বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > CBI: সিবিআই নজরে বঙ্গ–বিজেপির প্রভাবশালী নেতার শাগরেদ, ‌‌‌নিয়োগ দুর্নীতিতে কার নাম?‌

CBI: সিবিআই নজরে বঙ্গ–বিজেপির প্রভাবশালী নেতার শাগরেদ, ‌‌‌নিয়োগ দুর্নীতিতে কার নাম?‌

সিবিআইয়ের নজরে এল বঙ্গ–বিজেপির প্রভাবশালী এক নেতার শাগরেদ। (HT_PRINT)

প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী এবং একসময়ের উচ্চপদস্থ শিক্ষাকর্তারা গ্রেফতার হয়েছেন। তা নিয়ে বিজেপি নেতারা চিৎকার জুড়ে দিয়েছেন। এবার গেরুয়া শিবিরের ঘনিষ্ঠ চঞ্চলবাবুকে তলবে কি তাহলে নিয়োগ দুর্নীতি ইস্যু বিজেপির জন্য ব্যুমেরাং হতে চলেছে? উঠছে প্রশ্ন। সিবিআই এখন তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় বলে সূত্রের খবর।

নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে রাজ্য–রাজনীতি সরগরম। বিজেপি নেতারা শাসকদলের নেতাদের বিরুদ্ধে আঙুল তুলে চলেছেন। এটাই পঞ্চায়েত নির্বাচনে ইস্যু করতে চলেছেন তাঁরা। এই পরিস্থিতিতে এবার সিবিআইয়ের নজরে এল বঙ্গ–বিজেপির প্রভাবশালী এক নেতার শাগরেদ। নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় এবার এমনই অভিযোগ উঠেছে। পূর্ব মেদিনীপুরের ‘ভূমিপুত্র’ ওই বিজেপি নেতার ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত ব্যক্তির নাম চঞ্চল নন্দী। সিবিআই এখন তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় বলে সূত্রের খবর।

ঠিক কী জানা যাচ্ছে?‌ সিবিআই সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চঞ্চল নন্দীকে নিজাম প্যালেসে তলব করা হয়েছে। নিয়োগ দুর্নীতি সম্পর্কিত প্রশ্নের তালিকাও তৈরি করেছেন তদন্তকারীরা। শিক্ষাক্ষেত্রে নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে রাজ্যে তদন্ত করছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী এবং একসময়ের উচ্চপদস্থ শিক্ষাকর্তারা গ্রেফতার হয়েছেন। তা নিয়ে বিজেপি নেতারা চিৎকার জুড়ে দিয়েছেন। এবার গেরুয়া শিবিরের ঘনিষ্ঠ চঞ্চলবাবুকে তলবে কি তাহলে নিয়োগ দুর্নীতি ইস্যু বিজেপির জন্য ব্যুমেরাং হতে চলেছে? উঠছে প্রশ্ন।

ঠিক কী অভিযোগ উঠেছে?‌ চঞ্চলবাবুর বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে সরকারি চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ আগেও উঠেছে। ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মানসকুমার সিনহা নামে এক ব্যক্তি বাঁকুড়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। প্রাইমারি, আপার প্রাইমারি–সহ অন্যান্য সরকারি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগ করা হয় তাঁর বিরুদ্ধে। পুলিশ তদন্তও শুরু করে এফআইআর দায়ের হয়। আর তা খারিজের দাবিতে চঞ্চলবাবু কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। এমনকী গ্রেফতারি এড়াতে রক্ষাকবচের আর্জিও জানান। কিন্তু চঞ্চলবাবুর সেই আবেদন খারিজ করে দেয় সিঙ্গল বেঞ্চ। তখন ডিভিশন বেঞ্চে যান। কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ এই মামলায় বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, তদন্ত এগিয়ে নিয়ে গেলেও চঞ্চলবাবুর বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ করা যাবে না।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ এই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে কোনও বাধা নেই সিবিআইয়ের। তদন্তকারীদের দাবি, বেশ কয়েকজন চাকরিপ্রার্থীর নামের তালিকা চঞ্চল নন্দীর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট দফতরে পৌঁছেছিল। নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে একাধিক এফআইআর দায়ের করে সিবিআই। সেই সব এফআইআরে বহু চাকরিপ্রার্থীর নাম রয়েছে। ইতিমধ্যে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের কয়েকশো চাকরিপ্রাপককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ পর্বে প্রচুর তথ্য উঠে এসেছে। চঞ্চল নন্দী নামটিও ওই জিজ্ঞাসাবাদেই সামনে আসে বলে সিবিআইয়ের দাবি। তবে বিজেপি নেতার ঘনিষ্ঠ চঞ্চলবাবুকে তলব করা হলেও তিনি এখনও হাজিরা দেননি।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন