দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে তৃতীয়বার শপথ নেবেন কেজরি (ছবি সৌজন্য এপি)
দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে তৃতীয়বার শপথ নেবেন কেজরি (ছবি সৌজন্য এপি)

বদল হচ্ছে না মন্ত্রিসভায়, কেজরির শপথে থাকছেন শিক্ষক, পড়ুয়া, সাফাইকর্মীরা

  • শুধু ভিভিআইপিরা নন, আমজনতার জন্যও শপথগ্রহণের দরজা খুলে দিয়েছেন কেজরিওয়াল।

উইনিং কম্বিনেশন ভাঙতে চান না। ধরে রাখছেন একই টিম। গত মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়ে রবিবার বেলা ১২টা নাগাদ দিল্লির রামলীলা ময়দানে শপথ নিতে চলেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

আরও পড়ুন : Delhi Election Result 2020: সহজ জয় কেজরির, জোরদার টক্করের পর জিত AAP মন্ত্রীদের

মণীশ সিসোদিয়া, গোপাল রাই, কৈলাস গেহলট, ইমরান হুসেন, রাজেন্দ্র গৌতম ও সত্যেন্দ্র জৈনের মতো কেজরির গত মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্যরা এদিন শপথগ্রহণ করবেন। কেজরির বিশ্বস্ত সিসোদিয়া নিজের দফতর ধরে রাখবেন বলে খবর। তিনি জানান, মন্ত্রিসভায় মুখ বদল না করার মধ্যে দোষের কিছু নেই। সংবাদসংস্থা এএনআইকে তিনি বলেন, 'যদি অরবিন্দ কেজরিওয়ালজি মনে করেন যে এবারও একই মন্ত্রিসভা থাকবে, তাতে কোনও ভুল নেই। মন্ত্রিসভার কাজে খুশি মানুষ। কাজের ভিত্তিতে আমরা নির্বাচন জিতেছি।'

গত মন্ত্রিসভায় উপ-মুখ্যমন্ত্রিত্বের পাশাপাশি শিক্ষা, অর্থ, নারী ও শিশু কল্যাণ, পর্যটন-সহ একাধিক দফতরের দায়িত্বে ছিলেন সিসোদিয়া। তিনি বলেন, 'আমরা মানুষের ভরসা ও বিশ্বাস বজায় রাখব।'

আরও পড়ুন : কে জিতলেন-কে হারলেন, একনজরে হেভিওয়েট প্রার্থীদের রেজাল্ট

এদিকে, শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান ঘিরে সেজে উঠেছে রামলীলা ময়দান। দেড় লাখেরও বেশি মানুষ সেই অনুষ্ঠানে হাজির থাকবেন বলে খবর। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, দিল্লির সাত বিজেপি সাংসদ ও বিজেপির আট সদ্য নির্বাচত বিধায়ককেও। তবে মোদী আদৌও আসবেন কিনা, তা নিয়ে জল্পনা চলছে।

আরও পড়ুন : কীসের ইঙ্গিত? শপথগ্রহণে মোদীকে ডাকলেন কেজরিওয়াল, ব্রাত্য মমতা সহ অন্যান্যরা

শুধু ভিভিআইপিরা নন, আমজনতার জন্যও শপথগ্রহণের দরজা খুলে দিয়েছেন কেজরিওয়াল। 'দিল্লি কে নির্মাতা' ব্যানারে ৫০ জন সাধারণ মানুষ শপথের মঞ্চে থাকবেন। এছাড়াও শিক্ষক, বাস কন্ডাক্টর, বাস চালক, কৃষক, মহিলা সুরক্ষায় মোতায়েন মার্শাল, অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, পড়ুয়া, অটো চালক, সাফাইকর্মী, চিকিৎসকদের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সেজন্য রামলীলা ময়দানে কড়া নিরাপত্তার বন্দোবস্ত করা হয়েছে। দিল্লি পুলিশ-সহ আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। কড়া নজরদারি চালাচ্ছেন ৫,০০০ জনের বেশি পুলিশ ও জওয়ান। সিসিটিভির মাধ্যমে নজরদারি চলছে। পাশাপাশি ৩,০০০ আপ কর্মী-সমর্থকও ভিড় নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করছেন।

আরও পড়ুন : তাঁর হাত ধরে দিল্লির স্কুলের আমূল সংস্কার, জিতলেন ভোটে

বন্ধ করুন