বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Sovan-Baisakhi: ‘না খেতে দিয়ে…!’, ভালোবাসার কাঙাল বৈশাখী, মনোজিতের খামতি পূরণ করেন শোভন

Sovan-Baisakhi: ‘না খেতে দিয়ে…!’, ভালোবাসার কাঙাল বৈশাখী, মনোজিতের খামতি পূরণ করেন শোভন

মনোজিত স্বামী হয়েও পারেননি, বৈশাখীকে ভালোবাসায় মুড়ে রেখেছেন সহবাস-সঙ্গী শোভন। 

মনোজিতের সঙ্গে বিয়েতে সুখ পাননি বৈশাখী! ভালোবাসার বদলে পেয়েছিলেন লাঞ্ছনা। তবে সেই অভাব পূরণ করেছেন শোভন। আগলে রেখেছেন প্রতি মুহূর্তে নিজের সহবাস-সঙ্গীকে। 

ব্যক্তিগত জীবন খোলা বইয়ের মতো বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের। অধ্যাপিকার সঙ্গে তাঁর আরেকটাও পরিচয় রয়েছে। আর সেটা হল শোভন চট্টোপাধ্যায়ের প্রেমিকা। সহবাস-সঙ্গী বললেও ভুল হয় না। আর এটা বলতে কখনও দ্বিধা করেন না বৈশাখী নিজেও। বরং স্পষ্ট জানিয়ে দেন, দুটো মানুষ ভালোবেসে সহবাস করলে তার কাছে হার মানতে পারে অনেক বৈবাহিক সম্পর্কও। অবশ্য শুধু মুখেই বলেন না। করেও দেখান। তাঁর আর শোভনের মধ্যেকার বোঝাপড়া সেই কথারই প্রমাণ দেয় বারবার। 

মনোজিতের সঙ্গে বিয়েতে সুখ পাননি! এখন যদিও ডিভোর্সি। তবে একটা সময় পার করে আসতে হয়েছে তাঁকে অনেক লাঞ্ছনা-গঞ্জনা। শারীরিক থেকে শুরু মানসিক-- সব ধরনের হেনস্থার শিকার হয়ে একসময় বরের বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন ছোট্ট মেয়েকে নিয়ে। একাধিকবার বৈশাখীর কথায় উঠে এসেছে সেই সময়ের স্মৃতি। 

বৈশাখী মনে করেন তিনি ভালোবাসার কাঙাল। আনন্দবাজারকে বললেন, ‘আমাকে না খেতে দিয়ে রেখে দিতে পারো তুমি। কিন্তু না ভালোবেসে, অবহেলায় রেখে দিলে আমি না নিতে পারি না। আমার ভিতরের মানুষটা একশোবার মরতে শুরু করে।’

তবে মনোজিতের থেকে যে ভালোবাসা পাননি তা পেয়েছেন শোভনের কাছ থেকে। বিয়ের কয়েকমাসের মধ্যেই বরের ঘর ছেড়েছিলেন বৈশাখী। বাবার তাঁর জন্য কিনে রাখা ফ্ল্যাটে চলে যান সোজা। যদিও পরে ক্ষমা চান মনোজিত। ফের একবার একসঙ্গে থাকতে শুরু করেন। সন্তান নেওয়া নিয়েও ভুগতেন সেইসময় দ্বিধায়। মনে সন্দেহ ছিল মনোজিত পারবে না ভালো বাবা হতে। মাকে বলেছিলেন, ‘এত খারাপ বর, সে খারাপ বাবা হতে বাধ্য’। সেইসময় বৈশাখীর মার মেয়েকে পরামর্শ ছিল, ‘তুই কি সত্যিই বাবার ভরসায় সন্তান বড় করবি!’ এমনকী বৈশাখীকে মহিলা কমিশনের তৎকালীন চেয়ারম্যানের কথাও বদলে দেয় বৈশাখীর চিন্তাভাবনা। যিনি বলেছিলেন, সব মা-ই একা মা। বাবারা পাশে থাকলেও, মায়েরাই একা হাতে বাচ্চা মানুষ করে। খুব কম ক্ষেত্রে অন্যথা হয়। 

যদিও বৈশাখীর দাবি, মহুলের জন্মের পরেও বদলাননি মনোজিত। গায়ে হাত তোলাও বন্ধ হয়নি। শেষমেশ মনোজিতকে ছাড়েন। মেয়েকে নিয়েই চলে আসেন। অবশ্য এই সবই এখন অতীত। মনোজিত জীবন থেকে চলে যাওয়ার পর পেয়েছেন শোভনের সাহচার্য। বাবার মতো আগলে রেখেছেন শোভন বৈশাখী-কন্যা মহুলকেও। এমনকী, মহুলকে দত্তক নেওয়ার কথাও ভেবে রেখেছেন। পালিতা কন্যার মেয়ের স্কুলের প্যারেন্ট টিচার মিটিংয়েও যান নিয়মিত। 

বৈশাখী আর শোভন এখন চান বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হতে। সম্পর্ককে দিতে সামাজিক ও আইনি স্বীকৃতি। মন থেকে অবশ্য একে-অপরকে স্বামী আর স্ত্রী করে নিয়েছেন আগেি। তবে রত্নার সঙ্গে ডিভোর্স না পাওয়া পর্যন্ত তা সম্ভব নয়। 

 

বায়োস্কোপ খবর

Latest News

কপিল শর্মার শো থেকে তাঁকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে? মুখ খুললেন বাঙালি কন্যা সুমনা ১২ ক্লাসে ফেল, ৭০০তে ৩৫২, সেই ছাত্রীই NEET-UG-তে পেলেন ৭২০তে ৭০৫ ‘বিচক্ষণ রায়’, কোটা কমে ৭% হতেই বললেন হাসিনারা, 'চোখ বেঁধে…’, ভয়ংকর দাবি ইসলামের পাড়ার বৌদির ছবি গোপনে তোলায় মামলা গড়ায় কলকাতা হাইকোর্টে, তারপর কী ঘটল?‌ পূণ্যযাত্রার পথে থাকা দোকানে নাম লিখতে হবে, যোগী সরকারের নির্দেশে আপত্তি শরিকদের খুনের চেষ্টার খবর পেয়ে তাঁকে ‘বিউটিফুল নোট’ পাঠিয়েছেন শি জিনপিং! বললেন ট্রাম্প ‘শান্তিপ্রিয়' বাংলাদেশ জ্বলছে! কোটার বিরোধী আন্দোলনে মৃত ১৬১ জন, মন কাঁদছে দেবের কোহলি প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য নিয়ে অমিত মিশ্রকে জড়িয়ে জলঘোলা হচ্ছে- ক্ষুব্ধ শামি ‘ওদের এত অহংকার কীসের? সব তো চূর্ণ হবে…’ রাহুলকে নিশানা করলেন শাহ ‘‌বুকে রক্ত থাকতে বিজেপির সঙ্গে তৃণমূল হাত মেলাবে না’‌, মঞ্চ থেকে হুঙ্কার মমতার

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.