বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > প্যারাসেলিং করতে গিয়ে বিপত্তির মুখে দম্পত্তি, মাঝ-আকাশে ছিঁড়ল প্যারাশুটের কর্ড!
ছবি : টুইটার  (Twitter)
ছবি : টুইটার  (Twitter)

প্যারাসেলিং করতে গিয়ে বিপত্তির মুখে দম্পত্তি, মাঝ-আকাশে ছিঁড়ল প্যারাশুটের কর্ড!

  • ভিডিয়ো করছিলেন অজিতের ভাই রাকেশ কাথাদ। আতঙ্কের রেশ এখনও কাঁটেনি তাঁর। তিনি বলেন, 'হঠাত্ই দেখলাম অনেক উঁচুতে থাকা অবস্থায় দড়ি ছিঁড়ে গেল। মাঝ সমুদ্রের দিকে পড়ছে দাদা-বৌদি।'

মাঝ আকাশ। মাঝ সমুদ্র। হঠাত্ই অ্যাডভেঞ্চারের আনন্দ পরিণত হল আতঙ্কে। দিউয়ের উপকূলে প্যারাসেলিংয়ের সময়ে হঠাত্ই ছিঁড়ে গেল বোটে লাগানো কর্ড। অনিয়ন্ত্রিতভাবে ভেসে গেলেন এক পর্যটক দম্পতি। ঘটনার ভিডিয়ো ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

রবিবার দিউয়ের নাগোয়া সমুদ্র সৈকতে প্যারাসেল করছিলেন গুজরাতের অজিত কাথাদ এবং তাঁর স্ত্রী সরলা কাথাদ। সেই সময়েই মাঝ আকাশে ছিঁড়ে যায় প্যারাশুটের সঙ্গে বোটের সংযোগকারী দড়ি। সমুদ্রের দিকে পড়তে থাকেন তাঁরা। সৌভাগ্যবশত কিছুটা দূরে সমুদ্রের জলেই পড়েন তাঁরা। তবে অত উঁচু থেকে সমুদ্রের জলে পড়াও যে বিপজ্জনক তা বলাই বাহুল্য। লাইফভেস্টও পরেছিলেন তাঁরা।

মোটরবোট ও প্যারাশুটটি পামস অ্যাডভেঞ্চার মোটোর্স্পোর্টস নামে এক সংস্থার। সেই সংস্থারই লাইফগার্ড উদ্ধার করেন মাঝসমুদ্রে ভেসে থাকা ওই দম্পতিকে।

অজিত জানান, এমন ঘটনায় অত্যন্ত ভয় পেয়ে যান তাঁর স্ত্রী। দু'জনেই বেশ কিছুক্ষণ কথা বলতে পারছিলেন না। ভিডিয়ো করছিলেন অজিতের ভাই রাকেশ কাথাদ। আতঙ্কের রেশ এখনও কাটেনি তাঁর। তিনি বলেন, 'হঠাত্ই দেখলাম অনেক উঁচুতে থাকা অবস্থায় দড়ি ছিঁড়ে গেল। মাঝ সমুদ্রের দিকে পড়ছে দাদা-বৌদি।'

রাকেশ আরও বলেন, 'কর্ডটা ছেঁড়া, পুরনো লাগছিল আগেই। তাই আমি অপারেটরদের বলেছিলাম সেটা। তাঁরা সেই সময়ে জানান, কোনও সমস্যা হবে না। ওই ছেঁড়া অংশটা আকাশ পর্যন্ত যাবেও না।' পামস অ্যাডভেঞ্চার মোটোর্স্পোর্টসের মালিক মোহন লক্ষ্মণের দাবি, এই প্রথম এমন দুর্ঘটনা ঘটল। গত ৩ বছর ধরে কখনও এমন হয়নি। রবিবার হাওয়া অত্যন্ত বেশি থাকায় এমনটা হয়েছে। তাঁর কর্মীরাও প্রশিক্ষিত বলে দাবি করেন তিনি।

দেখুন ভিডিয়ো :

সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই সংস্থার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপের দাবি করেছেন। তবে অজিত ও তাঁর স্ত্রী পুলিশ স্টেশনে গিয়েও কোনও অভিযোগ দায়ের করেননি। 'আমরা থানায় গিয়েছিলাম। কিন্তু তখন মানসিকভাবে এতটা ঘাবড়ে ছিলাম যে এসব ঝামেলায় আর জড়াতে চাইনি। তাই অভিযোগ দায়ের না করেই চলে এসেছি,' জানান তিনি।

প্রশাসনের নিজের উদ্যোগেই সমস্ত অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসের সুরক্ষার মান যাচাই প্রয়োজন, দাবি করছেন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা।

বন্ধ করুন