বাংলা নিউজ > ময়দান > ইরফানকে ট্রোল করবেন না, আমি নিজেই ছবি ব্লার করেছিলাম, সাফাই স্ত্রীর
ইরফান পাঠান ও তাঁর স্ত্রী সাফা বেইগ (ছবি: গুগল)
ইরফান পাঠান ও তাঁর স্ত্রী সাফা বেইগ (ছবি: গুগল)

ইরফানকে ট্রোল করবেন না, আমি নিজেই ছবি ব্লার করেছিলাম, সাফাই স্ত্রীর

  • ছবি ব্লার বিতর্কে এবার মুখ খুললেন ইরফান পাঠানের স্ত্রী সাফা বেইগ। তিনি জানিয়ে দিলেন, নিজের ইচ্ছাতেই ছবি আবছা করেছেন তিনি। ইরফান পাঠান কোনও ভাবেই এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে জড়িত নন। এই ঘটনার পরে বারবার সাইবার হুমকি ও অনলাইন হেনস্থা হতে হয়েছে পাঠান পরিবারকে।

ছবি ব্লার বিতর্কে এবার মুখ খুললেন ইরফান পাঠানের স্ত্রী সাফা বেইগ। তিনি জানিয়ে দিলেন, নিজের ইচ্ছাতেই ছবি আবছা করেছেন তিনি। ইরফান পাঠান কোনও ভাবেই এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে জড়িত নন। এই ঘটনার পরে বারবার সাইবার হুমকি ও অনলাইন হেনস্থা হতে হয়েছে পাঠান পরিবারকে। এবার সেই বিষয়ে মুখ খুললেন ইরফান পাঠানের স্ত্রী সাফা বেইগ। 

নিজের স্বামী ও সন্তানের সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন সাফা বেইগ। সেই ছবিতে সাফা বেইগকের মুখকে আবছা বা ব্লার করে দেওয়া হয়েছিল। যা দেখে নেটিজেনরা প্রশ্ন তুলেছিলেন। কেন এমন করলেন পাঠানের স্ত্রী। সমালোচনার মুখে পরেন ভারতীয় ক্রিকেটার ইরফান পাঠান। এরপরেই জানা যায় এই ছবি আসলে সাফা বেইগ নিজের ছেলের অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করেছিলেন। এবং এরপরেই কড়া সমালোচনার মধ্যে পড়তে হয়েছিল তাঁদের। ইরফান পাঠান ও সাফা বেইগকে ঘিরে প্রশ্ন করেছিলেন নেটিজেনরা। 

সেই কারণেই পরে ঐ একই ছবি পরে নিজের টুইটারে পোস্ট করেছিলেন ইরফান পাঠান। তিনি লিখেছিলেন, ‘এই ছবি আমার রাণী আমার ছেলের অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করেছেন। যারফলে আমরা অনেক ঘৃণা পেলাম। তাই আমি এটাকে এখানেও পোস্ট করলাম। সে নিজের ইচ্ছাতেই নিজের মুখটি ব্লার করেছে। এবং হ্যা এটা সত্যি যে আমি তাঁর সঙ্গী, মালিক নই।’

তারপরেও অবশ্য সাইবার হুমকি থামেনি। এরপরেই মুখ খোলেন সাফা বেইগ। এক সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে ইরফান পত্নী জানান, ‘আমি ইমরান (ইরফান পাঠান ও সাফা বেইগের সন্তান)-এর নামে ইনস্টাগ্রামে একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করেছি এবং ওর কিছু ছবি পোস্ট করি যাতে পরে ও যখন বড় হয়ে যাবে তখন নিজের এই সুন্দর স্মৃতি গুলো খুঁজে পাবে। আমি এই অ্যাকাউন্টটা সামলাই এই জন্যই বিশেষ করে ছবি পোস্ট করার জন্য। আমি আমার মুখটা আবছা করেছি আমার ইচ্ছাতেই। এটা সম্পূর্ণ আমার সিদ্ধান্ত এবং ইরফান এটার সঙ্গে কোনও ভাবেই জড়িয়ে নেই।’  

সাফা আরও জানান, তিনি বিয়ের পরে যখন প্রথম ভারতে আসেন এবং পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে নিয়ম মতো সব কাগজ পত্র জমা দিয়ে নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করেন, তখন অফিসের একজন মহিলা অফিসার পাঠানকে বলেছিলেন আপনি চাইলে আপনার স্ত্রীর পদবি বদলাতে পারেন। কিন্তু সেই সময় পাঠান সেই অফিসারকে বলেছিলেন, যদি সাফা এটা না করতে চায় তাহলে জোর করার কিছু নেই। ও যেটায় ভাল মনে করবে ও সেটাই করুক।  

নিজের স্বামীর পাশে থেকে সাফা জানিয়ে দিলেন সম্পূর্ণ ঘটনায় ইরফানের কোনও হাত নেই, তিনি নিজের ইচ্ছাতেই ছবি ব্লার করেছেন। সাফা এখন এই বিতর্কের অবসান চান।

বন্ধ করুন