বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > 'ভুয়ো ঘটনা', লাখ টাকার বিনিময়ে পুরভোটের 'টিকিট বিক্রি'র অভিযোগ ওড়ালেন সুকান্ত
সুকান্ত মজুমদার (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)
সুকান্ত মজুমদার (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

'ভুয়ো ঘটনা', লাখ টাকার বিনিময়ে পুরভোটের 'টিকিট বিক্রি'র অভিযোগ ওড়ালেন সুকান্ত

  • অডিয়ো ক্লিপ প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদার দাবি করেন, 'পুরো বিষয়টাই ভ্রান্ত।'

পুরসভা নির্বাচনের আগে শাসক-বিরোধী তরজা শুরু হয়েছে। আর এরই মাঝে একটি হোয়্যাটসঅ্যাপ কলের অডিয়ো ক্লিপ সম্প্রতি ভাইপরাল হয়েছে। সেই অডিয়ো ক্লিপে পুরভোটের টিকিট বিক্রির প্রস্তাবের কথা শোনা যাচ্ছে এক 'বিজেপি নেতার' কাচ থেকে। আর তাতেই অস্বস্তি বেড়েছে গেরুয়া শিবিরের। যদিও বিজেপির তরফে এই অডিয়ো ক্লিপকে 'ষড়যন্ত্র' বলে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অডিয়ো ক্লিপ প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদার দাবি করেন, 'পুরো বিষয়টাই ভ্রান্ত।'

সুকান্ত অডিয়ো ক্লিপ প্রসঙ্গে এদিন যাবতীয় অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, 'পুরো ভুয়ো ঘটনা। একটা চক্রান্ত করে তৈরি করা। বিজেপির এতটাও খারাপ দিন আসেনি যে বিজেপিকে ১ লক্ষ টাকায় টিকিট বিক্রি করতে হবে। তারপর প্রার্থী নির্বাচন করতে হবে। এর সঙ্গে বিজেপির কোনও সংযোগ নেই। পুরোটাই ভ্রান্ত। তৈরি করা।'

উল্লেখ্য, সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি অডিয়ো ক্লিপ ভাইরাল হয়। সেই হোয়্যাটসঅ্যাপ কলের ক্লিপে এক ব্যক্তিকে বলতে শোনা গিয়েছে, 'এক লাখ টাকার বিনিময়ে মিলবে একটি আসন।' যে ব্যক্তি সেই প্রস্তাব দিচ্ছিলেন, তাঁর ফোন নম্বর বিজেপি নেতার নামে সেভ করা ছিল। রবিবার দুপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে টুইটারে এই ভিডিয়োটি (সত্যতা যাচাই করেনি হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা) পোস্ট করা হয়। হোয়্যাটসঅ্যাপ কলের কথোপকথন অনুযায়ী, যে ব্যক্তি ফোন করেছেন, তিনি টিকিট প্রত্যাশী। যদিও ওই ব্যক্তির পরিচয় জানা যায়নি। যে ব্যক্তির সঙ্গে তিনি কথা বলছেন, তাঁর নাম 'প্রীতম বিজেপি রক্তিম' হিসেবে সেভ করা আছে।

ওই ভাইরাল হোয়্যাটসঅ্যাপ কলে 'প্রীতম বিজেপি রক্তিম' নামে ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, রাজ্য বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের সঙ্গে বৈঠক আছে। তারপর ওই টিকিট প্রত্যাশীর থেকে বাজেট জানতে চান। জবাবে ওই টিকিট প্রত্যাশী বলেন, 'দেখ, আমরা ১২ জন প্রার্থী চাইছি। এবার সেখানটায় তোমরা কত কী বলছ, সেটা বল। আমি আগেই বলেছি যে সামর্থ্য নেই।' তার কিছুটা পর 'প্রীতম বিজেপি রক্তিম' নামে ওই ব্যক্তিকে বলতে শোনা যায়, '১২ টা হবে কিনা, জানি না। প্রার্থীপিছু এক লাখ টাকা করে অন্তত দাও।'

বন্ধ করুন