বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কয়লার টাকা বকেয়া, ঝাঁপ বন্ধ বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী চারটি ইউনিটের, ভয়াবহ সংকট
রাজস্থানে একাধিক বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী ইউনিট কয়লা সংকটে ভুগছে  (প্রতীকী ছবি)
রাজস্থানে একাধিক বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী ইউনিট কয়লা সংকটে ভুগছে  (প্রতীকী ছবি)

কয়লার টাকা বকেয়া, ঝাঁপ বন্ধ বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী চারটি ইউনিটের, ভয়াবহ সংকট

  • দফতর সূত্রে খবর, এবার রাজস্থানে বর্ষাও ভালো করে হয়নি। প্রচণ্ড গরমের জন্য বিদ্যুতের চাহিদাও বেড়েছে।

রাজস্থানের বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী চারটি ইউনিটকে বন্ধ করে দেওয়া হল। বাকি ইউনিটগুলিতে মাত্র ৩-৪দিনের স্টক রয়েছে কয়লার। সূত্রের খবর রাজস্থান বিদ্যুৎ উৎপাদন নিগম লিমিটেড ভয়াবহ আর্থিক সংকটের মধ্যে পড়েছে। এক আধিকারিক জানিয়েছেন,কয়লা কোম্পানি নিগমের কাছ থেকে প্রচুর টাকা পায়। সেই বকেয়া টাকা না মেটানোয় তারা কয়লা সাপ্লাই বন্ধ করে দিয়েছে। এদিকে এর জেরে কালিসিন্ধ,সুরাটগড়ের ইউনিট গত ১০ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে। 

 

এদিকে সূত্রের খবর, চলতি বছরের ১লা অগস্ট দেখা যাচ্ছে একটি নির্দিষ্ট কয়লা কোম্পানির কাছে রাজস্থান সরকারের ৪০৯ কোটি বকেয়া রয়েছে। তবে ১৩৭৫ কোটি টাকা মেটানো হয়েছে আগেই। নর্দার্ন কোলফিল্ড পাবে ৬৮ কোটি টাকা, ৩২৫ কোটি টাকা মেটানো হয়েছে। সাউথ ইস্টার্ন কোলফিল্ড পাবে  ৪৪৪.৬ কোটি টাকা। ৫৩০ কোটি টাকা মেটানো হয়েছে। আসলে দেখা যাচ্ছে সব মিলিয়ে কয়লা কোম্পানিগুলি রাজস্থান সরকারের কাছ থেকে ৯০০ কোটি টাকারও বেশি পাবে। তবে সংকটজনক পরিস্থিতি বুঝতে পেরে সরকার ইতিমধ্যেই ৯০০ কোটি টাকা দিচ্ছে। আরও হাজার কোটি টাকা বকেয়া মেটানোর জন্য দেওয়া হচ্ছে। 

এদিকে দফতর সূত্রে খবর, এবার বর্ষাও ভালো করে হয়নি। প্রচণ্ড গরমের জন্য বিদ্যুতের চাহিদাও বেড়েছে। রাজস্থানের এনার্জি মিনিস্টার বিডি কাল্লা জানিয়েছেন, সপ্তাহ খানেকের মধ্যে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা হচ্ছে। নটি রেক কয়লা পাঠিয়ে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা হচ্ছে। রেলপথে ও সড়কপথে কয়লা পাঠানো হচ্ছে। তাঁর দাবি, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশী জানিয়েছেন, কয়লা খনিগুলিও জলে ভর্তি হয়ে গিয়েছে। সেজন্যই সমস্যা হয়েছিল। এদিকে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের দাবি, সরকারের অব্যবস্থার জন্যই এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। 

 

বন্ধ করুন