বাংলা নিউজ > টেকটক > তুঙ্গে নাসা-ইসরো কৃত্রিম উপগ্রহের কাজ, লঞ্চ আগামী বছরেই
ফাইল ছবি : ইসরো (ISRO) (Edited for representational purposes) (ISRO)
ফাইল ছবি : ইসরো (ISRO) (Edited for representational purposes) (ISRO)

তুঙ্গে নাসা-ইসরো কৃত্রিম উপগ্রহের কাজ, লঞ্চ আগামী বছরেই

নাসার জেট প্রপালশান ল্যাবরেটরিতে তাদের আই-ব্যান্ড রেডারের সঙ্গে এটি যুক্ত করা হবে। এরপর সম্পূর্ণ পে-লোডটি ভারতে পাঠাবে নাসা। আগামী বছর এপ্রিল বা মে মাসে শ্রীহরিকোটা থেকে এটির উত্ক্ষেপণ হবে।

নাসা-কে নিজেদের তৈরি এস-ব্যান্ড অ্যাপারচার রেডার প্রেরণ করল ইসরো। নাসা-ইসরো যৌথ উদ্যোগ এই স্যাটেলাইট প্রকল্প। নাসা-ইসরো সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডারই প্রথম কোনও কৃত্রিম উপগ্রহ যার মাধ্যমে পৃথিবীকে দুটি ভিন্ন ফ্রিকোয়েন্সিতে পর্যবেক্ষণ করা যাবে।

নাসার জেট প্রপালশান ল্যাবরেটরিতে তাদের আই-ব্যান্ড রেডারের সঙ্গে এটি যুক্ত করা হবে। এরপর সম্পূর্ণ পে-লোডটি ভারতে পাঠাবে নাসা। আগামী বছর এপ্রিল বা মে মাসে শ্রীহরিকোটা থেকে এটির উৎক্ষেপণ হবে।

নাসার মতে, এই কৃত্রিম উপগ্রহের মাধ্যমে মহাকাশ থেকে পৃথিবীর অত্যন্ত্য উন্নত মানের ছবি তোলা সম্ভব হবে। এর ফলে পৃথিবীর বিভিন্ন ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণ আরও সহজ হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণ ও ফলাফল পর্যবেক্ষণের ক্ষেত্রেও এই কৃত্রিম উপগ্রহ অত্যন্ত্য কার্যকরী হবে বলে জানিয়েছে নাসা।

শুধু তাই নয়, এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয়, যেমন সুনামি, ভূমিকম্প, আগ্নেয়গিরি ইত্যাদির পরিস্থিতি ও তথ্যাবলী বিশ্লেষণ করা সহজ হবে। দুর্যোগ মোকাবিলার ক্ষেত্রে তা সাহায্য করবে।

তবে, এই প্রথম নাসা-ইসরো জুটি বাঁধেনি। এর আগে ইসরোর চন্দ্রযান-১ অভিযানে নাসার মুন মিনারোলজি ম্যাপার ব্যবহৃত হয়েছিল। এই অভিযানেই চাঁদে জলের অস্তিত্ব প্রমাণ করে ইসরো।

বন্ধ করুন