বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > তিন বছরের রাহুলের হাতে বিঁধেছিল কাস্তে, বের করল কলকাতার সরকারি হাসপাতাল
শিশুর বাঁ হাত ফুঁড়ে চাষের কাস্তে ঢুকে গিয়েছিল
শিশুর বাঁ হাত ফুঁড়ে চাষের কাস্তে ঢুকে গিয়েছিল

তিন বছরের রাহুলের হাতে বিঁধেছিল কাস্তে, বের করল কলকাতার সরকারি হাসপাতাল

পেডিয়াট্রিক বিভাগের প্রধান কৌশিক সাহা শিশুটির অস্ত্রোপচার করেন। শিশুটির বাঁ হাত থেকে কাস্তের ফলাকে বের করা হয়।

এক জটিল অস্ত্রোপচার করে তিন বছরের শিশুর জীবন ফিরিয়ে দিল নীলরতন মেডিকল কলেজ ও হাসপাতাল বা এনআরএস। শিশুর বাঁ হাত ফুঁড়ে চাষের কাস্তে ঢুকে গিয়েছিল। সেই কাস্তে বের করে শিশুটিকে সুস্থ করে দিলেন চিকিৎসকরা।

সম্প্রতি মাঠের কাজ সেরে বাড়ি ফিরে কাজ করছিলেন তাহেরপুরের বাসিন্দা গৌর হালদার। হঠাৎই তিন বছরের ছেলে রাহুলের চিৎকারের আওয়াজ শোনেন তিনি। গিয়ে দেখেন, তাঁর ছেলের বাঁ হাত ফুঁড়ে চাষ করার কাস্তেটা ঢুকে গিয়েছে। কী করবেন কিছু ভেবে উঠতে না পেরে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কিছু করা যায়নি। এরপর শিশুটিকে নিয়ে যাওয়া হয় কৃষ্ণনগরের শক্তিপুর জেনারেল হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। তারপরই কোনওরকম সময় নষ্ট না করে ছেলেকে নিয়ে গৌর চলে আসেন এনআরএস মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে। এরপরই শিশুটির অস্ত্রোপচারের ব্যবস্থা করা হয়। পেডিয়াট্রিক বিভাগের প্রধান কৌশিক সাহা শিশুটির অস্ত্রোপচার করেন। শিশুটির বাঁ হাত থেকে কাস্তের ফলাকে বের করা হয়।

সন্তান বিপদের হাত থেকে ফিরে আসায় চিকিৎসকদের ধন্যবাদ জানান গৌর। তিনি জানান, 'ছেলে এখন ভালো আছে, কথা বলতে পারছে। ও অনেকটাই এখন স্বস্তি বোধ করছে। আরও আগে এলে ভালো হত। রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স খারাপ হয়ে গিয়েছিল। ঠিক থাকলে অনেক আগেই পৌঁছে যেতাম।'

বন্ধ করুন