বাংলা নিউজ > ময়দান > নেতৃত্ব হারানোর ভয় নেই- IND vs NZ ODI শুরুর আগে বিন্দাস জবাব শিখরের

নেতৃত্ব হারানোর ভয় নেই- IND vs NZ ODI শুরুর আগে বিন্দাস জবাব শিখরের

শিখর ধাওয়ান এবং মায়াঙ্ক আগরওয়াল।

অধিনায়ক হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করার তাগিদটা শিখর ধাওয়ানের এ বার ষোল আনা রয়েছে। কারণ তিনি ২০২৩ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) প্রথম বার নেতৃত দেবেন। পঞ্জাব কিংস তাঁকে অধিনায়ক হিসেবে বেছে নিয়েছে। তার আগে নিজের আত্মবিসশ্বাসটা বাড়িয়ে নিতে চাইবেন শিখর।

ভারতের অভিজ্ঞ ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে ২০২১ সালে প্রথম বারের মতো ভারতের অধিনায়ক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছিল, যখন ভারত তাদের দ্বিতীয় দল নিয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়েছিল। এমন কী ২০২২ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওডিআই অধিনায়ক হিসেবে শিখর ধাওয়ানকে বেছে নেওয়া হয়েছে। রোহিত শর্মা, কেএল রাহুলকে এই সফরে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। সে কারণে ধাওয়ানকে ওডিআই অধিনায়ক করা হয়েছে। এক আগে টি-টোয়েন্টি সিরিজে নেতৃত্ব দিয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া। যে সিরিজটি ভারত ১-০ জিতেছিল। এ বার তাই ধাওয়ানের সামনে ভারতকে সিরিজ জেতানোর বড় চ্যালেঞ্জ।

পাশাপাশি অধিনায়ক হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করার তাগিদটাও ধাওয়ানের ষোল আনা রয়েছে। কারণ তিনি ২০২৩ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) প্রথম বার নেতৃত দেবেন। তার আগে নিজের আত্মবিসশ্বাসটাও বাড়িয়ে নিতে চাইবেন শিখর। প্রসঙ্গত, ভারতের স্ট্যান্ড-ইন অধিনায়ক শিখর ধাওয়ানকে সম্প্রতি মায়াঙ্ক আগরওয়ালের পরিবর্তে পঞ্জাব কিংস (পিবিকেএস) অধিনায়ক হিসেবে বেছে নিয়েছে। মায়াঙ্ককে ২০২৩ আইপিএল নিলামের আগে ছেড়ে দিয়েছে পঞ্জাব। ডিসেম্বরে পরের বছরের আইপিএলের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ODI সিরিজ থেকে ছিটকে গেলেন জাদেজা,পরিবর্তে বাংলার অলরাউন্ডার

ইএসপিন ক্রিকইনফোর সঙ্গে কথা বলার সময়ে পঞ্জাব কিংসের নব-নিযুক্ত অধিনায়ক বলেছেন যে, তিনি নেতৃত্ব হারানোর বিষয়ে চিন্তিত নন। তাঁর মতে, ‘চাকরি আসে আর যায়, কোনও চিন্তা নেই। আমরা খালি হাতে এসেছি, খালি হাতেই যাব। সব কিছু তো এখানেই থেকে যাবে। আমি চাকরি হারানোর ভয় পাই না। তবে আমি যে ক্যাপ্টেন, সেই ভার নিজের উপর রাখতে চাই না। আমি নিজের খেলাটা খেলে যাবে, দলের কী লক্ষ্য বা প্রয়োজন, সেটার উপর নির্ভর করে।’

এ দিকে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজ শুরুর আগে সাংবাদিক সম্মেলনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে নেতৃত্ব নিয়ে প্রসঙ্গে প্রশ্ন উঠেছিল। প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে সিরিজে প্রথমে শিখরকে অধিনায়ক করা হয়েছিল। কিন্তু কেএল রাহুল দলে যোদ দেওয়ায় তাঁকে নেতৃত্ব থেকে দুম করে সরিয়ে দেওয়া হয়। বদলে রাহুলকে অধিনায়ক ঘোষণা করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার অকল্যান্ডে প্রাক-ম্যাচ সংবাদিক সম্মেলনে এই প্রসঙ্গ উঠতেই শিখর বলেন, ‘আমি আঘাত পাইনি. কারণ যা হয় ভালোর জন্যই হয়। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে অধিনায়কত্ব পেয়েছি। সেটাও নির্বাচকদের কারণেই হয়েছে। কিছু জিনিস আমার মন মতো না হলেও, খারাপ লাগে না। আমি এ ভাবেই ভাবি।’

আরও পড়ুন: অধিনায়ক হিসেবে পরিপক্ক হয়েছি, এখন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে পারি- শিখর ধাওয়ান

তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘আমি নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে করি যে, আমার ক্যারিয়ারের এই সন্ধিক্ষণে অধিনায়কত্ব পাচ্ছি। এই চ্যালেঞ্জ নিতে ভালো লাগছে। তরুণ দল নিয়েই আমরা বেশ কয়েকটি ভালো সিরিজ জিতেছি।’

গত বার আইপিএল মেগা নিলামে শিখর ধাওয়ানকে পঞ্জাব ৮.২৫ কোটি টাকায় সই করিয়েছিল। ভারতের তারকা ব্যাটার পিবিকেএস ফ্র্যাঞ্চাইজিতে তাঁর প্রথম মরশুমে ১৪টি ম্যাচে ৩৮.৩৩ গড়ে ৪৬০ রান করেছিলেন। ৩৬ বছরের শিখর ২০৬টি আইপিএল ম্যাচে ৬,২৪৩ রান সংগ্রহ করেছেন। আইপিএল ২০২৩-এ পঞ্জাবের নেতৃত্ব দেওয়ার আগে শিখর ধাওয়ান নিঃসন্দেহে মেন ইন ব্লু-এর অধিনায়ক হিসেবে আরও একটি সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে চাইবেন। শুক্রবার প্রথম ওয়ানডে-তে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ধাওয়ানের নেতৃত্বাধীন টিম ইন্ডিয়া।

বন্ধ করুন