মাত্র ৩৪ বছর বয়সে নিভে গেল চিকিত্সক লি ওয়েনলিয়াংয়ের জীবনদীপ।
মাত্র ৩৪ বছর বয়সে নিভে গেল চিকিত্সক লি ওয়েনলিয়াংয়ের জীবনদীপ।

মারা গেলেন করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রথম সতর্কতা জারি করা সেই চিকিত্সক

করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রথম যিনি সচেতন করেছিলেন ও তার জেরে গ্রেফতার হয়েছিলেন, চিনের সেই চিকিত্সকের মৃত্যু হল মারণজীবাণু সংক্রমণেই।

করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রথম যিনি সচেতন করেছিলেন ও তার জেরে গ্রেফতার হয়েছিলেন, চিনের সেই চিকিত্সকের মৃত্যু হল মারণজীবাণু সংক্রমণেই। মাত্র ৩৪ বছর বয়সে নিভে গেল চিকিত্সক লি ওয়েনলিয়াংয়ের জীবনদীপ।

গত ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসে নিজের বন্ধুদের গ্রুপে প্রথম উহান শহরে ‘সার্স-এর (SARS) মতো অসুখ’ ছড়ানো সম্পর্কে ওই উই চ্যাট গ্রুপে বার্তা দিয়ে সতর্ক করেছিলেন লি। সেই বার্তা ক্রমে ভাইরাল হয়ে যায়। উল্লেখ্য, ২০০২-২০০৩ সালে সার্স-এর শিকার হন কয়েক হাজার মানুষ। অসুখ মহামারীতে রূপান্তরিত হলেও তা ধামাচাপা দেয় চিন সরকার।

ঘটনার জেরে নবীন চিকিত্সক ও তাঁর বন্ধুদের থানায় ডেকে এনে গুজব রটানো এবং অমূলক আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগে আটক করে পুলিশ। পরে মুচলেকা আদায়ের পর তাঁদের রেহাই দেওয়া হয়। পুলিশের কব্জা থেকে মুক্তি পাওয়ার পরে অজানা রোগ সম্পর্কে পুরোদমে গবেষণায় নামেন চিকিত্সক লি।

এই সময় এক রোগী চোখের সমস্যা নিয়ে উহানের হাসপাতালে ভরতি হলে তাঁর চিকিত্সায় নিযুক্ত হন লি। সেই রোগীর শরীরে আসলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছিল যা সেই সময় বোঝা যায়নি। তাঁর থেকেই রোগ ছড়ায় চিকিত্সক লিয়ের শরীরে।


আরও পড়ুন: করোনা-আতঙ্কের মাঝেই মেদিনীপুরে বিয়ে সারলেন চিনা যুবতী


গত ১২ জানুয়ারি তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে ইনটেন্সিভ কেয়ার বিভাগে স্থানান্তর করা হয়। ১ ফেব্রুয়ারি তাঁর শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি প্রমাণিত হয়। শুক্রবার রাতে তিনি মারা যান।

লি ওয়েনলিয়াংয়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) জানিয়েছে, পুনেতে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি-সহ কোরানভাইরাস সংক্রান্ত গবেষণার জন্য বিশ্বে ১৫টি গবেষণাগার তৈরি করা হয়েছে। রোগীদের নমুনা গবেষণাগারে পৌঁছে দেওয়ার জন্য গ্লোবাল ইনফ্লুয়েঞ্জা সার্ভেইলেন্স অ্যান্ড রেসপন্স সিস্টেমের অন্তর্গত শিপিং ফান্ড প্রোগ্রাম কাজে লাগানো হবে বলে জানিয়েছে WHO।

শুক্রবার চিনের স্বাস্থ্যকর্তারা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬১৮-তে। তিরিশ হাজারের বেশি রোগী বর্তমানে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে শুধুমাত্র হুবেই প্রদেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২,১১২ জনে।

লি ওয়েনলিয়াংয়ের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন চিনের টুইটার সদৃশ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ওয়েইবো-এর ইউজাররা। নোভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইতে তাঁকে ‘শহিদ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন নেটিজেনরা।

বন্ধ করুন