বাংলা নিউজ > ময়দান > ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর জন্য প্রস্তুত বিশ্বকাপ-অ্যাসেজ জয়ী কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার
বিশ্বকাপ-অ্যাসেজ জয়ী কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার (ছবি:গেটি ইমেজ)
বিশ্বকাপ-অ্যাসেজ জয়ী কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার (ছবি:গেটি ইমেজ)

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর জন্য প্রস্তুত বিশ্বকাপ-অ্যাসেজ জয়ী কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার

  • অস্ট্রেলিয়ার প্রধান কোচ হিসেবে জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বর্তমান চুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে। তিনি নিজে কোচের দায়িত্ব পালন করা চালিয়ে যেতে ইচ্ছুক। যদিও চুক্তি নবীকরণ নিয়ে ল্যাঙ্গার ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে এখনও কোনও আলোচনা হয়নি।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধান কোচ হিসেবে জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বর্তমান চুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে। তিনি নিজে কোচের দায়িত্ব পালন করা চালিয়ে যেতে ইচ্ছুক। যদিও চুক্তি নবীকরণ নিয়ে ল্যাঙ্গার ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে এখনও কোনও আলোচনা হয়নি। তবে এই বিষয় নিয়ে চিন্তিতো নন ল্যাঙ্গার। অ্যাসেজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত ল্যাঙ্গার ও সিএ চুক্তি নবীকরণ আলোচনায় না যাওয়ার ব্যাপারে একমত হয়েছিল। তবে গত রবিবার দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডকে ৪-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দেওয়ার পরে ছবিটা বদলেছে। তবে এখনও দুই পক্ষের আনুষ্ঠানিক আলাপ হয়নি।

কয়েক মাস আগেও ল্যাঙ্গার ছিলেন ভীষণ চাপে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ধরাশায়ী হওয়ার পর বাংলাদেশের মাঠেও বিধ্বস্ত হয়েছিল অজিরা। তাতে দলটির ক্রিকেটারদের মধ্যে দেখা দিয়েছিল অসন্তোষ। সে সময় সব মিলিয়ে ৩০ জন খেলোয়াড়ের সঙ্গে আলাদাভাবে বৈঠক করেছিলেন ল্যাঙ্গার। তাকে কোচিংয়ের কৌশল পরিবর্তনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল। সেটা মেনে নিয়েছিলেন ল্যাঙ্গার এবং সুফলও মিলেছে হাতেনাতে। নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতার পর অ্যাসেজেও একক আধিপত্য দেখিয়েছে তারা।

বড় দুটি সাফল্যের পরে ছবিটা বদলে গিয়েছে। রিকি পন্টিং, স্টিভ ওয়াহ, শেন ওয়ার্নরা প্রশ্ন তুলেছেন চুক্তি নবায়নের আলোচনা বিলম্বিত করা নিয়ে। পাশাপাশি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে তারা আহ্বান জানিয়েছেন, তাৎক্ষণিকভাবে যেন ল্যাঙ্গারের দায়িত্বের মেয়াদ বাড়ানো হয়। বুধবার নিজে দেশের গণমাধ্যম এসইএনকে ল্যাঙ্গার বলেছেন ভবিষ্যৎ নিয়ে নির্ভর থাকার কথা, ‘যাই ঘটুক না কেন তার জন্য আমি শঙ্কিত নই। বিশ্বকাপ ও অ্যাসেজের আগে আমাদের যে প্রস্তুতি ছিল, সেটার চেয়ে আর ভালো কিছু হতে পারে না। আমরা যে সাফল্য পেয়েছি, সেটা কাকতালীয় নয়।’

গত কয়েক মাসে পাওয়া সাফল্য নিয়ে গর্বিত ল্যাঙ্গার, ‘বর্তমান অবস্থান থেকে যা কিছুই ঘটুক না কেন, আমরা সবাই এই ছোট সময়টার জন্য অবিশ্বাস্যভাবে গর্বিত হতে পারি। আমাদের দুটি মিশন ছিল, বিশ্বকাপ জেতা ও অ্যাসেজ জেতা। এত অল্প সময়ের মধ্যে সেগুলো করা মানে হল পর্বতপ্রমাণ প্রচেষ্টা এবং সেটা নিয়ে আমরা সবাই সত্যিই সন্তুষ্ট, আমরা সবাই সত্যিই খুশি, আমরা সবাই সত্যিই গর্বিত। আমি এই মুহূর্তে এখানে বসে শেষ দুটি সিরিজ নিয়ে সত্যিই সন্তুষ্ট বোধ করছি।’

বন্ধ করুন