বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'বাড়াবাড়ি করলে অভিযান', মলডোভাকে হুমকি রাশিয়ার
ছবি: ডয়চে ভেল

'বাড়াবাড়ি করলে অভিযান', মলডোভাকে হুমকি রাশিয়ার

  • সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ ছিল মলডোভা। পরে তা আলাদা দেশে পরিণত হয়। তবে রাশিয়ার সীমান্তে ট্রান্সনিস্ট্রিয়া নিয়ে সমস্যা থেকেই গিয়েছে। রুশভাষী ট্রান্সনিস্ট্রিয়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী সক্রিয়।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হুমকি দিয়েছেন। ট্রান্সনিস্ট্রিয়ায় মলডোভা বাড়াবাড়ি করলে রাশিয়া সেনা অভিযানে বাধ্য হবে বলে জানানো হয়েছে। একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় মলডোভাকে আক্রমণ করেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভরভ। তিনি বলেছেন, ট্রান্সনিস্ট্রিয়া সমস্যা নিয়ে মলডোভা মূলত পশ্চিমের কথা শুনছে। আমেরিকা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন তাদের চালনা করছে। মলডোভা বিষয়টি নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে কথা বলছে না। তারা ওই অঞ্চলে সেনা পর্যন্ত পাঠিয়ে রেখেছে। এর ফল ভালো হবে না জানিয়েছেন লাভরভ। এমন চললে রাশিয়া সেনা পাঠাতে বাধ্য হবে বলে হুমকি দিয়েছেন তিনি।

সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ ছিল মলডোভা। পরে তা আলাদা দেশে পরিণত হয়। তবে রাশিয়ার সীমান্তে ট্রান্সনিস্ট্রিয়া নিয়ে সমস্যা থেকেই গিয়েছে। রুশভাষী ট্রান্সনিস্ট্রিয়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী সক্রিয়। তারা মলডোভা থেকে আলাদা হতে চায়। রাশিয়া এই বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মদত দেয় বলে অভিযোগ। বস্তুত, ইউক্রেনের কিছু অংশের মতো মলডোভার এই জায়গাটিও রাশিয়া তাদের দখলে নিতে চায়। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সমস্যা চলছে।

সম্প্রতি ট্রান্সনিস্ট্রিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা মলডোভাকে একটি চিঠি দেয়। সেখানে শান্তিপূর্ণ আলোচনার প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু মলডোভা সেই চিঠির কোনও জবাব দেয়নি। ট্রান্সনিস্ট্রিয়া নিয়ে যাবতীয় আলোচনা মলডোভা ব্যুরো অফ রিইন্টিগ্রেশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে করে। তারা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চায় না। আর সেখানেই রাশিয়ার রাগ।

লাভরভ জানিয়েছেন, মলডোভার ইউরোপপন্থি প্রেসিডেন্ট মাইয়া স্যান্ডু আসল সমস্যাটি উপেক্ষা করছেন। তিনি অ্যামেরিকা এবং ইউরোপের কথায় চলছেন। এর ফল মলডোভাকে ভুগতে হবে। রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় না বসলে এবং ট্রান্সনিস্ট্রিয়া থেকে সেনা না সরালে লড়াই অনিবার্য। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, ঠিক এই কায়দাতেই এক সময় ইউক্রেনকে হুমকি দিত রাশিয়া।

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন