বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > IFFI-তে ব্রাত্য ‘ডিকশনারি’, BJP-র বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ তুললেন পরিচালক-মন্ত্রী
বাদ পড়ল ডিকশনারি
বাদ পড়ল ডিকশনারি

IFFI-তে ব্রাত্য ‘ডিকশনারি’, BJP-র বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ তুললেন পরিচালক-মন্ত্রী

  • কর্তৃপক্ষের যুক্তি পরিচালকের নামের বানান ভুল থাকার জেরেই বাদ পড়ল ‘ডিকশনারি’। 

গত শুক্রবারই ঘোষিত হয়েছিল ৫২তম ইন্ডিয়ান ইন্টারন্যাশন্যাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ‘ইন্ডিয়ান প্যানোরমা’ বিভাগের ছবির তালিকা। সেখানে জায়গা করে নিয়েছিল বাংলার পাঁচটি ছবি-সহ মোট ২৫টি ছবি। কিন্তু আচমকাই সেই তালিকা থেকে ছেঁটে ফেলা হল পরিচালক তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর ‘ডিকশনারি’ ছবিটি। তিন মাস পর গোয়ায় নির্বাচন, সেখানে জমি তৈরির চেষ্টা করছে তৃণমূল। এর মাঝেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সহযোদ্ধার ছবি প্রদর্শনী শেষ মুহূর্তে আটকে গেল গোয়ায় অনুষ্ঠিত হওয়া দেশের সবচেয়ে চর্চিত ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে। কেন্দ্রীয় তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রক এবং গোয়া সরকারের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই ছবি উত্সব শুরু হবে আগামী ২০ শে নভেম্বর।

কেন বাদ পড়ল ‘ডিকশনারি’? এই বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন পরিচালক ব্রাত্য এবং ছবির প্রযোজক ফিরদৌসল হাসান। পরিচালক জানিয়েছেন, ইফির তরফে ছবি বাদ দেওার কারণ হিসাবে, ৬ই নভেম্বর রাতে ই-মেল মারফত জানানো হয়েছে ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার তরফে যখন এই ছবি জুরিদের কাছে সুপারিশ করা হয়েছিল তখন সেখানে তাঁদের চিঠিতে উল্লেখিত পরিচালকের নাম (ব্রাত্যর জায়গায় দত্ত) এবং প্রযোজক সংস্থার পূরণ করা এন্ট্রি ফর্মে পরিচালকের নামের বানান এক নয়। সেই ‘সিরিয়াস ফ্ল’-এর জন্যই ছবির মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। ফেডারেশনের তরফে মনোনয়ন বাতিলের সিদ্ধান্ত পুর্নবিবেচনা করবার অনুরোধও খারিজ করে ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ডাইরেক্টোরেট।ব্রাত্য বসু জানান,  ‘পরে আমার প্রযোজককে বলে আপনার যে কোনও ছবি পাঠান। অন্য যে কোনও ছবি, কিন্তু ডিকশনারি নয়’। 

কেন্দ্রের দিকে আঙুল তুলে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীর অভিযোগ, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে তাঁর ছবি বাদ দেওয়া হল। এবং এই বাদ দেওয়ার কারণ 'অত্যন্ত হাস্যকর'। 

তিনি আরও যোগ করেন, ‘ছবিটি নির্বাচিত হওয়ার আগে তাঁরা হয়ত বুঝতে পারেননি। তার পর তাঁদের কাছে আমার রাজনৈতিক পরিচয় গিয়েছে। এবং ছবিটি বাদ দেওয়া হয়েছে।…আমার একটা রাজনৈতিক পরিচয় অবশ্যই রয়েছে। আমি সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সদস্য। আমার নেত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার জন্য যদি আপনারা ছবি বাদ দিতে চান দিন। তবে আমার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ও বিজেপি বিরোধিতা অব্যাহত থাকবে’। 

গোয়া নির্বাচনকে তৃণমূল পাখির চোখ করাতেই কি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে সে রাজ্যের চলচ্চিত্র উত্সব থেকে বাদ বাংলার শিক্ষামন্ত্রীর ছবি? পরিচালক বললেন, ‘গোয়ায় আমরা যাবই, সরকারও গঠন করব। এটা অবশ্যই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে করা হয়েছে। আমার রাজনৈতিক পরিচয় ওনাদের কাছে সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’ যদিও ব্রাত্য বসুর এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার। 

‘ডিকশনারি’র শুধু পরিচালকেরই রাজনৈতিক পরিচয় রয়েছে তেমনটা নয়, ছবির লিডিং লেডিও তৃণমূলের সাংসদ। এই ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন নুসরত জাহান, আবির চট্টোপাধ্যায় এবং বাংলাদেশি অভিনেতা মোশারফ করিম। চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পেয়েছিল এই ছবি। 

বন্ধ করুন