বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > জমি জটে ৮ বছর আটকে চার লেনের রাস্তা তৈরির কাজ, নবান্নকে চিঠি জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের
জমি জটে আটকে ৮ বছর আটকে চার লেনের রাস্তার তৈরির কাজ, নবান্নকে চিঠি কেন্দ্রের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
জমি জটে আটকে ৮ বছর আটকে চার লেনের রাস্তার তৈরির কাজ, নবান্নকে চিঠি কেন্দ্রের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

জমি জটে ৮ বছর আটকে চার লেনের রাস্তা তৈরির কাজ, নবান্নকে চিঠি জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের

থমকে থাকা কাজ এগিয়ে নিয়ে যেতে জেলা প্রশাসনের সাহায্য চেয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি লিখল জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ।

জমি জটে কেন্দ্রের চিঠি এল রাজ্যে। আর এই জটের জেরে উত্তরবঙ্গে চার লেনের পূর্ব–পশ্চিম সড়কের কাজ থমকে রয়েছে। সেই থমকে থাকা কাজ এগিয়ে নিয়ে যেতে জেলা প্রশাসনের সাহায্য চেয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি লিখল জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ।

আর এই চিঠির সঙ্গে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে চলা জনস্বার্থ মামলায় গত ২৩ ডিসেম্বরের অর্ন্তবর্তী নির্দেশের প্রতিলিপিও পাঠানো হয়েছে। জাতীয় সড়ক সংক্রান্ত ওই জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে ওইদিন হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দেয়, চার লেনের সড়কের জমি পেতে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষকে সবরকম সাহায্য করতে হবে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনগুলিকে।জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের চিফ জেনারেল ম্যানেজার তথা কলকাতার আঞ্চলিক আধিকারিক আর পি সিং ওই চিঠিটি লিখেছেন মুখ্যসচিবকে।

চার লেনের পূর্ব–পশ্চিম সড়ক তৈরিতে জমি জট কাটিয়ে সুষ্ঠুভাবে সড়ক তৈরিতে নজরদারির জন্য হাইকোর্ট একজন স্পেশ্যাল অফিসারও নিয়োগ করেছে। হাইকোর্টের নজরদারিতে জলপাইগুড়ি জেলায় জমি জট তুলনামূলক কাটলেও উত্তর দিনাজপুর, আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহার জেলায় জটের কারণে সড়কের কাজ শুরুই করা যায়নি বলে অভিযোগ। আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহার জেলা মিলিয়ে প্রায় ৪২ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়ক তৈরি হবে।

যে অংশের জমি মেলেনি, সেখানকার জমিদাতাদের একাংশ ক্ষতিপূরণ নিয়েছেন। কিন্তু অন্য অংশ ক্ষতিপূরণের হার বৃদ্ধির দাবি তুলে মামলা করা হয়েছে। ক্ষতিপূরণের হার নিয়ে বিবাদ চলতে থাকলেও জমি পেতে আইনত বাধা আসা উচিত নয় বলে মুখ্যসচিবকে পাঠানো চিঠিতে উল্লেখ করেছেন জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ।

ঘোষপুকুর থেকে ধূপগুড়ি এবং ফালাটাকা থেকে সলসলাবাড়ি—এই দুই ভাগে কাজ শুরু করেছিল জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। তার পরে প্রায় আট বছর কেটে গেলেও কোনও অংশের কাজই শেষ হয়নি। জমি জটে তা থমকে গিয়েছে।

বন্ধ করুন