বাংলা নিউজ > ক্রিকেট > World Cup > SA vs AUS, 3rd ODI: মার্করামের শতরান আর স্পিনারদের দাপট- অজিদের ১১১ রানে উড়িয়ে সিরিজ বাঁচিয়ে রাখল প্রোটিয়ারা

SA vs AUS, 3rd ODI: মার্করামের শতরান আর স্পিনারদের দাপট- অজিদের ১১১ রানে উড়িয়ে সিরিজ বাঁচিয়ে রাখল প্রোটিয়ারা

১১১ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারাল দক্ষিণ আফ্রিকা।

তৃতীয় ওডিআই-এ দক্ষিণ আফ্রিকা ১১১ রানে জিতলেও, সিরিজে আপাতত অজিদের পাল্লা ভারি। তারা ২-১ এগিয়ে রয়েছে। সিরিজ হারার সম্ভাবনা নেই অস্ট্রেলিয়ার। তবে সিরিজ বাঁচানোর সুযোগ থাকছে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে। তারা চতুর্থ ওডিআই জিতলে সিরিজ ২-২ ড্র হয়ে যাবে। আর অজিরা শেষ ওডিআই জিতলে, সিরিজ ৩-১ পকেটে পুড়বে।

অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরপর দু'টি ওডিআই-এ হেরে কার্যত দেওয়ালে পিঠ ঢেকে গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। শেষ পর্যন্ত তৃতীয় ওডিআই-এ এসে সিরিজে তারা ঘুরে দাঁড়ায়। অজিদের একেবারে খড়কুটোর মতোই উড়িয়েই শক্তিশালী প্রত্যাবর্তন করে প্রোটিয়ারা। প্রথম এডেন মার্করামের দুরন্ত সেঞ্চুরি, তার পর প্রোটিয়া স্পিনারদের দাপট- ১১১ রানের বিশাল বড় ব্যবধানে অস্ট্রেলিয়াকে মঙ্গলবার হারাল দক্ষিণ আফ্রিকা।

চতুর্থ ওডিআই এখনও বাকি রয়েছে। আপাতত সিরিজে অজিদের পাল্লা ভারি। তারা ২-১ এগিয়ে রয়েছে। সিরিজ হারার সম্ভাবনা নেই অস্ট্রেলিয়ার। তবে সিরিজ বাঁচানোর সুযোগ থাকছে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে। তারা চতুর্থ ওডিআই জিতলে সিরিজ ২-২ ড্র হয়ে যাবে। আর অজিরা শেষ ওডিআই জিতলে, সিরিজ ৩-১ পকেটে পুড়বে।

মঙ্গলবার টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে, শুরু থেকেই আগ্রাসী মেজাজে ছিল প্রোটিয়ারা। প্রথম উইকেটেই ১৪৬ রান যোগ করেন কুইন্টন ডি'কক এবং তেম্বা বাভুমা মিলে। ১০টি চার এবং ২টি ছক্কার হাত ধরে ৭৭ বলে ৮২ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন কুইন্টন ডি'কক। তেম্বা বাভুমা আউট হন ৬২ বলে ৫৭ রান করে। তিনে ব্যাট করতে নেমে রেজা হেনড্রিক্স ৪৫ বলে ৩৯ করে রানআউট হন।

আরও পড়ুন: বাঁ-হাতি স্পিনার হিসেবে দ্রুততম ১৫০ ODI উইকেট কুলদীপের, অল্পের জন্য ছোঁয়া হল না শামির নজির

তবে প্রোটিয়াদের বড় রানের ইনিংস গড়তে সাহায্য করেন এডেন মার্করাম। চারে ব্যাট করতে নেমে তিনি ৭৪ বলে অপরাজিত ১০২ রানের একটি ঝোড়ো ইনিংস খেলেন। মারেন ৯টি চার, ৪টি ছক্কা। এছাড়া ৪টি চার এবং একটি ছয়ের হাত ধরে ১৬ বলে ৩২ রান করেন মার্কো জানসেন। নির্দিষ্ট ৫০ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকা করে ৩৩৮ রান। অজিদের হয়ে ট্রেভিস হেড ২ উইকেট নিয়েছেন। একটি করে উইকেট নিয়েছেন মার্কাস স্টোইনিস, নাথান এলিস, তনভীর সংঘা।

আরও পড়ুন: শ্রীলঙ্কার টানা ১৩টি ODI-এ জয়ের ধারায় ফুলস্টপ লাগাল ভারত, উঠল Asia Cup-এর ফাইনালে

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা কিন্তু খারাপ করেনি অস্ট্রেলিয়া। দুই অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার এবং ট্রেভিস হেড বেশ আগ্রাসী মেজাজেই শুরুটা করেছিলেন। ৭.৫ ওভারে প্রথম উইকেটে ৭৯ রান করে ফেলেছিল ওয়ার্নার-হেড জুটি। কিন্তু ২৪ বলে ৩৮ রান করে সিসান্দা মাগালার বলে আউট হয়ে যান হেড। এই জুটি ভাঙার পর আর সেই ভাবে কোনও জুটি থিতু হতে পারেনি। ২৬ বলে ২৯ করে এর পর আউট হয়ে যান তিনে ব্যাট করতে নামা মিচেল মার্শ। ৫৬ বলে ৭৮ করে দুর্ভাগ্যজনক ভাবে রানআউট হন ওয়ার্নার। ১০টি চার এবং ৩টি ছক্কার হাত ধরে ওয়ার্নারের এই ৭৯ রানের ইনিংসটুুকুই অস্ট্রেলিয়ার একমাত্র পুঁজি হয়। তাদের ২০০ পার করতে সাহায্য করে। ওয়ার্নার ফিরে যাওয়ার পর ২০ রানের গণ্ডিই কেউ টপকাতে পারেননি। ৩৪.৩ ওভারে ২২৭ রানে অলআউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে জেরাল্ড কোয়েটজি একাই ৪ উইকেট নিয়েছেন। এছাড়া তাবরেজ শামসি এবং কেশব মহারাজা নিয়েছেন ২টি করে উইকেট। সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ম্যাচের সেরা হন মার্করাম।

বন্ধ করুন