বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Tour: পূর্ণিমার রাতে কোচবিহারের রসিকবিল, পর্যটকদের জন্য হোম স্টের অনুমতি

Tour: পূর্ণিমার রাতে কোচবিহারের রসিকবিল, পর্যটকদের জন্য হোম স্টের অনুমতি

রসিকবিলের ওয়াচটাওয়ার। সংগৃহীত ছবি

বর্তমানে রসিকবিলে বনদফতর ও পঞ্চায়েত সমিতির একটি করে আবাসন রয়েছে। কিন্তু পুজোর সময় থেকেই এই পর্যটনকেন্দ্রে ভিড় বাড়তে থাকে। তখন পর্যটকদের থাকার মতো পর্যাপ্ত জায়গা থাকে না। সেকারণেই এবার হোম স্টেতেও রাত্রিবাস করতে পারবেন পর্যটকরা।

কোচবিহারের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র রসিকবিল। তুফানগঞ্জের রসিকবিলকে ঘিরে পর্যটকদের আনাগোনা লেগেই থাকে। কিন্তু এতদিন এখানে কোনও হোম স্টের ব্যবস্থা ছিল না। এবার সেই রসিকবিল সংলগ্ন এলাকায় হোম স্টে করার অনুমতি দিল দরকার। সেক্ষেত্রে রাজার শহর কোচবিহারে বেড়াতে গিয়ে রাতটা রসিকবিলের হোমস্টেতেও কাটাতে পারবেন পর্যটকরা। 

রসিকবিলকে ও মিনি জুকে ঘিরে গড়ে উঠছে গোটা পর্যটনকেন্দ্র। এখানেই রয়েছে ডিয়ারপার্ক, ঘরিয়ালদের আবাসস্থল। আর শীতকাল এলেই পরিযায়ী পাখি দেখার টানে অনেকেই রসিকবিলে যান। আর পূর্ণিমার রাতে চরাচর জুড়ে যখন শুধুই জ্যোৎস্নার আলো তখন রকিসবিলের এক মায়াবী রূপ। কিন্তু হোমস্টের কোনও ব্যবস্থা এতদিন ছিল না রসিকবিল সংলগ্ন এলাকায়। তবে এবার সেখানে ৫টি হোমস্টে তৈরির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

তুফানগঞ্জ ব্লক প্রশাসন সূত্রে খবর, হোম স্টে তৈরি করতে কারা আগ্রহী সেব্যাপারে আবেদনপত্র চাওয়া হয়েছিল। একাধিক পরিবার এনিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত ৫টি পরিবারকে হোম স্টে তৈরির জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। তারা পর্যটকদের জন্য থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করবে। হোম স্টের পরিকাঠামো বৃদ্ধির জন্য প্রতিটি পরিবারকে অন্তত দেড় লাখ টাকা করে সহায়তা করা হবে বলেও জানানো হয়েছে। আপাতত রসিকবিল, পাগলিরকুঠি ও আটিয়ামোড় এলাকা থেকে পাঁচটি পরিবারকে এই আর্থিক সহায়তা করা হচ্ছে।

তবে বর্তমানে রসিকবিলে বনদফতর ও পঞ্চায়েত সমিতির একটি করে আবাসন রয়েছে। কিন্তু পুজোর সময় থেকেই এই পর্যটনকেন্দ্রে ভিড় বাড়তে থাকে। তখন পর্যটকদের থাকার মতো পর্যাপ্ত জায়গা থাকে না। সেকারণেই এবার হোম স্টেতেও রাত্রিবাস করতে পারবেন পর্যটকরা।

কীভাবে যাবেন?

কোচবিহার থেকে তুফানগঞ্জ বা বক্সিরহাটগামী বাসে যাওয়া যায় রসিকবিল। কিছুটা রাস্তা অটোতে যেতে হয়। কোচবিহার থেকে গাড়িতেও যাওয়া যায় রসিকবিল।

বন্ধ করুন