বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > ছবি, আধার কার্ড আনতেই ভুলে গিয়েছেন, NEET পরীক্ষার্থীর মুশকিল আসানে কলকাতা পুলিশ
NEET পরীক্ষার্থীরা। ইনসেটে, পার্ক স্ট্রিট থানার এএসআই হিমাদ্রি রায়।
NEET পরীক্ষার্থীরা। ইনসেটে, পার্ক স্ট্রিট থানার এএসআই হিমাদ্রি রায়।

ছবি, আধার কার্ড আনতেই ভুলে গিয়েছেন, NEET পরীক্ষার্থীর মুশকিল আসানে কলকাতা পুলিশ

  • হিমাদ্রিবাবুর কাছ থেকেই জানা যায়, রবিবারের দুপুরে পরপর দুটি সাইবার ক্যাফে বন্ধ ছিল। তৃতীয় আর একটি ক্যাফের মালিককে ফোন করে ডেকে এনে ক্যাফে খোলান তিনি।

‌তাদের ট্যাগলাইন #পাশেআছিসাধ্যমতো। বাস্তবেও তাই। কলকাতা পুলিশ ফের পাশে থাকল তাদের সাধ্য মতো। রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ছিল NEET পরীক্ষা। করোনা আবহে এত বড় মাপের এক পরীক্ষা যাতে সুষ্ঠুভাবে হয়, তার গুরুদায়িত্ব কাঁধে ছিল পশ্চিমবঙ্গের পুলিশের ওপর। রবিবার যখন NEET পরীক্ষা চলছে। তখন পার্ক স্ট্রিটের এক ঘটনায় বোঝা গেল কলকাতা পুলিশ তাদের পরীক্ষায় পেয়েছে ১০০‌–এ ১০০।

পরীক্ষা শুরু হতে হাতে সময় মাত্র ৪৫ মিনিট। কলকাতার পার্ক স্ট্রিটের পরীক্ষা কেন্দ্রে ততক্ষণে পৌঁছে গিয়েছেন হুগলির এক পরীক্ষার্থী। হঠাৎ তিনি খেয়াল করলেন, ভুল করে বাড়িতে ফেলে এসেছেন গুরুত্বপূর্ণ দুই নথি। তাঁর পাসপোর্ট সাইজের ছবি এবং আধার কার্ড। আর এই দুই ছাড়া কোনওমতেই তাঁেক পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে দেবেন না কর্তৃপক্ষ। তাও ওই পরীক্ষার্থী ওই কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা আধিকারিকদের অনেক অনুরোধ করছিলেন।

পরীক্ষার্থীর মরিয়া কাকুতিমিনতি শুনতে পান সেখানেই কর্মরত পার্ক স্ট্রিট থানার এএসআই হিমাদ্রি রায়। তিনি পরীক্ষার্থীর মুখেই ঘটনার কথা শোনেন। জানতে চান, তাঁর কাছে ছবি এবং আধার কার্ডের সফট কপি আছে কিনা। ভাগ্যিস ছিল। সেই সফট কপি নিজের ফোনে ট্রান্সফার করিয়ে বাইকে চড়ে বেরিয়ে পড়েন হিমাদ্রিবাবু। ফিরে আসেন আধঘণ্টার মধ্যে। সঙ্গে নিয়ে আসেন পাসপোর্ট সাইজের ছবি এবং আধার কার্ড দুটি রঙিন প্রিন্টআউট। পরে হিমাদ্রিবাবুর কাছ থেকেই জানা যায়, রবিবারের দুপুরে পরপর দুটি সাইবার ক্যাফে বন্ধ ছিল। তৃতীয় আর একটি ক্যাফের মালিককে ফোন করে ডেকে এনে ক্যাফে খোলান তিনি। দ্রুত প্রিন্টআউট বের করে আনেন। শেষমেশ নির্বিঘ্নেই NEET ‌পরীক্ষা দেন হুগলির ওই বাসিন্দা।

বন্ধ করুন