বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মেঘালয়ে অস্তিত্ব সংকটের মুখে কংগ্রেস, ১২ বিধায়কের পর দল ছাড়লেন আরও ২ তাবড় নেতা
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই

মেঘালয়ে অস্তিত্ব সংকটের মুখে কংগ্রেস, ১২ বিধায়কের পর দল ছাড়লেন আরও ২ তাবড় নেতা

  • তিন দশকের সম্পর্ক ছেদ করে কংগ্রেস ছাড়েন মেঘালয়ে দলের কার্যনির্বাহী সভাপতি জেমস লিংডোহ এবং প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ডঃ মানস দাশগুপ্ত।

মেঘালয়ে ক্রমেই অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়ছে কংগ্রেস। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমা সহ ১২ বিধায়ককে হারিয়ে প্রধান বিরোধী দলের তকমা ইতিমধ্যেই খুইয়েছে কংগ্রেস। আর এবার উত্তর-পূর্বের এই রাজ্যের আরও দুই তাবড় কংগ্রেস নেতা হাত শিবির ছেড়ে দলকে আরও বড় ধাক্কা দিলেন। মেঘালয় প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির কার্যনির্বাহী সভাপতি জেমস লিংডোহ এবং প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ডঃ মানস দাশগুপ্ত বুধবারই কংগ্রেস ছাড়ার ঘোষণা করেন। এই দুই দলত্যাগী কংগ্রেস নেতা তৃণমূলে নাম লেখাবেন কি না, সেদিকে নজর রাজনৈতিক মহলের।

কংগ্রেস ছাড়ার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে লিংডোহ বলেন, ‘১৯৮৮ সাল থেকে একটানা ৩৩ বছর আমি কংগ্রেসে ছিলাম। রাজ্যে কংগ্রেসকে শক্তিশালী করার পিছনে আমার বাবার অনেক অবদান ছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও ওরা আমাকে কার্যকরী সভাপতি পদ থেকে সরাতে দিল্লিতে চিঠি পাঠিয়েছে। রাজ্য কংগ্রেসের পতন শুরু হয়ে গিয়েছে।’

উল্লেখ্য, ডেবোরা সি মারাক এবং পিএন সাইয়েমকে জেমস লিংডোহর স্থলাভিষিক্ত করে দলের নতুন কার্যকরী সভাপতি হিসেবে নিয়োগ করে। অপরদিকে মানস দাশগুপ্তর জায়গায় সাধারণ সম্পাদক পদে আনা হয় বিলিকিড সাংমা, গ্রিথালসন আরেং, রজার বেনি এ সাংমা, ই ওসাকার ফিরা, ম্যানুয়েল বাডওয়ারকে। এরপরই মানস দাশগুপ্তও কংগ্রসের প্রাথমিক সদস্যপদ ছেড়ে ৩৬ বছরের সম্পর্কে ইতি টানার কথা জানিয়ে চিঠি লেখেন কেসি বেণুগোপালকে।

বন্ধ করুন