বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > আলোচনা করতে দিল না সংসদে, বিরোধীদের মুখ বন্ধ করার চেষ্টা, পালটা তোপ কংগ্রেসের
অধিবেশন স্থগিত হয়ে যাওয়ার পরে বেরিয়ে আসছেন কংগ্রেস সাংসদরা।(PTI) (PTI)

আলোচনা করতে দিল না সংসদে, বিরোধীদের মুখ বন্ধ করার চেষ্টা, পালটা তোপ কংগ্রেসের

  • রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, আমরা বহু বিষয় নিয়ে সংসদে তোলার ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আর সেদিনই ১২জন এমপিকে সাসপেন্ড করা হল

নির্ধারিত দিনের আগেই শেষ করে দেওয়া হয়েছে শীতকালীন অধিবেশন। এবার এনিয়ে মুখ খুলেছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে, অধীর রঞ্জন চৌধুরী, জয়রাম রমেশ এনিয়ে সরকারকে নিশানা করেছেন। তাঁদের সাফ কথা, সরকার প্রতিবাদীদের কণ্ঠরোধ করতে চাইছে। তাঁদের দাবি সরকার কোনও বিষয় নিয়ে আলোচনা শুনতে চাইছে না। সেকারণেই নানা পদ্ধতি প্রয়োগ করছে। 

রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, আমরা বহু বিষয় নিয়ে সংসদে তোলার ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আর সেদিনই ১২জন এমপিকে সাসপেন্ড করা হল যাঁরা সরকারের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছিলেন। উচ্চ কক্ষে মেজরিটি পাওয়ার জন্য গত অধিবেশনে যারা আওয়াজ তুলেছিলেন তাদের কালো তালিকাভুক্ত করল শাসকদল। এটা অসংসদীয় পদক্ষেপ, দাবি করেছেন খাড়গে। কেন্দ্র জানত আমরা লখিমপুর খেরির ঘটনা তুলব। সেকারণে সংসদে নানা সময় নষ্ট করে আচমকা স্থগিত করে দিল। আর এখন বলছে বিরোধীদের হট্টগোলে স্থগিত করে দিয়েছে।

 অধীররঞ্জন চৌধুরী ও জয়রাম রমেশের দাবি, বিরোধীরা কথা বললেই সংসদ স্থগিত করে দেওয়া হচ্ছে। কারণ সরকার চাইছে না চিন ইস্য়ু, অনুপ্রবেশ, লখিমপুরের ঘটনা সংসদে উঠুক। প্রসঙ্গত নির্ধারিত দিনের আগেই বুধবার লোকসভা ও রাজ্যসভার শীতকালীন অধিবেশন স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে এদিন। 

 

নির্ধারিত দিনের আগেই শেষ করে দেওয়া হয়েছে শীতকালীন অধিবেশন। এবার এনিয়ে মুখ খুলেছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে, অধীর রঞ্জন চৌধুরী, জয়রাম রমেশ এনিয়ে সরকারকে নিশানা করেছেন। তাঁদের সাফ কথা সরকার প্রতিবাদীদের কণ্ঠরোধ করতে চাইছে। তাঁদের দাবি সরকার কোনও বিষয় নিয়ে আলোচনা শুনতে চাইছে না। সেকারণেই নানা পদ্ধতি নিয়েছে। 

রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, আমরা বহু বিষয় নিয়ে সংসদে তোলার ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আর সেদিনই ১২জন এমপিকে সাসপেন্ড করা হল যাঁরা সরকারের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছিলেন। উচ্চ কক্ষে মেজরিটি পাওয়ার জন্য গত অধিবেশনে যারা আওয়াজ তুলেছিলেন তাদের কালো তালিকাভুক্ত করল শাসকদল। এটা অসংসদীয় পদক্ষেপ দাবি করেছেন খাড়গে। কেন্দ্র জানত আমরা লখিংপুর খেরির ঘটনা তুলব। সেকারণে সংসদে নানা সময় নষ্ট করে আচমকা স্থগিত করে দিল। আর এখন বলছে বিরোধীদের হট্টগোলে স্থগিত করে দিয়েছে। অধীররঞ্জন চৌধুরী ও জয়রাম রমেশের দাবি, বিরোধীরা কথা বললেই সংসদ স্থগিত করে দেওয়া হচ্ছে। কারণ সরকার চাইছে না চিন ইস্য়ু, অনুপ্রবেশ, লখিমপুরের ঘটনা সংসদে উঠুক। প্রসঙ্গত নির্ধারিত দিনের আগেই বুধবার লোকসভা ও রাজ্যসভার শীতকালীন অধিবেশন স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে এদিন। 

|#+|

 

বন্ধ করুন