বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > IPL 2022: কফি উইথ করণে ব্যাড বয় ইমেজ তৈরি হতে পারে, তবে গুজরাট ও লখনউকে টানছেন দুই বন্ধুই, সাফল্যের রসায়নটা কী?
কফি উইথ করণ ও আইপিএলের মঞ্চে হার্দিক ও রাহুল। ছবি- টুইটার।
কফি উইথ করণ ও আইপিএলের মঞ্চে হার্দিক ও রাহুল। ছবি- টুইটার।

IPL 2022: কফি উইথ করণে ব্যাড বয় ইমেজ তৈরি হতে পারে, তবে গুজরাট ও লখনউকে টানছেন দুই বন্ধুই, সাফল্যের রসায়নটা কী?

  • পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বই ইন্ডিয়ান্স এখনও IPL 2022-এর একটিও ম্যাচ জিততে পারেনি। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস রয়েছে একেবারে শেষের সারিতে। এই অবস্থায় গড়গড়িয়ে ছুটছে নতুন ২টি দল গুজরাট টাইটানস ও লখনউ সুপার জায়ান্টসের বিজয় রথ। দেখে নেওয়া যাক কোন মন্ত্রে প্রাথমিক সাফল্য পেল নবাগত দু'দল।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগের ইতিহাসে সব থেকে সফল দু'টি দল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ও চেন্নাই সুপার কিংস যেখানে চলতি মরশুমে রীতিমতো খোঁড়াচ্ছে, সেখানে চমকে দেওয়া পারফর্ম্যান্স উপহার দিয়ে চলেছে নবাগত গুজরাট টাইটানস ও লখনউ সুপার জায়ান্টস। মুম্বই ৮ ম্যাচের একটিতেও জিততে পারেনি। তারা লিগ টেবিলের একেবারে শেষ রয়েছে। চেন্নাই সুপার কিংস ৮ ম্যাচে মাত্র ২টিতে জিতেছে। তারা মুম্বইয়ের ঠিক আগে নয় নম্বরে অবস্থান করছে।

অন্যদিকে গুজরাট টাইটানস তাদের প্রথম ৭ ম্যাচে হেরেছে মাত্র ১টিতে। ৬টি ম্যাচ জিতে লিগ টেবিলের শীর্ষে রয়েছে হার্দিক পান্ডিয়ার নেতৃত্বাধীন আমদাবাদ ফ্র্যাঞ্চাইজি। লখনউ তাদের প্রথম ৮ ম্যাচের ৫টিতে জয় তুলে নিয়েছে। হেরেছে ৩টি ম্যাচ। তারাও লিগ টেবিলের প্রথম চারে ঘোরাফেরা করছে ধারাবাহিকভাবে। নবাগত দু'টি দল কোন মন্ত্রে প্রাথমিক সাফল্য পেল, দেখে নেওয়া যাক ছবিটা।

গুজরাট টাইটানসের প্রাথমিক সাফল্যের ৩টি কারণ:-
প্রথমত, নিলামের আগেই তিনজন ক্রিকেটারকে দলে নেওয়ার ক্ষেত্রে মুন্সিয়ানা দেখিয়েছে গুজরাট। হার্দিক পান্ডিয়ার মতো অল-রাউন্ডারের পাশাপাশি রশিদ খানেক মতো অন্যতম সেরা স্পিনারকে জালে তুলতে পারাই গুজরাটকে মানসিকভাবে শক্ত করে। সঙ্গে শুভমন গিলকেও পেয়ে যায় তারা। ফলে নিলামের আগেই একজন ব্যাটসম্যান, একজন বোলার ও একজন অল-রাউন্ডারকে নিশ্চিত করে ফেলে গুজরাট। পরে নিলাম থেকে মহম্মদ শামি, রাহুল তেওয়াটিয়ার মতো পরীক্ষিত তারকাদের পাশাপাশি যশ দয়ালের মতো প্রতিশ্রুতিমান ক্রিকেটারকে দলে নিয়ে শক্তিশালী স্কোয়াড গড়ে তোলে গুজরাট।

দ্বিতীয়ত, হার্দিক পান্ডিয়াকে গুজরাট যথাযথ অল-রাউন্ডার হিসেবে ব্যবহার করতে পারছে। এটাই তাদের সব থেকে ইতিবাচক দিক। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সে শেষের দিকে চোটের জন্য বল করতে পারতেন না পান্ডিয়া। এখনও পর্যন্ত চলতি আইপিএলে হার্দিক দলের হয়ে সব থেকে বেশি ২৯৫ রান সংগ্রহ করেছেন এবং সঙ্গে নিয়েছেন ৪টি উইকেট। ক্যাপ্টেন ব্যাটে-বলে পারফর্ম করে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

তৃতীয়ত, গিল-শামির মতো প্রতিষ্ঠিত তারকারা যেমন নিজেদের সুনাম অনুযায়ী পারফর্ম করছেন, ঠিক তেমনই অভিনব মনোহর, যশ দয়ালের মতো নতুনরাও নিজেদের জাত চেনাচ্ছেন। গিল ২০৭ রান করেছেন। শামি নিয়েছেন দলের হয়ে সব থেকে বেশি ১০টি উইকেট। মনোহর ১৪৬ স্ট্রাইক-রেটে ১০৮ রানের কার্যকরী যোগদান রেখেছেন। যশ দয়াল ৬টি উইকেট নিয়েছেন ইতিমধ্যেই। তাছাড়া ডেভিড মিলার ও লকি ফর্গুলসনও দলের পারফর্ম্যান্সে দুর্দান্ত অবদান রেখেছেন এখনও পর্যন্ত। মিলার ২২০ রান সংগ্রহ করেছেন। ফার্গুসন নিয়েছেন ৯টি উইকেট। রশিদ খান যথারীতি কৃপণ বোলিংয়ের পাশাপাশি ৮টি উইকেটও দখল করেছেন। সব মিলিয়ে গুজরাটের পারফর্ম্যান্সে দলগত অবদান চোখে পড়ছে স্পষ্ট। যার ফলেই আইপিএল ২০২২-এর প্রথমার্ধে পরপর জয় তুলে নিতে সক্ষম হয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়ারা।

লখনউ সুপার জায়ান্টসের প্রাথমিক সাফল্যের ৩টি কারণ:-
প্রথমত, লখনউয়ের দল গড়ার পিছনে পরিকল্পনার ছাপ রয়েছে স্পষ্ট।  বেছে বেছে প্রয়োজন মতো ক্রিকেটারকে স্কোয়াডে নিয়েছে লখনউ। এক্ষেত্রে গৌতম গম্ভীরের ভাবনা-চিন্তার বহিঃপ্রকাশ দেখা গিয়েছে নিলামে। লোকেশ রাহুলকে ক্যাপ্টেন করে দলে নিয়ে আসা ছিল লখনউয়ের সেরা চাল।  সঙ্গে রবি বিষ্ণোইয়ের মতো তরুণের উপর আস্থা রাখাও ভুল বলে মনে হয়নি কারও। স্টইনিস, হোল্ডারের মতো অল-রাউন্ডারদের উপস্থিতি যে কোনও দলকে শক্তিশালী করবে। মেগা নিলামে অন্যতম শক্তপোক্ত দল গড়ে লখনউ। আবেশ খান আইপিএলে পরীক্ষিত। কুইন্টন ডি'কককে নিয়ে প্রশ্ন তোলার জায়গা নেই। ক্রুণাল পান্ডিয়াও ইতিমধ্যেই ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে নিজেকে প্রমাণ করেছেন।

দ্বিতীয়ত, লোকেশ রাহুলের ফর্ম লখনউয়ের প্রাথমিক সাফল্যের অন্যতম কারণ। লখনউ অধিনায়ক ইতিমধ্যেই ১টি হাফ-সেঞ্চুরি ও ২টি সেঞ্চুরি-সহ ৩৬৮ রান সংগ্রহ করেছেন।  বিশেষ করে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে ক্যাপ্টেন নিজে যখন রান করেন, তখন দলের বাকি ক্রিকেটারদের উদ্বুদ্ধ হওয়া স্বাভাবিক।

সর্বোপরি, লখনউও দলগত পারফর্ম্যান্স মেলে ধরছে চলতি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে। এমনটা নয় যে, একা লোকেশ রাহুল ভালো খেলছেন। বরং নিজেদের অবদান রাখছেন দীপক, বাদোনি, কুইন্টন, ক্রুণাল, হোল্ডার, আবেশরাও। হুডা ১৯৮ রান করেছেন। বাদোনি যোদগদান রেখেছেন ১৩৪ রানের। ডি'কক ২২৫ রান করেছেন। পান্ডিয়া ১১২ রান করার পাশাপাশি ৭টি উইকেট নিয়েছেন। হোল্ডার ৯টি এবং আবেশ দলের হয়ে এখনও পর্যন্ত সব থেকে বেশি ১১টি উইকেট দখল করেছেন।

বন্ধ করুন