দেবাংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ মনোজের (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
দেবাংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ মনোজের (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

নাটক বঙ্গ ক্রিকেটে, মনোজের অভিযোগে ড্রেসিংরুম ছাড়তে হল দেবাংকে

অনেকের প্রশ্ন, মনোজ তিওয়ারি তো নিজেই নিয়মভঙ্গ করেছেন। ম্যাচ বন্ধ থাকলেও পরিত্যক্ত তো ঘোষণা হয়নি, তাহলে কীভাবে মনোজ ড্রেসিংরুমের অন্দরের খবর সাংবাদিকদের জানাতে পারেন?

যত নাটক যেন বাংলা ক্রিকেটে। সেই তালিকায় এবার যুক্ত হল মনোজ তিওয়ারি বনাম দেবাং গান্ধী পর্ব। রঞ্জি ম্যাচ চলাকালীন বাংলা ড্রেসিংরুমে ঢোকায় দেবাংয়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন শাখায় অভিযোগ দায়ের করেন মনোজ। তার জেরে জাতীয় নির্বাচক কমিটিতে পূর্বাঞ্চলের প্রতিনিধিকে ড্রেসিংরুম ছেড়ে বেরিয়ে যেতে হয়।

গতকাল ইডেনে অন্ধ্রপ্রদেশ বনাম বাংলার ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের খেলা থেমে ছিল। সেই সময় বাংলার ড্রেসিংরুমে ঢোকেন দেবাং। তাঁর দাবি, কোমরে ব্যথা থাকায় বাংলা কোচ অরুণ লালের পরামর্শে দলের ফিজিয়োর সঙ্গে আলোচনা করতে গিয়েছিলেন তিনি। তা নিয়েই প্রশ্ন তোলেন মনোজ। তাঁর বক্তব্য, আগে থেকে অনুমতি না নিয়ে ড্রেসিংরুমে দলের ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফ ছাড়া কেউ প্রবেশ করতে পারেন না। সরাসরি দুর্নীতি দমন শাখার কর্তাদের কাছে অভিযোগ জানান বাংলার প্রাক্তন অধিনায়ক। তারপর দেবাংকে বাংলার ড্রেসিংরুম ছেড়ে বেরিয়ে যেতে বলেন দুর্নীতি দমন শাখার কর্তারা। পরে ইডেনের দ্বিতীয় তলায় সাংবাদিকদের কাছে এসে সে ঘটনা জানান মনোজ।

যদিও দেবাংয়ের দাবি, তিনি আগেভাগেই দুর্নীতি দমন শাখার অনুমতি নিয়েছিলেন। তারপরই সিএবি-র মেডিক্যাল রুমে যান। পরে বঙ্গ ক্রিকেট সংস্থার সচিব অভিষেক ডালমিয়াও বিবৃতি জারি করে সাফ জানান, অনুমতি নিয়েই ড্রেসিংরুমে ঢুকেছিলেন।

এখানেই মনোজের ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। ময়দানের অধিকাংশের বক্তব্য, দেবাংয়ের সঙ্গে মনোজের সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরেই তিক্ত। জাতীয় দলে সুযোগ না পাওয়ায় দেবাংয়ের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন মনোজ। এবার সুযোগ বুঝে প্রতিশোধ তুললেন তিনি। বরং তাঁদের প্রশ্ন, মনোজ তো নিজেই নিয়মভঙ্গ করেছেন। ম্যাচ বন্ধ থাকলেও পরিত্যক্ত তো ঘোষণা হয়নি, তাহলে কীভাবে মনোজ ড্রেসিংরুমের অন্দরের খবর সাংবাদিকদের জানাতে পারেন?

তবে সেইসব প্রশ্ন-পালটা প্রশ্নের মধ্যেই বাংলা ক্রিকেটের করুণ ছবিটাই প্রকট হচ্ছে বলে মত ময়দানের।


বন্ধ করুন