বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘অনেকে বলেছে আমার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ;’ অশ্বিনের দলে ফেরার লড়াইয়ের গল্প
অশ্বিনের দলে ফেরার লড়াইয়ের গল্প (ছবি:পিটিআই) (PTI)
অশ্বিনের দলে ফেরার লড়াইয়ের গল্প (ছবি:পিটিআই) (PTI)

‘অনেকে বলেছে আমার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ;’ অশ্বিনের দলে ফেরার লড়াইয়ের গল্প

  • অশ্বিন জানান, খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে তিনি যখন যাচ্ছিলেন, তখন চেন্নাইতে একটি ক্লাব ম্যাচ খেলার মুহূর্তে তাকে নানা বিবৃতি শুনতে হয়েছিল। সেই সময়ে অনেকেই বলেছিলেন তিনি শেষ হয়ে গিয়েছেন।

চার বছর পর ওয়ানডে দলে ফিরেছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের তারকা অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ১৯ জানুয়ারি থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে শুরু হতে চলা তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজের জন্য তিনি ভারতীয় দলে নির্বাচিত হয়েছেন। এই বছর টেস্টে অশ্বিন দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছেন। তার ভিত্তিতেই তিনি ওয়ানডে দলে জায়গা করে নিয়েছেন। যাইহোক, গত কয়েক বছরে, যখন তিনি ফিটনেস এবং ইনজুরি সমস্যার সঙ্গে লড়াই করছিলেন, তখন তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার টাল মাটাল অবস্থা দিয়ে যাচ্ছিল। সেই সময় অনেকেই তার কাছ থেকে বিভিন্ন কটূক্তি করেছিলেন। অশ্বিন জানান, খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে তিনি যখন যাচ্ছিলেন, তখন চেন্নাইতে একটি ক্লাব ম্যাচ খেলার মুহূর্তে তাকে নানা বিবৃতি শুনতে হয়েছিল। সেই সময়ে অনেকেই বলেছিলেন তিনি শেষ হয়ে গিয়েছেন।

ব্যাকস্টেজ উইথ বরিয়া শো-তে অশ্বিন বলেছেন, ‘একজন খেলোয়াড় হিসেবে আপনি সমালোচনায় ঘিরে রয়েছেন। এর উপরে ফিরে আসতে হবে। আমি যখন চেন্নাইয়ে ম্যাচ খেলতে যেতাম তখন আমি আমার পা শক্ত করে রাখতাম। তারপর আমি অনেক লোকের কথা শুনেছি, যারা বলেছিলেন যে এই লোকটি এসেছে এবং খেলছে কারণ তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ। এটা সম্পূর্ণ শেষ। আমি এসব শুনে অভ্যস্ত ছিলাম। কখনও হাসতাম আবার কখনও দুঃখ হতো।’

৩৫ বছর বয়সী অশ্বিন ২০২১ সালে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হিসাবে শেষ করেছিলেন। তিনি ৯ টেস্ট ম্যাচে ১৬.৬৪ গড়ে ৫৪ টি উইকেট নিয়েছেন। এই বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তিনি ভারতীয় দলের অংশ ছিলেন, যেখানে তিনি চার বছর পর সীমিত ওভারের দলে ফিরেছিলেন। অশ্বিন স্বীকার করেছেন যে তিনি ফিটনেসের প্রতি অনেক মনোযোগ দিয়েছেন এবং ফিরে আসার জন্য অনেক কাজ করেছেন। অশ্বিন বলেন, ‘অতিমারীতে প্রতিদিন উঠে নিজেকে বলতাম- মানুষ কি ভাবছে তাতে কিছু যায় আসে না। কিন্তু এই ক্রিকেটার, কিছু একটা বাকি আছে। আর তাই আমি ছাড়তে চাই না। এটি একটি কঠিন প্রতিযোগিতা ছিল। আমি দিনে দুবার প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আমি অবশ্যই আরও ভালো খাওয়া শুরু করেছি, আরও ভালো প্রশিক্ষণ করেছি এবং আমার মন আরও ইতিবাচক হয়েছিল।’

বন্ধ করুন