বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > প্রসেনজিতকে বিয়ে করেই অভিনয় থেকে সরে আসেন অর্পিতা, কারণ জানা গেল দিদি নম্বর ১-এ
অর্পিতা আর প্রসেনজিৎ।
অর্পিতা আর প্রসেনজিৎ।

প্রসেনজিতকে বিয়ে করেই অভিনয় থেকে সরে আসেন অর্পিতা, কারণ জানা গেল দিদি নম্বর ১-এ

  • ১৯৯৭ সালের সানন্দা তিলোত্তমা জেতেন অর্পিতা। আর সেখানে তাঁকে দেখেই কাজের অফার দেন প্রভাত রায়।

প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী অর্পিতা পাল চট্টোপাধ্যায়ের নতুন সিনেমা ‘আবার বছর ২০ পর’ নিয়ে চর্চা চলছে দর্শকদের মধ্যে। এই সিনেমায় তিনি কাজ করেছেন আবীর চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রনীল, তনুশ্রীদের সাথে। সম্প্রতি সিনেমার টিমের সাথে তিনি হাজির হয়েছিলেন ‘দিদি নম্বর ১’এ। আর সেখানেই জানালেন কেন বাংলার সুপারস্টার প্রসেনজিতকে বিয়ে করার পর লাইট ক্যামেরা অ্যাকশন থেকে দূরে রেখেছিলেন নিজেকে। 

তবে, কেন তিনি হঠাৎ সবকাজ ছেড়েছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে বিয়ের পর এই নিয়ে প্রশ্ন ছিল অনেকের মনেই। অনেকেই সেই সময় ভেবেছিলেন প্পরসেনজিতের ইচ্ছেতেই নিজেকে অভিনয় থেকে দূরে রেখেছেন তিনি। তবে দিদি নম্বর ১-র মঞ্চে কারণ হিসেবে অন্য যুক্তি দিলেন অর্পিতা।

প্রসেনজিৎ-পত্নী জানান, ‘কাজ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত একান্ত আমার ছিল। ২০০৩-এ আমার বিয়ে হয় এবং ২০০৫-এ ছেলে জন্ম নেয়। আমাকে অনেকেই বলে আমি একজন কমপ্লিট ওম্যান। আমি নিজের ইচ্ছেতেই নিজেকে দূরে রেখেছিলাম অভিনয় থেকে।’ সঙ্গে তিনি জানান, বিয়ের পর যখন তিনি হুট করে আর কাজ না করার কথা জানিয়েছিলেন তখনও তাঁর হাতে ছিল বেশ কিছু সিনেমা। আর সেই সময় সেইসব অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে এগিয়ে এসেছিলেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১৯৯৭ সালের সানন্দা তিলোত্তমা জেতেন অর্পিতা। সেইসময় একইসাথে মেনস্ট্রিম ছবি ও কমার্শিয়াল ছবিতে কাজ করতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। প্রথম কাজ প্রভাত রায়ের ছবিতে। এরপর উৎসব, পারমিতার একদিন, দেবা, পাগল প্রেমী, অসুখের মতো একাধিক ছবিতে প্রশংসিত হয়েছে তাঁর কাজ।

ছেলে মিশুকের ব্যাপারেও কথা বলেন তিনি। জানান, বাবা-মায়ের মতো অভিনয় নয়, বরং মিশুক চায় একজন পেশাদার গল্ফ প্লেয়ার হতে!

বন্ধ করুন