বাংলা নিউজ > ময়দান > PAK vs NZ: স্বামীর শতরানের পর মাঠেই কাঁদলেন সরফরাজের স্ত্রী

PAK vs NZ: স্বামীর শতরানের পর মাঠেই কাঁদলেন সরফরাজের স্ত্রী

শতরানের পর সরফরাজ আহমেদ। ছবি- এএফপি  (AFP)

দীর্ঘদিন পরে পাকিস্তানের জার্সি গায়ে টেস্ট খেলতে নেমছিলেন সরফরাজ আহমেদ। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে শতরান করেন তিনি। স্বামীর শতরান দেখে গ্যালারিতে কেঁদে ভাসান সরফরাজের স্ত্রী।

নিউজিল্যান্ড বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজের দল নির্বাচন নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি। কিউইদের বিরুদ্ধে কেন মহম্মদ রিজওয়ানকে বসিয়ে দীর্ঘদিন দলের বাইরে থাকা সরফরাজ আহমেদকে আনা হল? নির্বাচকদের এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনা করতে থাকেন অনেকে। অবশেষে নিজের পারফরম্যান্সের মাধ্যমে সমালোচকদের জবাব দিলেন সরফরাজ। সিরিজের সেরা হয়েছেন হয়েছেন তিনি।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে শূন্য রানে আউট হওয়ার পর তাঁকে বাদ দেওয়া হয়। এতদিন পাক দলে জায়গা হয়নি তাঁর। এরপর তিনি নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট ম্যাচ অর্থাৎ ২৬ ডিসেম্বর ২০২২-এ দলে ফিরে আসেন। সেই ম্যাচে শতরান না করলেও তাঁর ব্যাট থেকে বড় রান আসে। এবার শতরান করলেন তিনি। দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৭৬ বলে ১১৮ রান করলেন। শতরানের পর গ্যালারিতে উপস্থিত থাকা সরফরাজের স্ত্রী সায়েদা খুশবাহত আনন্দে কেঁদে ভাসান।

সরফরাজ দ্বিতীয় ইনিংসে যখন ব্যাট করতে নামেন পাকিস্তানের স্কোরবোর্ডে তখন মাত্র ৭৭ রান। চার উইকেট হারিয়ে রীতিমতো চাপে পাকিস্তান। সামনে নিউজিল্যান্ডের দেওয়া ৩১৯ রানের বড় টার্গেট। সেই ম্যাচের হাল ধরেন পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক। ধীরে ধীরে জয়ের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন দলকে। ইনিংসে সাজান নয়টি চার ও একটি ছয়ে। করাচিতে ৩৫ বছর বয়সী এই উইকেটরক্ষক ব্যাটারের উপর ভরসা করে ম্যাচ জেতার আশা দেখেছিল পাকিস্তান। কিন্তু দিনের শেষে আলো কমে আসায় খেলা থামাতে বাধ্য হন আম্পায়াররা। ম্যাচটি ড্র হয়।

দীর্ঘ আট বছর পরে টেস্ট ম্যাচে সেঞ্চুরি পান সরফরাজ। সেঞ্চুরিটির অন্য মূল্যও আছে। ঘরের মাঠে সারফারাজের প্রথম শতরান এটি। মাঠে উপস্থিত দর্শকদের উত্তেজনার সঙ্গে গ্যালারিতে থাকা সারফরাজের স্ত্রীও কান্নায় ভেঙে পড়েন। তবে এই কান্না দুঃখের নয় আনন্দের। তা বোঝাই যাচ্ছিল, দীর্ঘ বিতর্কের পর স্বামীর সাফল্য উপভোগ করছিলেন তিনি।

পাকিস্তান বনাম নিউজিল্যান্ডের প্রথম টেস্টের পর দ্বিতীয় টেস্টও ড্র হয়। হারের মুখ থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে জয়ের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিল পাকরা। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডও লড়াই ছাড়তে নারাজ ছিল। নিউজিল্যান্ডের জেতার জন্য তাদের দরকার ছিল মাত্র এক উইকেট। পাকিস্তানও পৌঁছে গিয়েছিল নির্ধারিত টার্গেটের কাছে। বাকি ছিল মাত্র ১৫ রান। বল ব্যাটের সঙ্গে স্নায়ুর লড়াইও চলছিল দুই দলের মধ্যে। কিন্তু মাঠে প্রয়োজনীয় আলো না থাকায় খেলা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন আম্পায়াররা। ফলে ড্র হয় ম্যাচটি।

বন্ধ করুন