বাংলা নিউজ > ময়দান > Asia Cup Final 2022: দেখ কে চলো- পাকিস্তানের জঘন্য ফিল্ডিং, মজা নিল দিল্লি পুলিশ- ভিডিয়ো
শাদাবা খান এবং আসিফ আলি একসঙ্গে একটি ক্যাচ ধরতে গিয়ে গড়াগড়ি খান।

Asia Cup Final 2022: দেখ কে চলো- পাকিস্তানের জঘন্য ফিল্ডিং, মজা নিল দিল্লি পুলিশ- ভিডিয়ো

  • শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ১৯তম ওভারে বল করছিলেন মহম্মদ হাসনাইন। ষষ্ঠ বলে ডিপ মিডউইকেটে বড় শট খেলেন ভানুকা রাজাপক্ষে। সেই ক্যাচ ধরতে ছুটছিলেন আসিফ আলি এবং শাদাব খান। আসিফ প্রায় ক্যাচটি ধরেই ফেলেছিলেন। তবে মাঝখান থেকে শাদাব এসে ক্যাচ ধরতে গেলে, দু'জনের মুখোমুখি সংঘর্ষে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন দুই তারকা।

ভানুকা রাজাপক্ষের অপরাজিত ৭১ রানের হাত ধরে এশিয়া কাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কা লড়াই করার মতো স্কোর করে। টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে লঙ্কা ব্রিগেড ৬ উইকেটে ১৭০ রান করে। রাজাপক্ষে ৪৫ বলে অপরাজিত ৭১ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন।

তবে পাকিস্তানের খেলোয়াড়রা রাজাপক্ষেকে দু'-দু'বার জীবন দান করেছেন। একটি ক্যাচের সময়ে শাদাব খান ও আসিফ আলি দু'জনে মিলে চেষ্টা করতে গিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষে মাটিতে পড়ে গড়াগড়ি খান। তবে ক্যাচটি দুই তারকাই মিস করেন। আর এই ক্যাচ ধরতে না পারাযর কারণে ৬ হয়ে যায়।

শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ১৯তম ওভারে বল করছিলেন ফাস্ট বোলার মহম্মদ হাসনাইন। ষষ্ঠ বলে ডিপ মিডউইকেটে বড় শট খেলেন ভানুকা রাজাপক্ষে। সেই ক্যাচ ধরতে ছুটছিলেন আসিফ আলি এবং শাদাব খান। আসিফ প্রায় ক্যাচটি ধরেই ফেলেছিলেন। তবে মাঝখান থেকে শাদাব এসে ক্যাচ ধরতে গেলে, দু'জনের মুখোমুখি সংঘর্ষে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন দুই তারকা। আর বল চলে যায় বাউন্ডারির বাইরে ছ'রানের জন্য। এই সময় রাজাপক্ষে ৫১ রানে খেলছিলেন। এই বলে ছয় ছাড়াও, শ্রীলঙ্কার ইনিংসের শেষ ওভারে আরও ১৪ রান করেন রাজাপক্ষে।

আরও পড়ুন: প্রচুর ভুল করেছি- ব্যাটিং, ফিল্ডিং, বোলিং সব কিছু নিয়েই আক্ষেপ বাবরের

দিল্লি পুলিশের ব্যঙ্গ

এই ক্যাচ মিসের ভিডিয়ো এখন দিল্লি পুলিশের নয়া বিজ্ঞাপন। পথ নিরাপত্তার জন্য সাধারণ মানুষকে সাবধান করতে এই ভিডিয়ো ব্যবহার করেছে দিল্লি পুলিশ। সঙ্গে কিশোর কুমারের বিখ্যাত গান ‘অ্যায় ভাই যারা দেখ কে চলো..’ এই ভিডিয়োর সঙ্গে ব্য়াকগ্রাউন্ড মিউজিক হিসেবে জুড়ে দিয়েছে। দিল্লি পুলিশ এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করতেই তা হুহু করে ভাইরাল। দিল্লি পুলিশ বোঝাতে চেয়েছে, এই ক্যাচ মিসের মতো রাস্তায় দেখে না চললেই বড় বিপদ ঘটতে পারে।

রাজাপক্ষে ৪৫ রানেও পেয়েছিলেন জীবন দান

রাজাপক্ষে ব্যক্তিগত ৪৫ রানেও জীবন দান পেয়েছিলেনষ তাঁর ক্যাচ ছেড়েছিলেন শাদাব খান। ১৮তম ওভারে বল করছিলেন ফাস্টবোলার হরিশ রাউফ। চতুর্থ বলে ভানুকা রাজাপক্ষে একটি উঁচু শট খেলেন। লোফা ক্যাচ মিস করেন শাদাবই। উল্টে ৩ রান যোগ হয় শ্রীলঙ্কার ইনিংসের সঙ্গে। শেষ পর্যন্ত ৪৫ বলে ৭১ রান করে অপরাজিত থাকেন রাজাপক্ষে। মারেন ৬টি চার এবং ৩টি ছক্কা।

রাজাপক্ষের এই ইনিংসই ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। তা না হলে শ্রীলঙ্কার শুরুটা একেবারেই ভালো হয়নি। তারা একটা সময়ে ৫৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসেছিল।

আরও পড়ুন: W, 1, W, 1, W, 0! হাসারাঙ্গার এই ওভারেই এশিয়া কাপ কার্যত জিতে নিল শ্রীলঙ্কা

ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গার সঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে জুটিতে হাফ সেঞ্চুরি করেন রাজাপক্ষে। ২১ বলে ৩৬ রান করে আউট হন হাসরাঙ্গা। মারেন ৫টি চার এবং একটি ছক্কা। চমিকা করুনারত্নেও ১৪ বলে অপরাজিত ১৪ রান করেন। পাকিস্তানের হয়ে হরিশ রউফ ৪ ওভারে ২৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন। ৪ ওভারে ৪০ রান দেন নাসিম শাহ। একই সময়ে হাসনাইন ৪ ওভারে ৪১ রান দেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তান ২০ ওভারে ১৪৭ রানে অল-আউট হয়ে যায়। মহম্মদ রিজওয়ান ৪৯ বলে ৫৫ করেন। ইফতিকার আহমেদ ৩১ বলে ৩২ করেন। হরিশ রাউফ ৯ বলে ১৩ রান করেন। বাকিরা কেউ দুই অঙ্কের ঘরেই পৌঁছতে পারেননি। ২৩ রানের ব্যবধানে পাকিস্তানকে হারিয়ে ষষ্ঠবার এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন হয় শ্রীলঙ্কা। প্রমোদ মদুশান ৪ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নেন। ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন। করুণারত্নে ৪ ওভারে ৩৩ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট নেন।

বন্ধ করুন