বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > দর্শকের ভালবাসা না সাজা! বিড়ম্বনায় টেলি নায়িকারা
কটাক্ষের শিকার কণীনিকা এবং শোলাঙ্কি।

দর্শকের ভালবাসা না সাজা! বিড়ম্বনায় টেলি নায়িকারা

  • এ বিষয়ে টেলিপাড়ার বক্তব্য, দর্শকদের রায় শিরোধার্য সব সময়েই। তবে কোনও অন্যায়কে কখনওই প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। টেলি অভিনেতাদের সাফ বক্তব্য, দর্শক মহলকে আরও পরিণত হতে হবে।

একজন শিল্পীর জীবনে সবথেকে বড় পাওনা তাঁর একনিষ্ঠ অনুরাগী‌ । মানুষের উন্মাদনার মধ্যেই লুকিয়ে তারকাদের আসল ঔজ্বল্য। তবে খ্যাতির বিড়ম্বনাও কম নয়। সেই কারণেই টেলিভিশনের পর্দা ছেড়ে ব্যক্তিগত জীবনের দ্বার খুললেই অনুরাগীদের স্ক্যানারে চলে আসে তাদের প্রিয় চরিত্ররা। সেখানে অভিনেতা অভিনেত্রীদের সাজপোশাক, বন্ধুবান্ধব, খাবারের মেনু সবকিছুর পর্যবেক্ষণ চলে খুঁটিয়ে। সেই পরীক্ষায় পাশ করলে প্রিয় শিল্পী বা অভিনেতার প্রতি দর্শকদের ভাল লাগা বাড়ে আর খারাপ লাগলে তা পরিণত হয় ট্রোলে।‌ সম্প্রতি নিজের একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েন অভিনেত্রী শোলাঙ্কি রায় ওরফে খড়ি।‌ মঙ্গলবার নিজের ফেসবুক পেজে গোপালপুর ট্রিপের ছবি শেয়ার করে কটুক্তির মুখে পড়লেন অভিনেত্রী কণীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায় পর্দার সহচরী। ছবিতে তাঁকে নিজের মেয়ে ও গার্ল গ্যাং-এর সঙ্গে সমুদ্রে সময় কাটাতে দেখা যাচ্ছে, সকলেই সুইমিং কস্টিউমে ছিলেন। কনীনিকার এই বন্ধুদের দলে ছিলেন অভিনেত্রী রিচা শর্মাও। কিন্তু ছবি দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই কমেন্ট বক্স ভরে ওঠে বিরূপ প্রতিক্রিয়ায়।

ফেসবুকে কণীনিকার মন্তব্য।
ফেসবুকে কণীনিকার মন্তব্য।

কেউ কেউ পর্দার সহচরীকে সুইমিং কস্টিউমে দেখে মেনে নিতে পারছেন না লিখেছেন, কেউ আবার বডি শেমিং করেছেন। তবে কণীনিকাও ছেড়ে দেবার পাত্রী নন। সপাটে জবাব দিয়েছেন এই বিরূপ মন্তব্যের।‌তিনি লিখেছেন, 'কী হাসি পাচ্ছে কিছু অশিক্ষিত মানুষ দেখতে, যারা লুকিয়ে সবকিছু করে...নাইটি আর সায়া পরে সমুদ্রে নামে...সভ্যতার মুখোশ পরে আমাদের মধ্যে ঘুরে বেড়ায়...এরাই হল তারা যারা কথা বলার সময় বুকের দিকে তাকিয়ে কথা বলে...শেম... সমুদ্র দেখলো না, দেখলো শুধু চেহারা!! অশিক্ষিত বলা ভুল...এরা হল সেই খরগোশ যারা সবকিছু করে আর ভাবে কেউ দেখছে না।' কয়েকদিন আগে মিঠাইখ্যাত অভিনেত্রী সৌমীতৃষার তাঁর অভিনেতা বন্ধুর সঙ্গে ছবি দেওয়া নিয়েও একঝাঁক কটুক্তি ধেয়ে এসেছিল‌। লক্ষ্য করে দেখা যাচ্ছে, নায়কদের তুলনায় নায়িকাদেরই বেশি এই ধরণের হেনস্তার শিকার হতে হচ্ছে । এ বিষয়ে টেলিপাড়ার বক্তব্য, দর্শকদের রায় শিরোধার্য সব সময়েই। তবে কোনও অন্যায়কে কখনওই প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। টেলি অভিনেতাদের সাফ বক্তব্য, দর্শক মহলকে আরও পরিণত হতে হবে। কারণ দর্শককে সম্মান দেওয়া যেমন শিল্পীর কর্তব্য, তেমনই শিল্পীকে সম্মান করা দর্শকদের কর্তব্য।

 

বন্ধ করুন