লকডাউন শিথিলের পর কলকাতার রাস্তায় গাড়ির আনাগোনা (ছবি সৌজন্য এএনআই)
লকডাউন শিথিলের পর কলকাতার রাস্তায় গাড়ির আনাগোনা (ছবি সৌজন্য এএনআই)

Lockdown 2.0: খোলা যাবে বই-পাখার দোকান, আর কোন কোন ক্ষেত্রকে লকডাউন থেকে ছাড় দিল কেন্দ্র?

নয়া নির্দেশিকায় একাধিক ক্ষেত্রকে ছাড় দিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

লকডাউনের আওতা থেকে আরও কয়েকটি ক্ষেত্রকে ছাড় দিল কেন্দ্রীয় সরকার। তা নিয়ে মঙ্গলবার দেশের সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে নির্দেশিকা পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

আরও পড়ুন : New Tax Rate vs Old Tax Rate- স্বনিযুক্তদের উপার্জনের ওপর কোন নিয়মে TDS কাটবে?

সেই নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, পড়ুয়াদের শিক্ষামূলক বইয়ের দোকান খোলা থাকবে। বৈদ্যুতিন পাখার দোকানও লকডাউনের আওতার বাইরে থাকছে। পাশাপাশি, কৃষিক্ষেত্র ও হর্টিকালচারের আরও কয়েকটি ক্ষেত্রকে লকডাউন থেকে ছাড় দেওয়া হয়েছে। নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, সমস্ত কৃষিকাজ ও হর্টিকালচার সংক্রান্ত কাজের ক্ষেত্রে আমদানি বা রফতানির জন্য প্যাকিং হাউস (যেখানে ফল বা শস্য প্যাক করা হয়), বীজ ও হর্টিকালচার সামগ্রীর পরীক্ষা ও তা দেখভালের বিভিন্ন কেন্দ্র লকডাউনের আওতার বাইরে থাকছে।

আরও পড়ুন : ITR form revised- করোনার জেরে পিছিয়েছে সময়সীমা, নয়া আইটিআর ফর্ম দেবে CBDT

পাশাপাশি, কৃষিকাজ ও হর্টিকালচার সংক্রান্ত যাবতীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কাজ জারি রাখা যাবে। রাজ্যের মধ্যে মাছি চাষের কোনও দ্রব্য, রোপণের সামগ্রী ও মৌমাছি কলোনির পরিবহন চালু থাকবে। ভিনরাজ্যেও সেগুলি নিয়ে যাওয়া যাবে। বনজ বৃক্ষরোপণ ও সিলভিকালচার সংক্রান্ত কাজেও ছাড় দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন : Lockdown 2.0: কেন্দ্রীয় দলকে সহযোগিতার আশ্বাস রাজ্যের, স্বাগত জানাল অমিত শাহের মন্ত্রক

এছাড়াও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, আগে থেকেই লকডাউনের আওতার বাইরে রয়েছে প্রবীণ নাগরিকদের সাহায্য প্রদানকারীদের বেডসাইড অ্য়াটেন্ডেন্ট ও কেয়ারগিভার-সহ সামাজিক ক্ষেত্র। তবে কেয়ারগিভারদের সংশ্লিষ্ট প্রবীণের বাড়িতেই থাকতে হবে। প্রিপেড মোবাইলের রিচার্জের মতো জনগণের প্রয়োজনের কাজে ছাড় রয়েছে। পাশাপাশি শহরাঞ্চলে পাউরুটি, দুগ্ধজাত প্রক্রিয়াকরণ, ময়দা মিল, ডাল মিল-সহ খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পও লকডাউনের আওতার বাইরে রয়েছে।

বন্ধ করুন