বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মোদীর বিরুদ্ধে বদলার রাজনীতির বিরোধিতা করেছিলেন একসময় ! মুখ খুললেন শরদ
মোদীর বিরুদ্ধে বদলার রাজনীতির বিরোধিতা করেছিলেন একসময় ! মুখ খুললেন শরদ পাওয়ার

মোদীর বিরুদ্ধে বদলার রাজনীতির বিরোধিতা করেছিলেন একসময় ! মুখ খুললেন শরদ

ইউপিএ নিয়ে মুখ খুলে মারাঠা স্ট্রংম্যান একাধিক বক্তব্য রেখেছেন।

যে সময়ের প্রসঙ্গ 'মারাঠা স্ট্রংম্যান' শরদ পাওয়ারের কথায় উঠে এসেছে, সেই সময়কালে নরেন্দ্র মোদী ছিলেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী আর তখন দিল্লির সরকারে ইউপিএ। সেই সময় মনমোহন সিংয়ের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারের মন্ত্রী ছিলেন এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার। এক সংবাদমাধ্যম আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে শরদ পাওয়ার বুধবার রাতে মোদী সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন, তাতে কার্যত রাজনীতির আঙিনায় দোলাচল তৈরি করেছে। এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার বলেন, ইউপিএ সরকারে থাকাকালীন তিনি ও মনমোহন সিং , মোদীর বিরুদ্ধে যাবতীয় প্রতিহিংসার রাজনীতির বিরোধী ছিলেন।

শিবসেনা-কংগ্রেস-এনসিপি জোট শিবির যখন মহারাষ্ট্রের বুকে জোরদার বিজেপি বিরোধিতায় সরব, তখন এনসিপি প্রধানের তরফে মোদী স্তূতি উঠে আসার ঘটনা কতটা প্রাসঙ্গিক , তা নিয়ে জোর চর্চা জারি। উল্লেখ্য, ২০০৪ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত দিল্লির তখতে তখন ছিল ইউপিএ সরকার। মনোমহন সিংয়ের প্রধানমন্ত্রিত্বে তখন সরকারের ঘোর বিরোধিতায় নামেন তৎকালীন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিকে, মনমোহন সিং সরকারের কৃষিমন্ত্রকের দায়িত্বে তখন শরদ পাওয়ার। সেই প্রসঙ্গ তুলে শরদ পাওয়ার বলেন, তিনি ছাড়া তখন ইউপিএ সরকারের কোনও মন্ত্রীর ক্ষমতা ছিল না, যে মোদীর সঙ্গে কথা বলেন। মোদী তখন এতটাই মনমোহন বিরোধিতায় মশগুল ছিলেন যে, বিপক্ষের কেউ তাঁর সঙ্গে আলোচনায় বসতে প্রস্তূত ছিলেন না, ব্যাখ্যার সুরে বলেন শরদ পাওয়ার। তিনি বলেন, 'যখন মোদী ছিলেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী, তখন আমি ছিলাম কেন্দ্রে। যখন প্রধানমন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করতেন, তখন মোদী বিজেপি শাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করতেন।' শরদ পাওয়ার বলেন, এরপরই তৎকালীন কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা মোদীকে রোখার স্ট্র্যাটেজিতে বসে।

এদিকে, ওই সংবাদমাধ্যমের অনুষ্ঠানে শরদ পাওয়ারের কাছে প্রশ্ন যায় যে, তিনি ও মনমোহন সিং কি মোদীর বিরুদ্ধে কোনও রকমের পদক্ষেপ নেওয়ার বিরোধিতা করেছিলেন? উত্তরে মহারাষ্ট্র স্ট্রংম্যান বলেন, 'এটা আংশিক সত্য।' মোদীকে রোখা প্রসঙ্গে মন্ত্রিসভার বৈঠকে কী ঘটত তা বর্ণনা করে শরদ বলেন, 'আমি বৈঠকগুলিতে বলতাম, আমাদের ভুললে চলবে না যে উনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী। মানুষ তাঁকে ভোট দিয়েছে।' একই সঙ্গে শরদ পাওয়ার বলেন, 'আমি ও সিং (মনমোহন সিং) এই মতে বিশ্বাসী ছিলাম যে আমাদের প্রতিহিংসার রাজনীতি করা উচিত নয় ( তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মোদীর বিরুদ্ধে)। '  এই ইস্যুতে যে মনমোহন সিংকে তিনি পাশে পেয়েছিলেন তা অনুষ্ঠানে জানান শরদ পাওয়ার।  ৮১ বছরের এই বর্ষীয়ান এনসিপি নেতা বলেন, তিনি বারবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে বলেন যে, যদি কোনও ইস্যু নিয়ে মোদী আসেন, তাহলে এটা জাতির স্বার্থে তাঁদের দায়িত্ব সেই সমস্যার সমাধান করা। শরদ পাওয়ার বলেন, তিনিই একমাত্র কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন যিনি গুজরাতে গিয়ে তখন বিভিন্ন ইস্যু পরিদর্শন করতেন।

ওই অনুষ্ঠানে শরদ পাওয়ারের মুখে মোদীর ভূয়সী প্রশংসাও উঠে আসে। তিনি মোদীর প্রশংসা করে বলেন, উনি কোনও কাজ একবার শুরু করলে তা শেষ করে ছাড়েন। শরদ পাওয়ার বলেন, 'ওঁর স্বভাবই এমন যে একবার যদি উনি কোনও কাজে হাত দেন, তখন এটা সুনিশ্চিত করে ফেলেন যে , যতক্ষণ না কাজ শেষ হচ্ছে , ততক্ষণ উনি থামবেন না। প্রশাসনের ওপর ওঁর খুব পোক্ত নিয়ন্ত্রণ রয়েছে, যা ওঁর পক্ষে ভালো দিক। '

বন্ধ করুন