোষ টের পেয়ে এখন ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

শিলিগুড়ির বিভিন্ন এলাকায় গত কয়েকদিন ধরে তৃণমূলের নামে বিল ছাপিয়ে মোটা টাকা আদায় করছিল কিছু যুবক। বিলে দলের প্রতীক ঘাসফুলের পাশাপাশি ছিল অশোক স্তম্ভের সিল। সেই বিল দিয়ে কারও কাছ থেকে ৫,০০০ টাকা কারও কাছ থেকে ১০,০০০ টাকা আদায় করেছেন যুবকরা। কিন্তু বিলের ওপর অশোকস্তম্ভ দেখে সন্দেহ হয় ব্যবসায়ীদের। এর পর জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তাঁরা। তৃণমূল নেতাদের দাবি ওই বিল ভুয়ো। তৃণমূলের নাম করে টাকা তুলছেন কেউ বা কারা।

এর পর প্রধাননগর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় তৃণমূলের তরফে। অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। কারা একাজ করেছে জানতে যে সব দোকানে ওই যুবকরা গিয়েছিল তার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হচ্ছে।

ওদিকে ঘটনায় তৃণমূলকেই কাঠগড়ায় তুলেছেন শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শংকর ঘোষ। তিনি বলেন, ‘তোলাবাজি তৃণমূলের পুরনো অভ্যেস। বিষয়টি সবারই জানা। সামনে পুরভোট। ব্যবসায়ীদের অসন্তোষ আঁচ করতে পেরে নিজেদের বিরুদ্ধে নিজেরাই থানায় অভিযোগ করে নাটক করছেন তৃণমূল নেতারা। সাধারণ মানুষ সব জানেন।’

বন্ধ করুন