বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > ফের রামধনুর দেশে IPL! প্ল্যান ‘বি’ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকায় টুর্নামেন্ট আয়োজনের ভাবনা BCCI-র
আইপিএল ট্রফি।
আইপিএল ট্রফি।

ফের রামধনুর দেশে IPL! প্ল্যান ‘বি’ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকায় টুর্নামেন্ট আয়োজনের ভাবনা BCCI-র

  • ২০০৯ সালেও দক্ষিণ আফ্রিকায় আইপিএল আয়োজিত হয়েছিল।

গত মরশুমে করোনার কারণে আইপিএলের দ্বিতীয়ভাগ আমিরশাহীতে আয়োজিত করতে বাধ্য হয়েছিল বিসিসিআই। তার আগের মরশুমেও একই জায়গায় মেগা টুর্নামেন্টটি অনুষ্ঠিত হয়। তবে এইবারও যদি একান্তই ভারতে আইপিএলের আয়োজন সম্ভব না হয়, সেক্ষেত্রে মরুশহরের বদলে বিকল্প জায়গার সন্ধানে বিসিসিআই।

Times of India-র রিপোর্ট অনুযায়ী দক্ষিণ আফ্রিকায় পুনরায় আয়োজিত হতে পারে আইপিএল। বিসিসিআই সেক্রেটারি জয় শাহ আগেভাগেই আসন্ন আইপিএলের মরশুম ভারতে আয়োজিত হবে জানিয়ে দিলেও, করোনার প্রকোপে ফের একবার জনজীবন ব্যাহত এদেশে। প্রতিনিয়তই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এমন অবস্থায় শনিবার (২২ জানুয়ারি) আইপিএলের ফ্রাঞ্চাইজিগুলির মালিকদের সঙ্গে আলোচনায় বসছে বিসিসিআই। সেই আলোচনাসভায় একান্তই ভারতে আইপিএল আয়োজন সম্ভব না হলে প্ল্যান ‘বি’ হিসেবে তা কোথায় আয়োজিত হতে পারে, সেই নিয়ে আলোচনা হতে চলেছে।

এর আগে ২০০৯ সালে মাত্র দ্বিতীয় মরশুমেই রামধনুর দেশে আইপিএল আয়োজিত হয়েছিল। গত দুই মরশুমের বেশিরভাগটাই বাইরে আয়োজিত হয়েছে টুর্নামেন্ট। মরুশহরে ভালভাবেই টুর্নামেন্ট আয়োজিত হলেও মূল সমস্যা আয়োজন জন্য ব্যয় করা অর্থ। গোটা বিষয়ে অবগত এক সূত্র জানাচ্ছেন, ‘বোর্ডের তরফে এমিরেটস ক্রিকেটকে আইপিএল আয়োজন বাবদ ১৫০ কোটি টাকা (২০২০ মরশুমের জন্য ১০০ কোটি ও ২০২১ মরশুমের জন্য ৫০ কোটি) দিতে হয়েছে। বোর্ড আরও একবার এই বিপুল সংখ্যক অর্থ ব্য়য়ে একেবারেই আগ্রহী নয়। সেই কারণেই বিকল্পের খোঁজ করা হচ্ছে।’

উপরন্তু, টুর্নামেন্টে ফ্রাঞ্চাইজির সংখ্যা বাড়ায় ম্যাচের পরিমাণও বাড়বে। সেক্ষেত্রে আমিরশাহীতে মাত্র তিনটি মাঠ থাকাটা সমস্যার বিষয়। উক্ত সূত্র জানান, ‘আমিরশাহীতে মাত্র তিনটি মাঠ রয়েছে, যার ফলে পিচের ওপরও অধিক চাপ পড়বে। দ্বিতীয়ত শারজার মতো মাঠে গত বছর টসের ভিত্তিতে গোটা বিষয়টা খুব একঘেয়ে হয়ে গিয়েছিল। এ বছর সেই একঘেয়েমি থেকে অব্যাহতির প্রয়োজন।’ তবে গোটা বিষয়টা এখনই বেশ কিছুটা দূরে। বিসিসিআইয়ের প্ল্যান এ মহারাষ্ট্রের চার স্টেডিয়ামেই গ্রুপ পর্ব এবং আহমেদাবাদে আইপিএলের নক আউটগুলি আয়োজন করার, যাতে খুব বেশি সফর করতে না হয়। এই বিষয়ে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝির মধ্যেই সিদ্ধান্ত পাকা করবে বিসিসিআই।

বন্ধ করুন