বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > হাড়োয়ায় ভেড়ির পাশ থেকে উদ্ধার হাত-মুখ বাঁধা আদিবাসী বধূ, ধর্ষণের অভিযোগ
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

হাড়োয়ায় ভেড়ির পাশ থেকে উদ্ধার হাত-মুখ বাঁধা আদিবাসী বধূ, ধর্ষণের অভিযোগ

  • বুধবার রাতে সেখানে তৃণমূলকর্মীদের বাড়ি ভাঙচুর করে বিজেপি কর্মীরা। এর পর থেকে নিখোঁজ হয়ে যান বিজেপি সমর্থক ওই মহিলা।

বিজেপি – তৃণমূল কোন্দলের জেরে এক আদিবাসী গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঘটনা উত্তর ২৪ পরগনার হাড়োয়া থানা এলাকার গোপালপুর গ্রামের। বৃহস্পতিবার সকালে গ্রামের ভেড়ির পাশ থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় গৃহবধূকে উদ্ধার করা হয়। হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। 

জানা গিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরে গোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মুন্সিঘেরি এলাকায় বিজেপি – তৃণমূলের সংঘর্ষ চলছিল। বুধবার রাতে সেখানে তৃণমূলকর্মীদের বাড়ি ভাঙচুর করে বিজেপি কর্মীরা। এর পর থেকে নিখোঁজ হয়ে যান বিজেপি সমর্থক ওই মহিলা। স্থানীয়দের দাবি, স্বামীকে খুঁজতে রাস্তায় বেরিয়েছিলেন তিনি। সেই সুযোগে তৃণমূলি দুষ্কৃতীরা তাঁকে অপহরণ করে ভেড়ির ধারে নিয়ে যায়। 

অভিযোগ, এর পর মন্টু কাহার, জগদ্বন্ধু দাস ও শুকদেব দাস নামে ৩ তৃণমূল সমর্থক মহিলার ওপর নির্যাতন চালায়। তার পর হাত পা মুখ বাঁধা অবস্থায় ভেড়ির বাঁধের ওপর ফেলে পালায় মহিলাকে। 

ঘটনায় স্থানীয়দের অভিযোগ, বুধবার রাতে পুলিশের সামনেই মহিলাকে অপহরণ করে তৃণমূলি দুষ্কৃতীরা। তার পরও বাধা দেয়নি পুলিশ। এই অভিযোগে বৃহস্পতিবার পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা। অভিযুক্তদের গ্রেফতারির আশ্বাসে বিক্ষোভ ওঠে। 

পুলিশের তরফে টুইট করে দাবি করা হয়েছে, মহিলার পিঠে কিছু আঁচড়ের দাগ রয়েছে। তবে যৌন নির্যাতনের কোনও চিহ্ন পাননি চিকিৎসকরা।

 

বন্ধ করুন