বাড়ি > বায়োস্কোপ > আত্মহত্যা সুশান্ত ভক্তের! সইতে পারল না প্রিয় তারকার মৃত্যুশোক,ঘটনা বরেলির: রিপোর্ট
সুশান্ত সিং রাজপুত (ফাইল ছবি, সৌজন্য এপি)
সুশান্ত সিং রাজপুত (ফাইল ছবি, সৌজন্য এপি)

আত্মহত্যা সুশান্ত ভক্তের! সইতে পারল না প্রিয় তারকার মৃত্যুশোক,ঘটনা বরেলির: রিপোর্ট

  • জানা গিয়েছে মৃত্যুর আগে দশম শ্রেণির ওই ছাত্র সুইসাইড নোটে লিখে গিয়েছে, সুশান্ত পারলে আমিও পারব'।

সুশান্তকে ঘিরেই ছিল তাঁর স্বপ্ন। ভীষণ ভালোবাসত পর্দার ধোনিকে। স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছিল এই মানুষটা। অথচ সেই এভাবে ফাঁকি নিয়ে চলে যাবে তা বুঝতে পারেনি উত্তরপ্রদেশের বরেলির দশম শ্রেণির ছাত্র। সুশান্ত সিং রাজপুতের এই ভক্ত সহ্য করতে পারেনি সুশান্তের আত্মহত্যার খবর।তাই নিজের জীবন শেষ করে দিল সে, খবর টাইমস অফ ইন্ডিয়া সূত্রে।

জানা গিয়েছে, আত্মহত্যার আগে একটি সুইসাইড নোটও লিখে গিয়েছে সে,যেখানে লেখা রয়েছে ‘যদি সুশান্ত পারে তাহলে আমি কেন পারব না’। 

রবিবার মুম্বইয়ের বান্দ্রার অ্যাপার্টমেন্টে উদ্ধার হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের ঝুলন্ত দেহ। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট বলছে আত্মহত্যাই করেছেন অভিনেতা। এই খবর সামনে আসার পর থেকেই 'শকড' গোটা দেশ। মাত্র ৩৪ বছর বয়সে একটা উজ্জ্বল নক্ষত্রে এইভাবে নিভে যাবে তা বোধহয় কেউই কল্পনা করেনি।  এবার এল সুশান্তের অনুরাগীর আত্মহত্যার খবর!

সুশান্তের মৃত্যুশোকের ধাক্কা সামলাতে না পেরে গতকাই মৃত্যু হয় সুশান্তের বৌদি সুধা দেবীরও।সুশান্তের তুতো দাদার স্ত্রী সুধা দেবী। অভিনেতার আদি বাড়ি বিহারের পূর্ণিয়া জেলায়,সেখানেই থাকতেন তিনি।মুম্বইতে সুশান্তের শেষকৃত্যের সময় নাকি মৃত্যু হয়েছে সুধা দেবীর। প্রিয় দেওরের অকাল মৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না। রবিবার সুশান্তের আত্মহত্যার খবর পৌঁছানোর পর থেকেই খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

সুশান্তের মৃত্যুর জন্য বলিউডের অন্দরে থাকা নেপটিজমকেই দুষেছেন কঙ্গনা রানাওয়াত,রণবীর শোরে, শেখর কাপুররা। সুশান্তের ফ্ল্যাট থেকে মেলেনি কোনও সুইসাইড নোট।কিন্তু পুলিশ জানিয়েছে এটা প্রমাণিত ক্লিনিক্যাল ডিপ্রেশনে ভুগছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। মনোবিদের পরামর্শ নিচ্ছিলেন,তাঁর অ্যাপর্টমেন্ট থেকে মিলেছে প্রেসক্রিবশন,ওষুধ, জানিয়েছে মুম্বই পুলিশ।সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে সোমবার বড়সড় মন্তব্য করেন মহারাষ্ট্রের গৃহমন্ত্রী অনিল দেশমুখ। তিনি টুইট বার্তায় লেখেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট বলছে অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত সুইসাইড করেছেন, গলায় ফাঁস লাগিয়ে। অনেক মিডিয়া রিপোর্ট বলছে পেশাদার জীবনে রেষারেষির কারণেই নাকি ক্লিনিক্যাল ডিপ্রেশনে চলে যান সুশান্ত,সেই দিকটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ,পূর্ন তদন্ত হবে।

বক্স অফিসে সুশান্তের শেষ ছবি ছিল ছিঁছোড়ে,যদিও তাঁর শেষ ছবি নেটফ্লিক্স অরিজিন্যাসের ড্রাইভ যা মুক্তি পায় গত বছর ডিসেম্বরে।

 

বন্ধ করুন