প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর ডাকে রবিবার দেশজুড়ে চলছে জনতা কার্ফু। স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে মানুষ ঘরে আছেন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আটকানোর জন্য। কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারিকা, কলকাতা থেকে দিল্লি, দেশ আজ এক করোনার থাবাকে রোখার জন্য। অন্যদিকে করোনার থাবায় আরও তিনজন মারা গেলেন দেশে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল সাত। আজ সকাল থেকে ২৬টি নতুন কেসের সন্ধান মিলেছে।

পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। আইসিএমআরের সর্বশেষ বুলেটিন অনুযায়ী, দেশে ৩৪১ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। এরমধ্য সাতজন মারা গিয়েছেন। ২৩ জন আপাতত সুস্থ। একজন বিদেশে চলে গিয়েছেন। ৩৪১ করোনা কেসের মধ্যে ৪১ জন বিদেশি।

সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রের। ২ জন মৃত সহ ৭৪ জন অসুস্থ। রাজধানী মুম্বইতে আক্রান্ত ২৫।অন্যদিকে কেরালায় অসুস্থ ৫২। দিল্লিতে ২৭, উত্তরপ্রদেশে ২৫। পশ্চিমবঙ্গে আক্রান্তের সংখ্যা চার।

মুম্বইয়ে ৬৩ বছরের ব্যক্তি ১৯ তারিখ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। রবিবার সকালে মারা যান তিনি। একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। হাই ব্লাড প্রেসার ছাড়াও তাঁর ডায়বেটিস ও হার্টের সমস্যা ছিল।

বিহারে মারা গিয়েছেন ৩৮ বছরের যুবক। কাতার থেকে ফিরেছিলেন তিনি। এদিকে, গুজরাতের সুরাত হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর বয়স ৬৯। তিনি একাধিক রোগে ভুগছিলেন। পাশাপাশি ভদোদরা হাসপাতালে ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। তিনিও একাধিক রোগে ভুগছিলেন।

ভারতে যেটা সবচেয়ে চিন্তার বিষয় এমন অনেক কেস আসছে, যেখানে রোগী বিদেশেও যাননি, কোনও করোনা রোগীর সংস্পর্শেও আসেননি। তার থেকেই চিন্তা বাড়ছে, তাহলে কী শুরু হয়ে গিয়েছে করোনার তৃতীয় স্টেজ। পশ্চিমবঙ্গের চতুর্থ রোগী, ৫৭ বছরের ভদ্রলোক বাইরে যাননি। তার কী করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হল, সেই নিয়ে চিন্তিত প্রশাসন।

ট্রেনে ছড়াচ্ছে সংক্রমণ, এই ভয়ে আপাতত রেলযাত্রা করতে মানা করছে ভারতীয় রেল। প্রধানমন্ত্রী মোদীও আর্জি জানিয়েছেন, যে যেখানে আছেন, থাকুন। নিজেদের গ্রামে ফিরে যাবেন না, তাতে আরও সংক্রমণ বাড়বে।

রাজস্থান, ওড়িষ্যা সহ বেশ কিছু রাজ্য কার্যত লকডাউনে চলে গিয়েছে। বর্ডার সিল করে দিয়েছে অনেক রাজ্য। মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রকে আর্জি জানিয়েছেন যে আপাতত কোনও ট্রেন রাজ্যে না পাঠাতে। রাজ্যে ৩১ মার্চ অবধি কার্যত বন্ধ সমস্ত জমায়েতের স্থান। চেষ্টা করোনাকে আটকানোর। অনেকেই মনে করছেন আজকের কার্ফু হয়তো নেহাতই ঝলক কীভাবে ভবিষ্যতে থাকতে হবে, তার বিষয়ে।

বন্ধ করুন