বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > জলপাইগুড়ি টাউনে ট্রেন দাঁড়ায় না!‌‌ স্টেশনমাস্টারের ঘরে ‘মহাশ্মশান’ পোস্টার পড়ল
‘জলপাইগুড়ি টাউন স্টেশন মহাশ্মশান কার্যালয়’ পোস্টার

জলপাইগুড়ি টাউনে ট্রেন দাঁড়ায় না!‌‌ স্টেশনমাস্টারের ঘরে ‘মহাশ্মশান’ পোস্টার পড়ল

  • রোজ এখান দিয়ে একাধিক এক্সপ্রেস এবং মেইল ট্রেন যায়। কিন্তু দাঁড়ায় না একটিও। তাই স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে মাস্টারের কার্যালয়েরে নাম বদলে রাখা হল ‘জলপাইগুড়ি টাউন স্টেশন মহাশ্মশান কার্যালয়’!‌ যা নিয়ে আলোড়ন ছড়িয়েছে জলপাইগুড়িতে।

স্টেশন থাকলেও ট্রেন সেখানে দাঁড়ায় না বলে অভিযোগ। এই নিয়ে যাত্রীরা বহুবার অভিযোগ জানিয়েছিলেন স্টেশন মাস্টারকে। কিন্তু তাতে খুব একটা লাভ হয়নি। বরং স্টেশনে দাঁড়ায় না কোনও ট্রেনই। স্টেশনের নাম জলপাইগুড়ি টাউন। রোজ এখান দিয়ে একাধিক এক্সপ্রেস এবং মেইল ট্রেন যায়। কিন্তু দাঁড়ায় না একটিও। তাই স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে স্টেশন মাস্টারের কার্যালয়ের নাম বদলে রাখা হল ‘জলপাইগুড়ি টাউন স্টেশন মহাশ্মশান কার্যালয়’!‌ যা নিয়ে আলোড়ন ছড়িয়েছে জলপাইগুড়িতে।

ঠিক কী ঘটেছে জলপাইগুড়িতে?‌ আজ, সোমবার স্থানীয় যুব তৃণমূল জেলা সভাপতি সৈকত চট্টোপাধ্যায় এবং তাঁর অনুগামীরা মিছিল করে জলপাইগুড়ি টাউন স্টেশনে আসেন। সেখানে মানুষের অভাব–অভিযোগ শোনেন তিনি। তারপর স্টেশন মাস্টারের ঘরের দরজায় ‘মহাশ্মশান কার্যালয়’ পোস্টার সাঁটিয়ে দেন। অভিযোগ, স্টেশন থাকা সত্ত্বেও ট্রেন দাঁড়ায় না। তাই প্রতিবাদ হিসাবে এই পোস্টার লাগানো হল।

স্থানীয় সূত্রে খবর, জলপাইগুড়ি টাউন স্টেশনে কোনও এক্সপ্রেস এবং মেইল ট্রেন দাঁড়ায় না। ফলে খুব অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয়। এই নিয়ে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছিল স্টেশন মাস্টারের কাছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। এখানে বিজেপির সাংসদ থাকলেও কোনও লাভ হয়নি। বাধ্য হয়ে তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ে গিয়ে মানুষ সমস্যার কথা জানিয়েছেন। তার পরই পোস্টার পড়েছে।

ঠিক কী বলছেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি?‌ এই পোস্টার সাঁটিয়ে তিনি সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘‌এই স্টেশনে কোনও ট্রেন দাঁড়ায় না। এই স্টেশনের উপর দিয়ে মিতালি এক্সপ্রেস যায়। কিন্তু দাঁড়ায় না। তাই এই স্টেশন মহাশ্মশান ছাড়া আর কিছু নয়। আজ আমাদের কর্মসূচি ছিল রেল লাইনে নেমে হেঁটে হেঁটেই কলকাতা যাওয়ার। কিন্তু রেল পুলিশ আমাদের আটকে দেয়। তাই এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।’‌ স্টেশন মাস্টার নিতাই দাস বলেন, ‘‌বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।’‌

বন্ধ করুন