বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Bullet train update- বুলেট ট্রেন প্রকল্পের কাজ কতদূর, ছবি দিয়ে জানাল রেল

Bullet train update- বুলেট ট্রেন প্রকল্পের কাজ কতদূর, ছবি দিয়ে জানাল রেল

গুজরাটে সদ্য নির্মিত তিনটি সেতু  (Twitter)

মুম্বই-আহমেদাবাদ হাইস্পিড রেল প্রকল্পের কাজ কতদূর? প্রমাণ সহ টুইট কর রেল কর্তৃপক্ষ। গুজরাটে তিনটি নদী সেতু বানানোর ছবি পোস্ট করে গত কয়েক মাসে কাজের অগ্রগতি জানিয়েছে তারা। আশা করা হচ্ছে ২০২৬ সালের মধ্যে এই রুটে বুলেট ট্রেন ছুটবে হাওয়ার বেগে। 

 

বুলেট ট্রেন শিলান্যাসের পর থেকেই তা ঘিরে নানান গুঞ্জন চলেছে আমজনতার মধ্যে। এবার আর প্রতিশ্রুতি নয়, একেবারে প্রমাণ নিয়েই হাজির রেল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে দেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ও অত্যাধুনিক প্রকল্প, মুম্বই-আহমেদাবাদ হাইস্পিড রেল করিডর নির্মাণের আপডেট টুইট করল ভারতীয় রেলওয়ে। এই মুম্বই-আহমেদাবাদ হাইস্পিড রেল প্রকল্পটিকে মানুষ সাধারণ ভাবে বুলেট ট্রেন প্রকল্প নামেই চেনে। রেল কর্তৃপক্ষ এই প্রসঙ্গে গুজরাটের নভসারিতে নদীর ওপর তিনটি নির্মিত সেতুর ছবি পোস্ট করে লিখেছে, ‘আগে ও এখন’। এই তিনটি সেতুই গত মাসে নির্মিত হয়েছে। ন্যাশনাল হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন লিমিটেড (এনএইচএসআরসিএল) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বিলিমোরা এবং সুরাট হাই-স্পিড রেলওয়ে (এইচএসআর) স্টেশনের মধ্যে তিনটি সেতু তৈরি করা হয়েছে।

টুইট করা কোলাজের প্রথম ছবিতে দেখা যাচ্ছে, অম্বিকা নদীর ওপর একটি সেতু। ছবিগুলিতে জানুয়ারির শুরু থেকে জুনের শেষের দিক পর্যন্ত প্রায় ছয় মাসে সেতুটির নির্মাণকাজ দেখানো হয়েছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের মতে, এই সেতুটি ২০০ মিটার দীর্ঘ। সেতুটি নির্মাণে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ ছিল যেমন। নদীর তীরের খাড়া ঢাল এবং মাটির পাথুরে স্তরে ভূগর্ভস্থ পাইলিং করে কাজ এগিয়েছে। দ্বিতীয় ছবিতে দেখা যাচ্ছে পূর্ণা নদীর ওপর নির্মিত সেতুটি। ৩৬০ মিটার দৈর্ঘ্যযুক্ত এই সেতুটিই নির্মিত তিনটি সেতুর মধ্যে দীর্ঘতম। ‘উচ্চ জোয়ারের সময় নদীর জলস্তর ৫ থেকে ৬ মিটার বাড়তে থাকায় নির্মাণের কাজটি বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল’ জানিয়েছে এনএইচএসআরসিএল।

শেষ ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে মিনঢোলা নদীর ওপর নির্মিত ২৪০ মিটার দৈর্ঘ্যযুক্ত সেতুটি ।  আরব সাগরের নিকটবর্তী হওয়ায় এটি নির্মাণের সময় উচ্চ এবং নিম্ন জোয়ারের জল নির্মাণে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছিল। এনএইচএসআরসিএল-এর হিসাব অনুসারে, ২৪টি সেতুর মধ্যে ৪টি গত ছয় মাসে নির্মিত হয়েছে। মুম্বই-আহমেদাবাদ হাই-স্পীড রেল (MAHSR) করিডোরে ২৪টি নদীসেতু রয়েছে, যার মধ্যে ২০টি গুজরাটে এবং ৪টি মহারাষ্ট্রে। গুজরাটের দীর্ঘতম নদী সেতুটি ১.২ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং এটি নর্মদা নদীর উপর নির্মিত হচ্ছে। অন্যদিকে মহারাষ্ট্রের দীর্ঘতম সেতুটি বৈতরনা নদীর উপর নির্মিত হচ্ছে, যার দৈর্ঘ্য ২.২৮ কিলোমিটার।

গুজরাটের ৮টি এইচএসআর স্টেশন যেমন- ভাপি, বিলিমোরা, সুরাট, ভরুচ, ভাদোদরা, আনন্দ, আহমেদাবাদ এবং সবরমতি ইত্যাদি স্টেশনের নির্মাণ কাজ বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। প্রতিক্ষেত্রেই কাজ চলছে জোর কদমে। প্রসঙ্গত, অনেক ক’টি ধাপে চালু হলে বুলেট ট্রেন প্রকল্প। প্রাথমিক ভাবে বিশেষজ্ঞদের অনুমান, বুলেট ট্রেন প্রকল্পের প্রথম পর্যায় ২০২৬ সালের মধ্যে চালু করা যাবে।

ঘরে বাইরে খবর

Latest News

বাংলাদেশের ছাত্র আন্দোলন হাইজ্যাক করেছে জামাত? সমন্বয়ককে বহিষ্কার ঘিরে গুঞ্জন তিন ভাগে গড়ে উঠছে একুশে জুলাইয়ের মঞ্চ, পৃথক র‌্যাম্পের সঙ্গে থাকছে নানা ব্যবস্থা এস বসুরায় অ্যান্ড কোম্পানির ১ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ED আদ্যিকালের মতো হাতে লেখা বোর্ডিং পাস, বিমানযাত্রীর পোস্ট ভাইরাল, জবাব ইন্ডিগোর হার্দিক-নাতাশার পর অভিষেক-ঐশ্বর্যর পালা? ডিভোর্স জল্পনা নিয়ে সামনে এল বড় আপটেড ভারতীয় দলের কোচ হওয়ার পর, চন্দ্রকান্ত পণ্ডিতের সঙ্গে কি কথা হয় গৌতম গম্ভীরের? 'রাম এঁটো খেয়েছিল তো আমি…' নিজেকে ঈশ্বরের সঙ্গে তুলনা করে কটাক্ষের মুখে সোনু KKR-এর ২ কোচ গম্ভীরের সঙ্গে যোগ দিতে চলেছেন, দ্রাবিড় জমানার ফিল্ডিং কোচও থাকছেন সম্প্রচারের মাঝে 'বন্ধ' বাংলাদেশি খবরের চ্যানেলে, ওপার বাংলা যেন 'অন্ধকার দ্বীপ' গুরু পূর্ণিমায় এই ৩টি কাজ করুন, দেবী লক্ষ্মীর কৃপায় অর্থের বৃষ্টি হবে

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.