বাংলা নিউজ > ময়দান > নেহাতই চুল কেটেছেন গ্রান্ডহোম, কিন্তু কিউয়ি বোর্ডের অতিনাটকীয় পোস্টে ছড়াল বিভ্রান্তি
কিউয়ি পেসার কলিন ডে গ্রান্ডহোম
কিউয়ি পেসার কলিন ডে গ্রান্ডহোম

নেহাতই চুল কেটেছেন গ্রান্ডহোম, কিন্তু কিউয়ি বোর্ডের অতিনাটকীয় পোস্টে ছড়াল বিভ্রান্তি

  • এ কেমন মজা? নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে একটি টুইট করা হয়, যেখানে বলা হয়েছিল গ্রান্ডহোমের বিখ্যাত মালেট আর নেই। প্রথম দেখায় মনে হতেই পারে কিউয়ি পেসার কলিন ডে গ্রান্ডহোম হয়তো প্রয়াত হয়েছেন।

এ কেমন মজা? নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে একটি টুইট করা হয়, যেখানে বলা হয়েছিল গ্রান্ডহোমের বিখ্যাত মালেট আর নেই। প্রথম দেখায় মনে হতেই পারে কিউয়ি পেসার কলিন ডে গ্রান্ডহোম হয়তো প্রয়াত হয়েছেন। কিন্তু এরপরে ভালো করে সেই টুইট পড়লে বোঝা যাবে, এটা নিছকই একটা মজা। কারণ এই টুইটের মাধ্যমে নিউজিল্যান্ডি ক্রিকেট বোর্ড বোঝাতে চেয়েছে যে গ্রান্ডহোম নিজের হেয়ারস্টাইল বদলে ফেলেছেন।

কিউয়ি পেসার কলিন ডে গ্রান্ডহোম পাকিস্তান সিরিজে নামার আগে বদলে ফেলেছেন তাঁর হেয়ারস্টাইল। ঘাড় ছাপিয়ে যাওয়া লম্বা চুলের জন্যই তিনি আলোচনাতে থাকতেন। কিন্তু আচমকাই ক্রু কাট করে নিলেন। আর এই বিষয়ে কিউয়ি ক্রিকেট বোর্ড একটি টুইটার করে। যা পরে বুমেরাং হয়ে যায়।

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড টুইটারে লিখেছে, ‘দ্য ফেমাস কলিন ডে গ্রান্ড হোম মালেট ইজ নো মোর।’ বাংলায় যার মানে দাঁড়ায় কলিন ডে গ্রান্ডহোমের বিখ্যাত মালেট আর নেই। মালেটের অর্থ হল লম্বা বড় চুল। নেটিজেনরা এই টুইটের ব্যঙ্গ বুঝতে পারেননি। 'নো মোর' শব্দবন্ধেই তাঁদের চোখ আটকে যায়। তাঁরা ধরে নেন যে, গ্রান্ডহোম 'প্রয়াত' হয়েছে।

তারপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় গ্রান্ডহোমের জন্য শোকবার্তা ভেসে ওঠে। টুইটের বন্যা বয়ে যায়। অনেকেই বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের কথা তুলে ধরেন। নেটিজেনরা তাঁর জন্য শোকবার্তা পাঠাতে থাকেন। যা দেখে কিউয়ি বোর্ডও চাপে পড়ে যায়। তবে ধীরে ধীরে নিউজিল্যান্ডে বোর্ডের মজা বুঝতে পারেন সকলে।

বন্ধ করুন