বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সবংয়ে শুভেন্দু–অনুগামীদের বাড়িতে ভাঙচুর, বোমাবাজি, অভিযুক্ত মানস ভুঁইয়া–ঘনিষ্ঠরা
সবংয়ে ভাঙচুর। ছবি :‌ সংগৃহীত
সবংয়ে ভাঙচুর। ছবি :‌ সংগৃহীত

সবংয়ে শুভেন্দু–অনুগামীদের বাড়িতে ভাঙচুর, বোমাবাজি, অভিযুক্ত মানস ভুঁইয়া–ঘনিষ্ঠরা

  • অমূল্য মাইতি এদিন স্পষ্ট জানিয়েছেন, ‘‌এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি মানসবাবু যুক্ত। কয়েকদিন আগে তিনি এক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে যারা তাঁকে সমর্থন করবে না তাদের ওষুধ তাঁর জানা আছে এবং তিনি সেই ওষুধ তাদের দেবেন। সেই ওষুধই কাল রাত থেকে প্রয়োগ করা শুরু করেছেন তিনি।’‌‌

রাতের অন্ধকারে হামলা চলল ‘‌দাদার অনুগামী’‌দের বাড়িতে। ‌অভিযোগ, বাড়ি ভাঙচুর, এলাকায় বোমাবাজির পাশাপাশি তাঁদের দেওয়া হয়েছে হুমকিও। সোমবার গভীর রাতে পশ্চিম মেদিনীপুরের সবংয়ের ঘটনায় ফের প্রকাশ উঠে এলে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল। জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি এ ঘটনায় সরাসরি অভিযোগ এনেছেন মানস ভুঁইয়ার অনুগামীদের বিরুদ্ধে।

জানা গিয়েছে, সোমবার নন্দীগ্রামে রাসমেলায় অংশ নেওয়ার পর বিকেলের দিকে সবংয়ে ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা প্রভাত মাইতির বাড়িতে যান শুভেন্দু অধিকারী ও তাঁর অনুগামীরা। প্রাক্তন ব্লক সভাপতি প্রভাতবাবুর বাড়িতে ‘‌দাদা’‌কে নিয়ে তাঁরা ‘‌অনুগামী’‌রা বাইক মিছিল করে যান আর এদিন গভীর রাতে দেড়টা নাগাদ ওই বাড়িতেই হামলা চালায় তৃণমূলের আর এক গোষ্ঠীর কর্মী–সমর্থকরা। হামলা চলে একাধিক তৃণমূলকর্মীর বাড়িতে। এরা মানস ভুঁইয়ার ঘনিষ্ঠ বলে অভিযোগ করেছেন জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি। তাঁর অভিযোগ, রাতেই আরও চারজন তৃণমূলকর্মীর বাড়িতে ব্যাপক হামলা চলে। করা হয় মারধরও।

এদিন গভীর রাতেই পুলিশকে খবর দেন অমূল্য মাইতি। ঘটনাস্থলে এসে বেশ কয়েকটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদিকে, মানস ভুঁইয়ার অনুগামীদের অভিযোগ, এ ঘটনার পেছনে তাঁরা নয়, বিজেপি জড়িত। অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপি দাবি করেছে, মানস ভুঁইয়া ও অমূল্য মাইতির মধ্যে সঙ্ঘর্ষে তাদের ফাঁসানো হচ্ছে। মঙ্গলবার এ ব্যাপারে জেলা তৃণমূল সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, ‘‌সমস্ত বিষয়ে খোঁজ–খবর নেওয়া হচ্ছে। তবে আমার মনে হচ্ছে এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূল জড়িত নয়। বিজেপি এখন এলাকা দখল করতে মরিয়া। বিজেপি–ই এই ঘটনা ঘটিয়েছে।’‌

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিষদের পূর্ত্য কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি অভিযোগ করে বলেছেন, ‘সম্প্রতি স্থানীয় ব্লক তৃণমূল নেতা প্রভাত মাইতির স্ত্রী প্রয়াত হন। তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এখানে এসেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। এর পর সোমবার গভীর রাতে মানস ভুঁইয়ার অনুগামী অতনু সিং আর অনন্ত তুংয়ের নেতৃত্বে ২৫–৩০ জনের হার্মাদ বাহিনী প্রভাত মাইতি ও অন্য কয়েকজন তৃণমূলকর্মীর বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে। বোমাবাজি করেছে।’‌

অমূল্য মাইতির আরও অভিযোগ, ‘‌এই অতনু সিংয়ের বিরুদ্ধে আমি স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশ সুপারের কাছে বহুবার অভিযোগ জানিয়েছি। কিন্তু পুলিশ এর বিরুদ্ধে এখনও কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।’‌ তিনি আরও জানান, ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছে। ঘটনার কথা জানানো হয়েছে শুভেন্দু অধিকারী–সহ দলের অন্য নেতৃত্বকে। আমরা দেখছি দল কী ব্যবস্থা নেয়।’‌ অমূল্য মাইতি এদিন স্পষ্ট জানিয়েছেন, ‘‌এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি মানসবাবু যুক্ত। মানসবাবুই ইন্ধন দিয়ে এ সব করাচ্ছেন। কয়েকদিন আগে তিনি এক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে যারা তাঁকে সমর্থন করবে না তাদের ওষুধ তাঁর জানা আছে এবং তিনি সেই ওষুধ তাদের দেবেন। সেই ওষুধই কাল রাত থেকে প্রয়োগ করা শুরু করেছেন তিনি।’‌‌

বন্ধ করুন