বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ওয়ান নাইট স্ট্যান্ডে বিশ্বাসী নন,প্রথম দেখায় কোনও পুরুষকেই মনে ধরেনি ঐশ্বর্যর
ঐশ্বর্য রাই বচ্চন 
ঐশ্বর্য রাই বচ্চন 

ওয়ান নাইট স্ট্যান্ডে বিশ্বাসী নন,প্রথম দেখায় কোনও পুরুষকেই মনে ধরেনি ঐশ্বর্যর

  • প্রেম সম্পর্ক নিয়ে বরাবরই সচেতন ঐশ্বর্য। কেরিয়ারের শুরুর দিকেই এব্যাপারে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছিলেন রাই সুন্দরী। 

অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে সুখী গৃহকোণ ঐশ্বর্যর। ১৪ বছরের দাম্পত্য সম্পর্ক তাঁদের, মেয়ে আরাধ্যাকে নিয়ে পরিপূর্ণ ঐশ্বর্য-অভিষেকের পরিবার। পঞ্চাশ ছুঁইছুঁই নীল নয়না সুন্দরীর প্রেমেে আজও হাবুডুবু খান লক্ষ পুরুষ ভক্ত। ১৯৯৪ সালে মিস ওয়ার্ল্ডের তাজ জয়ের সঙ্গেই শোবিজ দুনিয়ায় আলোড়ন তৈরি করেছিলেন অ্যাশ। কেরিয়ারের গোড়ার দিকেই প্রেম এবং সম্পর্কে জড়িত থাকবার বিষয় নিয়ে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেছিলেন ঐশ্বর্য। জানিয়েছেন প্রেম দেখায় কোনওদিন কোনও পুরুষের প্রেমে পড়েননি তিনি। 

আজ থেকে প্রায় ২২ বছর আগে, ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে ঐশ্বর্য জানান, ‘আমি কোনওদিন প্রথমবার কোনও পুরুষকে দেখে তাঁর প্রেমে পাগল হয়ে যায়নি। এটা এক্কেবারেই আমার ধ্যানধারণা নয়। আমার জন্য জরুরি হচ্ছে একটা দীর্ঘ সময় ধরে সেই মানুষটাকে জানা, তারপরই আমি তাঁর সম্পর্কে গভীরভাবে ভাবনাচিন্তা শুরু করি। প্রেমে পড়লে সেটা তোমার ভিতরের আবেগের বিস্ফোরণ ঘটায়, আমি জানি কখন আমি প্রেমে পড়েছি। সেইসময় অবশ্যই সবটা উজাড় করে দেব। তবে আমি কোনও অসাড় সম্পর্কে জড়ানো কিংবা ওয়ান নাইট স্ট্যান্ডে বিশ্বাসী নই। এইগুলোর জন্য আমি মানসিকভাবেই প্রস্তুত নই কোনওদিন’। 

১৯৯৯ সালের ওই সাক্ষাত্কারে নিজের সম্পর্কে প্রচলিত বহু ধারণা নিয়েও অকপটে কথা বলেন ঐশ্বর্য। অপরূপা হওয়ার জেরে কী ঐশ্বর্যর গুণের কথাগুলো মানুষ ভুলে যান? অভিনেত্রী বলেন, ‘দেখুন, আমি তো জন্মগতভাবেই যে রূপ নিয়ে জন্মেছি তা পালটে দিতে পারব না। ভগবান আমাকে এইরকমই তৈরি করেছেন।কিন্তু সেটার সঙ্গে আমার কাজের কোনও সম্পর্ক নেই। আমি কঠোর পরিশ্রমী, পেশাদার। এখনও পর্যন্ত মাত্র তিনটে ছবিতে কাজ করেছি। আমার কোনও পরিচালক আমার নামে অভিযোগ আনতে পারবেন না’। 

কেরিয়ারের শুরুর দিকে সলমন খানের সঙ্গে ঐশ্বর্যর প্রেম সম্পর্ক নিয়ে বলিউডে কমচর্চা হয়নি। এরপর বিবেক ওবেরয়ের সঙ্গেও প্রাক্তন বিশ্ব সুন্দরীর প্রেমের গল্প ঘোরফেরা করেছে বি-টাউনের সর্বত্র। গত দু-দশকেরও বেশি সময় ধরে বলিউডে একাধিক হিট ছবি উপহার দিয়েছেন ঐশ্বর্য। ‘হাম দিল দে চুকে সনম’, ‘মহব্বতে’, ‘দেবদাস’, ‘ধুম ২’, ‘গুরু’, ‘যোধা-আকবর’ অ্যাশের কেরিয়ারের অন্যতম মাইলস্টোন। ২০১১ সালে আরাধ্যার জন্মের পর ছবি থেকে দীর্ঘ বিরতি নেন বচ্চন বধূ। 

গত ১০ বছরে মাত্র চারটি ছবিতে অভিনয় করেছেন অভিষেক ঘরনি। বক্স অফিসে নায়িকার শেষ ছবি ছিল ‘ফান্নে খান’। পরবর্তীতে ঐশ্বর্য রাই বচ্চনকে দেখা যাবে মণিরত্নমের তামিল ছবি, পুণ্যিয়ানি সেলভান (Ponniyin Selvan)এ। ‘পুণ্যিয়ানি সেলভান’ (Ponniyin Selvan)-এ দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে অ্যাশকে। তামিল লেখক কল্কি কৃষ্ণমূর্তির ঐতিহাসিক উপন্যাস ‘পুণ্যিয়ানি সেলভান’ অবলম্বনে সিনেমা তৈরি করছেন মনি। তামিল এবং হিন্দি এই দুটি ভাষাতেই হবে সিনেমাটি তেমনটাই জানা গিয়েছে। এর আগে মণিরত্নমের পরিচালনায় গুরু,রাবণ-এর মতো ছবিতে অভিনয় করেছেন ঐশ্বর্য।

বন্ধ করুন