বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'দিল্লিতে বড় সেটিং! Modi-Mamata মিটিং মানেই ম্যাচ ফিক্সিং,' সরব বিরোধীরা
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে পিটিআই)

'দিল্লিতে বড় সেটিং! Modi-Mamata মিটিং মানেই ম্যাচ ফিক্সিং,' সরব বিরোধীরা

  • সেটিংয়ের অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যও কংগ্রেসের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতেন। তিনিও কি ম্যাচ ফিক্সিং করতেন?

তন্ময় চট্টোপাধ্যায়

তৃণমূলের প্রাক্তন মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় ইডির হেফাজতে। একাধিক তৃণমূল নেতা সিবিআইয়ের রেডারে। তবে কি সেটিং করতে এবার দিল্লি গেলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী? এই প্রশ্নটাই এখন বঙ্গ রাজনীতির চর্চার বড় বিষয়।

বৃহস্পতিবার বিকালে ভাইপো তথা তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে দিল্লি যান মুখ্যমন্ত্রী। সংসদে দলের রণকৌশল ঠিক করতে তিনি সাংসদদের নিয়ে বৈঠকে বসেন। ঝাড়খণ্ডের বিধায়কদের গ্রেফতার, বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রসঙ্গও ওঠে এই বৈঠকে।

শুক্রবার বিকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর দেখা করার কথা রয়েছে। এনিয়েই এবার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তুলেছেন বিরোধীরা। কংগ্রেস নেতা রিজু ঘোষাল বলেন, ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের সময় থেকেই এই ম্যাচ ফিক্সিং চলছে। ইডি অভিষেককে মাত্র দুবার জেরা করেছে। আর ইডি সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধীকে রোজ জেরা করে হয়রানি করছে। কংগ্রেসকে দুর্বল করতে টিএমসিকে শক্তিশালী করতে চাইছে বিজেপি।

সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম জানিয়েছেন, ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অঙ্গ এই মিটিং। বলা হচ্ছে রাজ্যের ব্যাপারে কথা বলতে তিনি মোদীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছেন। কিন্তু তার জন্য কেন একান্তে সাক্ষাৎ? আমলাদের থাকা উচিত ছিল। এটা সচিব পর্যায়ের মিটিং কেন নয়? এসব সেটিংয়ের অঙ্গ। পাবলিককে বোকা বানাতে চাইছেন।

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মিটিং করে সুযোগ খোঁজেন প্রতিবার। আমরা চাই কেন্দ্র যেন তার পরিকল্পনায় সহায়তা না করে।

তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যও কংগ্রেসের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতেন। তিনিও কি ম্যাচ ফিক্সিং করতেন?

 

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন