বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > গত ২০ বছরে উত্তরপূর্বের সাত রাজ্যে হু হু করে কমেছে সবুজের পরিমাণ,শোরগোল সমীক্ষায়
উত্তরপূর্বের সাতরাজ্যে গত দুই দশকে কমেছে জঙ্গলের পরিমাণ
উত্তরপূর্বের সাতরাজ্যে গত দুই দশকে কমেছে জঙ্গলের পরিমাণ

গত ২০ বছরে উত্তরপূর্বের সাত রাজ্যে হু হু করে কমেছে সবুজের পরিমাণ,শোরগোল সমীক্ষায়

  • বিজ্ঞানীদের দাবি মানুষের পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবেও গাছ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। দাবানলের জেরেও ধ্বংসের মুখে পড়তে পারে বনাঞ্চল।

ছাউনির মতো দাঁড়িয়ে থাকা গাছের সারি। দেশের অন্যতম প্রাকৃতিক সম্পদ। আর সাম্প্রতিক সমীক্ষায় সেই সবুজের পরিমাণকে ঘিরেই উঠে আসছে ভয়াবহ তথ্য। দেশে প্রায় ২ মিলিয়ন হেক্টর গাছ কমে গিয়েছে গত দুই দশকে। ২০০০ সাল থেকে প্রায় ৫ শতাংশ গাছ কমেছে দেশ জুড়ে। এদিকে আন্তর্জাতিক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে উত্তর পূর্ব ভারতের সাতটি জেলায় প্রায় তিন চতুর্থাংশ গাছ কমে গিয়েছে। আমেরিকার মেরিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে। প্রচুর উপগ্রহ চিত্র নিয়ে গবেষণা করা হয়েছে। তার জেরেই দেখা গিয়েছে, গত দুই দশকে উদ্বেগজনকভাবে গাছ কমেছে উত্তরপূর্বভারতের বিভিন্ন রাজ্য়ে।

বিজ্ঞানীদের দাবি মানুষের পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবেও গাছ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। দাবানলের জেরেও ধ্বংসের মুখে পড়তে পারে বনাঞ্চল। তাৎপর্যপূর্ণভাবে গাছের ছাউনি হারানোর ক্ষেত্রে সবার উপরে যে ১০টি রাজ্য রয়েছে তার মধ্য়ে উত্তর পূর্বের ৭টি রাজ্য একেবারে উপরের দিকে রয়েছে। গত ২০ বছর ধরে এই গাছ ধ্বংস হয়েছে। এই সমীক্ষায় প্রথম ১০টির তালিকায়  সপ্তম স্থানে রয়েছে ওড়িশা, কেরল নবম স্থানে ও ছত্তিশগড় দশম স্থানে রয়েছে। সমীক্ষা অনুসারে শুধু অসমেই সব থেকে বেশি গাছ নষ্ট হয়ে গিয়েছে। ২০০০ সালের তুলনায় প্রায় ৯.৮ শতাংশ গাছ কমে গিয়েছে অসমে। অসমের কারবি আলং ও ডিমা হাসাওতে সবথেকে বেশি গাছ নষ্ট হয়েছে। মিজোরামের পাশাপাশি নাগাল্যান্ড, অরুণাচল প্রদেশ,মনিপুর, মেঘালয়, ত্রিপুরাতেও গাছের ছাউনি কমেছে, যা যথেষ্ট উদ্বেগের। 

 

বন্ধ করুন