বেশ কিছু দিন যাবৎ রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের বাইরে বসবাস করছেন কিম।
বেশ কিছু দিন যাবৎ রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের বাইরে বসবাস করছেন কিম।

দিব্যি আছেন কিম জং উন, উপগ্রহ চিত্রের প্রমাণে ধোপে টিকছে না অসুস্থতার গুজব

  • কিমের বাড়ির চত্বরে গত এক সপ্তাহ ধরে দাঁড়িয়ে রয়েছে তাঁর ব্যক্তিগত ট্রেন। উপগ্রহ চিত্রে উত্তর কোরিয়ায় কোনও অস্বাভাবিকতা দেখা যায়নি।

উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনের গুরুতর অসুস্থতার খবর নিয়ে সংশয় উড়িয়ে দিল উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়া ছবি।

সাম্প্রতিক উপগ্রহ চিত্রে দেখা গিয়েছে, দেশের পূর্ব উপকূলে কিমের বাড়ির চত্বরে গত এক সপ্তাহ ধরে দাঁড়িয়ে রয়েছে তাঁর ব্যক্তিগত ট্রেন। বাড়ির চারপাশে চোখে পড়েনি কোনও অস্বাভাকিতাও। এই তথ্য জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া সম্পর্কে খোঁজ রাখা ওয়েবসাইট ‘৩৮ নর্থ’।

শনিবার ওই ওয়েবসাইট দাবি করেছে, কিমের ওনসান প্রাসাদ সংলগ্ন লিডারশিপ রেলস্টেশনে গত ২১ এপ্রিল থেকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে তাঁর ব্যক্তিগত ট্রেনটি। ২৫০ মিটার লম্বা ট্রেনটি গত ১৫ এপ্রিল এই স্টেশনে দেখা না গেলেও ২১ ও ২৩ এপ্রিল তাকে সেখানে অপেক্ষা করতে দেখা গিয়েছে।

২১ ও ২৩ এপ্রিল প্রাসাদ সংলগ্ন লিডারশিপ রেলস্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে কিম জং উনের নিজস্ব ট্রেন। ম্যাক্সার টেকনোলজির থেকে ছবিটি সংগ্রহ করেছে এপি।
২১ ও ২৩ এপ্রিল প্রাসাদ সংলগ্ন লিডারশিপ রেলস্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে কিম জং উনের নিজস্ব ট্রেন। ম্যাক্সার টেকনোলজির থেকে ছবিটি সংগ্রহ করেছে এপি। (AP)

ওই ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, বেশ কিছু দিন যাবৎ রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের বাইরে বসবাস করছেন কিম। লোকচক্ষুর আড়ালে থাকার ফলেই তাঁর শারীরিক সুস্থতা সম্পর্কে নানান গুজব রটছে। কিমের অসুস্থ হওয়ার দাবি উড়িয়ে দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াও।

গুজবের সূত্রপাত গত ১৫ এপ্রিল কিমের ঠাকুরদা তথা উত্তর কোরিয়ার প্রাক্তন শাসক দ্বিতীয় কিম সাংয়ের ১০৮তম জন্মবার্ষিকীতে তাঁর অনুপস্থিতি। শাসন ক্ষমতায় আসার পরে এই অনুষ্ঠানে কখনও গরহাজির থাকেননি কিম।

এর পরেই কিম জং উনের অসুস্থতা নিয়ে গুজবের পারদ চড়তে শুরু করে। শোনা যায়, দুরূহ হার্টের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে তাঁর জটিল অস্ত্রোপচার হয়েছে এবং তার পরে তাঁর স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতি ঘটেছে। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি মারা গিয়েছেন বলেও খবর রটতে শুরু করেছে।

তবে ৩৮ নর্থ ওয়েবসাইটের দাবি, জাতীয় নেতা প্রয়াত হলে যেমন অস্থিরতা দেখা যায়, উত্তর কোরিয়ায় সে রকম কোনও প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি সাম্প্রতিক উপগ্রহ চিত্রে।

তা ছাড়া সিওলের দাবি, কোনও কারণে কিমের আকস্মিক প্রয়াণ ঘটলেও দেশ শাসনের লাগাম ধরতে পারেন তাঁর ক্ষমতালোভী বোন কিম উ্য জং। যদিও তার জেরে উত্তর কোরিয়ার রাজনৈতিক পরিস্থিতি কী দাঁড়াবে, সে সম্পর্কে এখনই কোনও মন্তব্য করতে নারাজ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

বন্ধ করুন