বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'তৃণমূলে পচন ধরেছে', বিজেপিতে যোগের কারণ জানিয়ে তৃণমূলকর্মীদের আহ্বান শুভেন্দুর
শুভেন্দু অধিকারী।(ছবি সৌজন্য সংগৃহীত)
শুভেন্দু অধিকারী।(ছবি সৌজন্য সংগৃহীত)

'তৃণমূলে পচন ধরেছে', বিজেপিতে যোগের কারণ জানিয়ে তৃণমূলকর্মীদের আহ্বান শুভেন্দুর

  • মঞ্চে ওঠার ঠিক আগে তৃণমূলকর্মীদের উদ্দেশে একটি ছ'পাতার খোলা চিঠি পেশ করেছেন শুভেন্দু। দীর্ঘ এই চিঠির মূল কথা–‘‌তৃণমূলে পচন ধরেছে।'

নয়া সফরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলেন শুভেন্দু অধিকারী। মেদিনীপুরে অমিত শাহের জনসভার মঞ্চ থেকে বিজেপিতে যোগ দিলেন। যে মেগা যোগদানের সাক্ষী থাকল মেদিনীপুর। শনিবার তৃণমূলের সঙ্গে দীর্ঘ দু’দশকেরও বেশি সময়ের সম্পর্ক ছিন্ন করে বিজেপিতে যোগ দিলেন নন্দীগ্রাম আন্দোলনের অন্যতম নেতা শুভেন্দু অধিকারী।

শুভেন্দু, শীলভদ্র দত্তের পাশাপাশি বহু নেতারাই শনিবার যোগদান করেন বিজেপিতে। শনিবার সকাল ১১টা ৫০ মিনিট নাগাদ কাঁথির শান্তিকুঞ্জের বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। পরনে পছন্দের সাদা পাজামা–পাঞ্জাবি এবং কালো হাফ জ্যাকেট। কপালে গেরুয়া তিলক।

মঞ্চে ওঠার ঠিক আগে তৃণমূলকর্মীদের উদ্দেশে ছ'পাতার একটি খোলা চিঠি পেশ করেছেন শুভেন্দু। দীর্ঘ এই চিঠির মূল কথা–‘‌তৃণমূলে পচন ধরেছে। ১০ বছরে কোনও পরিবর্তন হয়নি। দলের থেকে ব্যক্তিস্বার্থ প্রাধান্য পাচ্ছে। এটা ভীষণ কষ্টদায়ক যে, বাইরে থেকে যাঁদের ভাড়া করে নিয়ে আসা হয়েছে, তাঁরাই দল চালাচ্ছেন। তৃণমূল স্তরের রাজনীতি সম্পর্কে যাঁদের কোনও ধারণা নেই। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা সদস্যরা অপমানিত হচ্ছেন।’‌

চিঠিতে তিনি তৃণমূল কর্মীদের উদ্দেশে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। আশাপ্রকাশ করেছেন, এবার নির্বাচন কমিশনের পদক্ষেপে সুষ্ঠু ও অবাধ ভাবে রাজ্যের মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। এই বিষয়ে দলের সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি মুকুল রায় বলেন, ‘‌শুভেন্দু আসায় দলের শক্তি বাড়ল। মমতা যতই চেঁচান তৃণমূল ১০০ আসন পাবে না।’‌

শুভেন্দু একা গেলেন না বিজেপিতে। সঙ্গে নিয়ে গেলেন দলের একাধিক বিধায়ক, সাংসদ এবং জেলাস্তরের অনেক পদাধিকারীদের। ফলে বিজেপি একযাত্রায় অনেক ফল আশা করতেই পারে। তৃণমূল ছাড়তেই শুভেন্দু অধিকারীর জন্য ক্যাটেগরির নিরাপত্তা ঘোষণা করেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। বুলেটপ্রুফ গাড়ি পেয়েছেন শুভেন্দু। তখনই বোঝা গিয়েছিল, গেরুয়া শিবিরে যাওয়া নিশ্চিত শুভেন্দুর।

এদিন গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন মন্তেশ্বরের তৃণমূল বিধায়ক সৈকত পাঁজা, ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত, গাজোলের তৃণমূল বিধায়ক দীপালি বিশ্বাস, হলদিয়ার সিপিআইএম বিধায়ক তাপসী মণ্ডল, কাঁথি উত্তরের তৃণমূল বিধায়ক বনশ্রী মাইতি, তমলুকের সিপিআইএণ বিধায়ক অশোক দিন্দা, কালনার তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বজিৎ কুণ্ডু, নাগরাকাটার তৃণমূল বিধায়ক সুকরা মুণ্ডা, পুরুলিয়ার কংগ্রেস বিধায়ক সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, বর্ধমান পূর্বের তৃণমূল সাংসদ সুনীল মণ্ডল, প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় এবং প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ দশরথ তিরকে প্রমুখ।

এই বিষয়ে তৃণমূলের বর্ষীয়ান সাংসদ সৌগত রায় বলেন, ‘‌ওর বাবা সাংসদ, ভাই সাংসদ, আরেক ভাই পুরপ্রধান। ও আবার পরিবারতন্ত্রের কথা কী বলে? ও কী পেয়ে বিজেপিতে গেল সেটা বরং বলুন।’‌ 

সুতরাং শুভেন্দুর বিজেপিতে যাওয়া বিধানসভা নির্বাচনের আগে বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। তবে শুভেন্দু লিখেছেন, ২০২১ সালের নির্বাচনের পশ্চিমবঙ্গ এক সন্ধিক্ষণের সামনে দাঁড়িয়ে। ‘একুশের নির্বাচনে আমরা যে সিদ্ধান্ত নেব তার প্রভাব আমাদের ওপরে পড়বে। আমার মনে হয়, এবার নতুন কিছু সিদ্ধান্ত নিতে হবে। নতুন রাস্তা ঠিক করে নিতে হবে। কয়েক দিন আগেই পঞ্চাশে পা দিয়েছি। অনেকে বলছেন, আমার জীবনের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হচ্ছে। দশ বছর পেরিয়ে গিয়েছে। রাজ্যে আমার ভাইবোনদের সমস্যার কোনও সমাধান হয়নি। বলা ভালো অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে। কিন্তু সরকারি পরিকাঠামো শুধরে নিয়ে রাজ্যের সমস্যার সমাধান করা যেত। কিন্তু তা হয়নি। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। যে দলটার জন্য কাঁধে কাঁধ দিয়ে লড়াই করেছিলাম তা ভেতরে ভেতরে পচন ধরছে।’

বন্ধ করুন